আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে মানিকছড়িতে সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ

fec-image

আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মানিকছড়ির চার ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে তিনটিতে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে সম্ভাব্য প্রার্থীরা। ফলে মানিকছড়ি, তিনটহরী ও বাটনাতলী ইউপিতে সম্ভাব্য প্রার্থীরা দলীয় মনোনয়নকে অগ্রাধিকার দিয়ে দেন-দরবার ও দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছে। উপজেলা জুড়ে আওয়ামী পরিবারে বইছে নির্বাচনী আমেজ। বর্তমান চেয়ারম্যানেদের শক্ত অবস্থান দখলে নিতে মরিয়া নতুন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। দলের বিশ্বস্থ সূত্র জানিয়েছে, ঘুরে-ফিরে ত্যাগী নেতাদের মধ্য থেকে জন প্রত্যাশানুযায়ী মনোনয়ন দেওয়ার বিষয়টি গুরুত্ব দিচ্ছে র্শীষ নেতারা।

সম্প্রতি সারাদেশে ইউপি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন। দ্বিতীয় ধাপে খাগড়াছড়ি জেলার মাটিরাঙ্গা ও গুইমারা উপজেলার সবকয়টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর জেলার অন্য উপজেলার ইউনিয়নগুলোতে আওয়ামী পরিবারে নির্বাচনী আমেজ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। সে লক্ষ্যে মানিকছড়ি উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের নির্বাচনী জনপদে সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপে গতি বেড়েছে বহুগুনে। ভোটারের চেয়ে নেতাদের কাছে দলীয় মনোনয়ন পেতে প্রার্থীরা নানাভাবে দেন-দরবার, লবিং শুরু করেছেন।

তবে প্রার্থী মনোনয়নে তৃণমুলের দাবি গুরুত্ব দিয়ে ত্যাগী নেতাকর্মীকেই দলীয় মনোনয়ন দিবে শীর্ষ নেতারা। তিনটি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে বর্তমান চেয়ারম্যানরাই নির্বাচনী মাঠ দখলে রাখার চেষ্টা করলেও হেভিওয়েট বেশ কয়েকজন প্রার্থী মনোনয়ন পেতে তৃণমূলে কাজ করছেন। আর সদস্য ( মেম্বার) পদে গড়ে প্রতি ওয়ার্ডে ৩/৪ জন করে সম্ভাব্য প্রার্থী দলীয় মনোনয়ন পেতে গোপনে আপডালে লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন। ভোটারদের কদর করার চেয়ে এখন কদর শীর্ষ নেতাদের। কারণ দল মনোনয়ন দিলেই তো প্রার্থী হওয়া, আর দলীয় মনোনয়ন পাওয়া মানেই নির্বাচিত হওয়া! এই মনোভাব নিয়ে সর্বত্র চলছে সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ।

এ প্রসঙ্গে ১নং মানিকছড়ি ইউপি’র চেয়ারম্যান মো. শফিকুর রহমান ফারুক বলেন, আমি জনগণ ও দলের জন্য যেভাবে কাজ করেছি, তার সিকিভাগ কাজ করার মতো প্রার্থী এখানে নেই। তাই আমি আবারও দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী।

২নং বাটনাতলী ইউপি চেয়ারম্যান মো. শহীদুল ইসলাম মোহন বলেন, বিগত সময়ে দল আমাকে জনসেবা করার যে সুযোগ দিয়েছে। আমি জাতির পিতার একজন আদর্শিত সৈনিক হিসেবে নিঃস্বার্থভাবে জনপদে বিদ্যুতায়ণ, ইউপি ভবন, রাস্তাঘাটে ব্যাপক উন্নয়ন করেছি। অসমাপ্ত উন্নয়ন সম্পন্ন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্ন ২০৪১ এর উন্নত বিশ্বের তালিকায় বাংলাদেশকে নিয়ে যেতে আমি আবারও দলের কাছে মনোনয়ন প্রত্যাশা করছি। আশা করছি দল আমার নীতি-নৈতিকতা ও তৃণমূলে দলীয় সমর্থন মূল্যায়ণ করে আমার প্রতি সদয় হবেন।

৪নং তিনটহরী ইউপি চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, আমি উপনির্বাচনে নির্বাচিত হয়ে জনগণের কল্যাণে কাজ করার মনোভাব নিয়ে ভোটারের দ্বারপ্রান্তে গিয়েও কাজ শেষ করতে পারিনি। ফলে ভোটারদের চাহিদানুযায়ী সেবা করার সুযোগ পেতে আবারও মনোনয়ন প্রত্যাশী।

নতুনমুখ হিসেবে ১নং ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে লড়তে চাইছেন আওয়ামী লীগ নেতা যোগ্য মারমা, ২নং ইউপিতে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. আবদুর রহিম ও সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি মো. আলমগীর হোসেন ও স্বতন্ত্রপ্রাথী হিসেবে মংশেপ্রূ মারমা । ৪নং ইউপিতে সাবেক ইউসিসিলি. চেয়ারম্যান মো. আনোয়ার হোসেন ও প্যানেল চেয়ারম্যান মো. বাহার মিয়া দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী । এদের মধ্যে দলীয় নেতারা অনেক দিন ধরেই দল ও তৃণমূলে সমাজসেবা ও মানব কল্যাণে সক্রিয় থাকতে দেখা গেছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মো. মাঈন উদ্দীন ও সভাপতি মো. জয়নাল আবেদীন ইউপি নির্বাচন প্রসঙ্গে বলেন, আওয়ামী লীগ নির্বাচনমূখী দল। জনগণের ভোটে, জনপ্রতিনিধি জনগণই বানাবে। আমরা দলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের সমর্থন নিয়ে গ্রহনযোগ্য ব্যক্তিকেই দলীয় সমর্থন বা মনোনয়ন দেয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

sixteen + 13 =

আরও পড়ুন