Notice: Trying to get property 'post_excerpt' of non-object in /var/www/vhosts/parbattanews.com/httpdocs/wp-content/themes/artheme-parbattanews/single.php on line 53

Notice: Trying to get property 'guid' of non-object in /var/www/vhosts/parbattanews.com/httpdocs/wp-content/themes/artheme-parbattanews/single.php on line 55

রাজস্থলীতে চাঁদার দাবিতে দু’টি উন্নয়ন কাজ বন্ধ

নিজস্ব প্রতিনিধি, রাঙামাটি:

রাঙামাটির রাজস্থলী উপজেলার পূর্ব তাইতং পাড়া নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮০০ মিটার সংযোগ সড়ক এবং রাজস্থলী বাজার সংলগ্ন ঝুলন্ত ব্রিজের পুণ:নির্মাণ কা্জ চাঁদার দাবিতে কিছুদিন ধরে বন্ধ রয়েছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ের অধীন ২ লাখ টাকা ব্যয়ে পূর্ব তাইতং পাড়া নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮০০ মিটার সংযোগ সড়ক কাজ শুরু হয় গত এক সপ্তাহ আগে। কিন্তু পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি সন্তু গ্রুপের (পিসিজেএসএস) স্থানীয় চাঁদাবাজদের বাঁধার মুখে কাজটি বন্ধ ছিলো এতদিন।

অপরদিকে, রাজস্থলী বাজার সংলগ্ন উন্নয়ন বোর্ডের অধীন ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে ঝুলন্ত ব্রিজের পুণ:নির্মাণ কাজ চাঁদার দাবিতে গত ৪ মে থেকে বন্ধ রয়েছে। এ কাজটি করছেন কাপ্তাই উপজেলার ঠিকাদার মো. ইয়াছিন।

এই উপজেলার উন্নয়নমূলক কাজ দু’টি বন্ধ রেখে চাঁদা দাবি করে আসছে স্থানীয় জেএসএস কালেক্টর চাথোয়াই মারমা। তিনি মোবাইল ফোনে হুমকি দিয়ে এসব উন্নয়নমূলক কাজ বন্ধ রেখেছেন।

স্থানীয় একাধিক সূত্রের তথ্য মতে জানা গেছে, তাইতং পাড়া নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮০০ মিটার সংযোগ সড়কটি নিয়ে চাঁদাবাজদের সাথে কর্তৃপক্ষের রফাদফা হওয়ায় চাঁদাবাজরা কাজ করার অনুমতি দিলে ৪ মে থেকে সড়কটির কাজ শুরু হয়েছে পুনরায়।

অপরদিকে রাজস্থলী বাজার সংলগ্ন উন্নয়ন বোর্ডের অধীন ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে ঝুলন্ত ব্রিজের পুণ:নির্মাণ কাজটি চাঁদাবাজরা ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করলে কর্তৃপক্ষ তা দিতে না পারায় ৪ মে থেকে বর্তমানে চাঁদাবাজদের ভয়ে কাজটি বন্ধ রয়েছে।

এ বিষয়ে রাজস্থলী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান উথিনচিন মারমা বলেন, গত ৪ মে থেকে পূর্ব তাইতং পাড়া নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮০০ মিটার সংযোগ সড়কটির কাজ পুণরায় শুরু হয়েছে। এ কাজটি করার জন্য স্কুল ফান্ড থেকে ৪২ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে।

কাজ বন্ধ থাকার ব্যাপারে তিনি আরও বলেন, এটা তো পার্বত্য চট্টগ্রাম, আপনারাতো সবই বুঝেন।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

1 × three =

আরও পড়ুন