ঈদগাঁওতে নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ছফুর আলমের দাফন সম্পন্ন, পরিস্থিতি থমথমে

fec-image

কক্সবাজারের ঈদগাঁও উপজেলায় প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত উপজেলা নির্বাচনে প্রতিপক্ষ প্রার্থীর ছুরিকাঘাতে নিহত ছফুর আলমের লাশ ময়নাতদন্ত শেষে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে মর্গে বুধবার (২২ মে) সকালে পরিবারের সদস্যদের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে। পরে একই দিন আছরের পর নিজ এলাকায় দাফন সম্পন্ন করা হয়।

জানাজা পূর্ব উল্লেখযোগ্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান মো: আবু তালেব, নবনির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান আহমদ করিম সিকদার ও মরহুমের ভাই।

বক্তব্যে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আবু তালেব বলেন, আজ থেকে যতদিন তিনি বেঁচে থাকবেন ততদিন পর্যন্ত নিহত ছফুর আলমের পরিবারের সকল প্রকার দায়িত্ব তিনি নেবেন বলে জানাজায় উপস্থিত সকলের সামনে অঙ্গিকার করেন এবং এ পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ডের সর্বোচ্চ ন্যায় বিচার নিশ্চিত করার সর্বাত্মক চেষ্টা করবেন বলে বক্তব্যে উল্লেখ করেন। জানাজায় ঈদগাঁ উপজেলার পাঁচ ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানবৃন্দসহ হাজারো মুসল্লী অংশগ্রহণ করেন

ঈদগাঁও থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শুভ রঞ্জন চাকমা জানান, এখনো পর্যন্ত এ ঘটনায় কোন মামলা বা অভিযোগ পাইনি। তবে ঘটনায় জড়িত সন্দেহে চারজন আটক রয়েছে।

উল্লেখ্য, গতকাল মঙ্গলবার (২১ মে) ছিল কক্সবাজারের নবগঠিত ঈদগাঁও উপজেলার প্রথম উপজেলা নির্বাচন। নির্বাচন চলাকালীন সময়ে উপজেলা পোকখালী ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ড মালমুরা পাড়া এলাকায় মোটর সাইকেল প্রতীকের শামশুল আলমের সমর্থকরা টেলিফোন প্রতীকের মো. আবু তালেবের সমর্থকদের উপর হামলে পড়ে। এসময় একই এলাকার নমি উদ্দিনের ছেলে ছফুর আলমকে (৩৫) ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত করে চিহ্নিত ঘাতকদল। তাকে উদ্ধার করে ঈদগাঁওস্থ এক হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। পরে পুলিশ তার লাশের সুরতহাল তৈরি পূর্বক ময়নাতদন্তের জন্য ওই দিন সন্ধ্যা রাতে সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: উপজেলা পরিষদ নির্বাচন, কক্সবাজার, নিহত
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন