বাইশারীতে এক অসহায় পরিবারের করুণ আর্তনাদ : নিজ বসতভিটা নিয়ে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি !

fec-image

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারী ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ড আলী মিয়া পাড়া গ্রামের বাসিন্দা অসহায় বয়োবৃদ্ধ ছুরত আলম ও তার পরিবারের করুন আর্তনাদে আকাশ বাতাস ভারী হয়ে উঠেছে। তিনি ও তার স্ত্রী এবং দুই পুত্রের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে অহেতুক হয়রানি করে আসছে বলে সাংবাদিকদের নিকট জানান।

ছুরত আলমের দাবি বাপ দাদার আমল থেকে যে বসতভিটায় বসবাস করে আসছে যে বসতভিটার খতিয়ান রয়েছে। আজ সে বসতভিটার জন্য মিথ্যা মামলা দিয়ে অহেতুক হয়রানি করছে একই ওয়ার্ডের বাসিন্দা মৃত মংনিং মার্মার ছেলে মংপ্রু মার্মা। যে খতিয়ান দিয়ে বিজ্ঞ আদালতে মামলা করেছেন তা খতিয়ান থেকে সম্পুর্ন ভিন্ন। তার পরও কেন এই হয়রানি তিনি হতবাক।

স্থানীয় বাসিন্দা মুক্তিযোদ্ধা আলতাজ মিয়া জানান, পুরো গ্রামটার নামকরণ হয়েছে ছুরত আলমের পিতার নামে আলী মিয়া পাড়া। তারপরও যদি এ ধরণের হয়রানির শিকার হতে হয় তাহলে আমরা এলাকাবাসী ও হতবাক।

ধৈয়ার বাপের পাড়ার বাসিন্দা পাড়া প্রধান অসংখ্য কারবারী সম্পুর্ন অন্যায়ভাবে মংপ্রু মার্মা হয়রানি করে আসছে। এটি ছুরুত আলমের বসতভিটা।

আরেক স্থানীয় বাসিন্দা আবদুল জব্বার জানান, আমরা শুনেছি শত বছর আগে তাদের বাপদাদার বসত ভিটা। তারা বসবাস করে আসছেন।

ছুরত আলমের পুত্র মোঃ ইউছুপ জানান, আমার বড় ভাই মাওলানা আইয়ুব আলী আনচারী পিতার খতিয়ান ভুক্ত জমিতে বসত ঘর নির্মাণ করছিল। ঘরের কাজ প্রায় সমাপ্তির পথে। এরই মধ্যে গত ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ তারিখ মাননীয় অতিরিক্ত জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আদালত বান্দরবন পার্বত্য জেলা পিটিশন মামলা দায়ের করেন মংপ্রু মার্মা। যার ফলে মাননীয় আদালত ১৪৫ ধারা জারি করায় বসত ভিটার কাজ বন্ধ রয়েছে।

স্থানীয় লোকজনের দাবি এটি ছুরত আলমের বাপ দাদার বসতভিটা ও খতিয়ান ভুক্ত জমি।
যাহা সরেজমিনে তদন্ত করলে আসল রহস্য বেরিয়ে আসবে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: নাইক্ষ্যংছড়ি, বাইশারী
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × 2 =

আরও পড়ুন