কক্সবাজারের মূর্তিমান আতঙ্ক ‘আল-ইয়াকিন’

fec-image

বাংলাদেশিদের অপহরণ করে নিয়ে যাওয়া হয় কক্সবাজারের নির্জন পাহাড়ে। সেখানে হাত-পা ও চোখ বেঁধে চলে নির্মম নির্যাতন। এরপর টাকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। সময় মতো টাকা না দিলে পাহাড়ে গর্ত করে পুঁতে ফেলার নজিরও স্থাপন করেছে এ বাহিনী। কক্সবাজারে রোহিঙ্গা নিয়ন্ত্রিত সশস্ত্র বাহিনীটির নাম হারাকা ‘আল-ইয়াকিন’।

বর্তমানে রোহিঙ্গাসহ স্থানীয় বাংলাদেশিদের মধ্যে ত্রাস সৃষ্টি করেছে এ বাহিনীর সদস্যরা। কক্সবাজারে আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি (আরসা) নামেও এরা পরিচিত। কক্সবাজারবাসী একে ‘জঙ্গি বাহিনী’ বলেও আখ্যা দিয়েছেন।

ঢাকা পোস্টের অনুসন্ধানে জানা গেছে, কক্সবাজারে বর্তমানে আল-ইয়াকিনের প্রায় দুই হাজার সদস্য রয়েছে। দেড়শ’র মতো নারী সদস্যও রয়েছে তাদের। কক্সবাজার ও টেকনাফের প্রতিটি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে তারা। তবে কুতুপালং ও বালুখালিতে তাদের সদস্য সংখ্যা বেশি।

কক্সবাজারে বর্তমানে আল-ইয়াকিনের প্রায় দুই হাজার সদস্য রয়েছে। দেড়শ’র মতো নারী সদস্যও রয়েছে তাদের। কক্সবাজার ও টেকনাফের প্রতিটি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে তারা। তবে কুতুপালং ও বালুখালিতে তাদের সদস্য সংখ্যা বেশি নিজ দেশ মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গাদের বাস্তুচ্যুত হওয়ার অন্যতম কারণ ছিল দেশটির সেনাবাহিনীর ওপর হামলা। ওই হামলার সঙ্গে জড়িত ছিল আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি (আরসা)। এখন তারা বাংলাদেশেও আধিপত্য বিস্তার করছে। এছাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ভেতরে মাদক বিক্রি, মানবপাচার, অপহরণের পর মুক্তিপণ আদায়, ডাকাতি ও মাদকের টাকায় আগ্নেয়াস্ত্র সংগ্রহের কাজ করছে ‘আল-ইয়াকিন’।

২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি মোহাম্মদ ওমর ফারুককে (৩০) গুলি করে হত্যা করা হয়। প্রথমে জানা যায়, স্থানীয় এক ডাকাত দল এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত। পরে জানা যায়, ওই হত্যাকাণ্ডের পেছনে ছিল আল-ইয়াকিনের সন্ত্রাসীরা। তাদের দুই সদস্য অবশ্য পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন।

কক্সবাজার পুলিশের দায়িত্বশীল একটি সূত্র জানায়, গত কয়েক বছরে আল-ইয়াকিনের হাতে কমপক্ষে ২৫ রোহিঙ্গা ও বাংলাদেশি নাগরিক খুন হয়েছেন। প্রায়ই স্থানীয়দের (বাংলাদেশি) অপহরণ করে তারা। নির্জন পাহাড়ে নিয়ে মুক্তিপণ আদায়ের সংবাদও শোনা যায়। ভুক্তভোগী এমন বেশ কয়েকটি পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ পাহাড়ে অভিযান চালায়। তবে এখন পর্যন্ত এ চক্রের একজন সদস্যকেও গ্রেফতার করতে পারেনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

 একটি ভিডিওতে আল-ইয়াকিনের নেতারা দাবি করেন, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার আরাকানের অংশ। তারা এতদিন মিয়ানমারের রাখাইনে ছিলেন। এখন তাদের আরেক রাজ্য কক্সবাজারে এসেছেন। তারা এখানেই থাকবেন, রোহিঙ্গাদের দাবি আদায়ে কক্সবাজারের নিয়ন্ত্রণ নেবেন

২০১৯ সালে টেকনাফের বাহারছড়া টইগ্যা পাহাড়সহ বেশ কয়েকটি দুর্গম পাহাড়ে ড্রোন দিয়েও অভিযান চালায় র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)। তবে তাদের অবস্থান শনাক্ত করা যায়নি।

কী চায় আল-ইয়াকিন

 ইউটিউবে তাদের বেশ কয়েকজন নেতা নিয়মিত ভিডিও প্রচার করেন। এসব ভিডিওর ব্যাকগ্রাউন্ডে (পারিপার্শ্বিক অবস্থা) নির্জন পাহাড় ও অস্ত্র দেখা যায়। তবে সেগুলো বাংলাদেশে ধারণকৃত কি না, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

একটি ভিডিওতে আল-ইয়াকিনের নেতারা দাবি করেন, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার আরাকানের অংশ। তারা এতদিন মিয়ানমারের রাখাইনে ছিলেন। এখন তাদের আরেক রাজ্য কক্সবাজারে এসেছেন। তারা এখানেই থাকবেন, রোহিঙ্গাদের দাবি আদায়ে কক্সবাজারের নিয়ন্ত্রণ নেবেন।

আমাকে লেদা রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে অপহরণ করা হয়। তারা আমার চোখ বেঁধে শালবন পাহাড়ের চূড়ায় নিয়ে যায়। সেখানে দিনে দু-তিনবার মারধর করা হতো, পরনের কাপড় খুলে নির্মমভাবে পেটানো হতো কামরুল হাসান, ভুক্তভোগী সিএনজিচালক বিভিন্ন ভিডিওতে রোহিঙ্গাদের দাবি আদায়ের কথা বললেও ক্যাম্পের ভেতরে খোদ রোহিঙ্গাদের নির্যাতন ও ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত আল-ইয়াকিনের সন্ত্রাসীরা।

স্থানীয়দের মুখে আল-ইয়াকিনের ভয়াবহতা

কক্সবাজার জেলার সবচেয়ে বড় ইউনিয়ন শাপলাপুর। মহেশখালী উপজেলার অধীন এটি। শাপলাপুর থেকে এখন পর্যন্ত অনেককে অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায় করে এ বাহিনীর সদস্যরা। মুক্তিপণ দিয়ে ফিরে আসা এমন চার ভুক্তভোগীর একজন স্থানীয় ব্যবসায়ী। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এ ব্যবসায়ী জানান, জুনের দ্বিতীয় সপ্তাহে টেকনাফের লেদা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সামনে থেকে তাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। প্রায় ১৫ দিন পর মুক্তিপণের পাঁচ লাখ টাকা দিয়ে তাকে ফিরিয়ে আনে পরিবার।

চলতি বছরের ১৯ মে টেকনাফ থেকে কামরুল হাসান নামের এক সিএনজিচালককে অপহরণ করে আল-ইয়াকিনের সদস্যরা। তিনি বলেন, ‘আমাকে লেদা রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে অপহরণ করা হয়। তারা আমার চোখ বেঁধে শালবন পাহাড়ের চূড়ায় নিয়ে যায়। সেখানে দিনে দু-তিনবার মারধর করা হতো, পরনের কাপড় খুলে নির্মমভাবে পেটানো হতো।’

নাম প্রকাশ না করে কুতুপালং ক্যাম্পের বেশ কয়েকজন রোহিঙ্গা জানান, ক্যাম্পের অধিকাংশ মানুষই শান্তি চান। তারা বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নির্দেশনা অনুযায়ী চলাফেরা করেন। তবে আল-ইয়াকিনসহ বেশ কয়েকটি সন্ত্রাসী সংগঠন ক্যাম্পে অশান্তি সৃষ্টি করছে। শুধু বাংলাদেশি নয়, রোহিঙ্গারাও তাদের হাতে নির্যাতিত হচ্ছেন। চলতি বছরের মার্চে উখিয়ার বালুখালি ক্যাম্পে ভয়াবহ যে আগুনের ঘটনা ঘটে তা ছিল আল-ইয়াকিনের কাজ। আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে তারা রোহিঙ্গাদের ঘর পুড়িয়ে দেয় ‘আমাকে দিয়ে বাবাকে প্রতিদিন ফোন দিত তারা। মুক্তিপণ হিসেবে ১০ লাখ টাকা দাবি করে। বাবাকে ফোন দিয়ে তারা ফাঁকা গুলি ছুড়ে শব্দ শোনাত, যাতে তিনি ভয় পান। দ্রুত মুক্তিপণের টাকার ব্যবস্থা করেন। অপহরণের ১১ দিনের মাথায় পাঁচ লাখ টাকা দিলে তারা আমাকে ছেড়ে দেয়। ক্যাম্পের কাছে আমার সামনেই তারা টাকাগুলো ভাগ করে নেয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘পাহাড়ের চূড়ায় থাকাবস্থায় মাঝেমধ্যে আমার চোখ খুলে দেয়া হতো। সেসময় দেখতাম, তারা সংখ্যায় ১২-১৪ জন। সবার কাছে নাইন এমএম পিস্তল। পর্যাপ্ত গুলিও থাকত তাদের সঙ্গে। চার/পাঁচজনের কাছে দুটা করে অস্ত্র থাকত।’

কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পের আশপাশের লোকজন জানান, শালবন ও কুতুপালং ক্যাম্পে এ বাহিনীর অধিকাংশ সদস্যের অবস্থান। বর্তমানে রোহিঙ্গাদের প্রতিটি ক্যাম্পে আল-ইয়াকিনের সদস্যরা আছে। অভিযোগ আছে, তারা ক্যাম্পের নারীদের মোটা অঙ্কের অর্থের লোভ দেখিয়ে নিজেদের সোর্স বানায়। তাদের দিয়ে অপহরণ ও মাদকপাচারের কাজও করায় এ বাহিনীর সন্ত্রাসীরা।

দিনে একবেলা তাদের খাবার দেওয়া হতো। অধিকাংশ সময় মিলত চিড়া-মুড়ি আর পানি। অন্যদিকে, সারাদিন চলত পাশবিক নির্যাতন। পুরোপুরি উলঙ্গ করে লাঠি দিয়ে পেটানো হতো। গলায় ছুরি ধরা হতো, মাঝেমধ্যে হাতে পোঁচ দিয়ে রক্ত বের করে দিত। ঘাড়ে ও মাথায় পিস্তল ঠেকাত, বাট দিয়ে আঘাতও করত। ভয় দেখাতে আকাশে ফাঁকা গুলি ছুড়ত। এ সময় তারা বলত, মুক্তিপণের টাকা না দিলে এখনই মেরে ফেলবে। বাঁচার জন্য ভুক্তভোগী যখন কান্না শুরু করত তখনই তারা পরিবারের কাছে ফোন দিত

কুতুপালং ক্যাম্পের বেশ কয়েকজন রোহিঙ্গা পরিচয় গোপন করে তারা জানান, ক্যাম্পের অধিকাংশ মানুষই শান্তি চান। তারা বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নির্দেশনা অনুযায়ী চলাফেরা করেন। তবে আল-ইয়াকিনসহ বেশ কয়েকটি সন্ত্রাসী সংগঠন ক্যাম্পে অশান্তি সৃষ্টি করছে। শুধু বাংলাদেশি নয়, রোহিঙ্গারাও তাদের হাতে নির্যাতিত হচ্ছেন। চলতি বছরের মার্চে উখিয়ার বালুখালি ক্যাম্পে ভয়াবহ যে আগুনের ঘটনা ঘটে তা ছিল আল-ইয়াকিনের কাজ। আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে তারা রোহিঙ্গাদের ঘর পুড়িয়ে দেয়।

তারা আরও জানান, সংগঠনটি (আল-ইয়াকিন) বর্তমানে নারী সদস্য নিয়োগ দিচ্ছে। ক্যাম্পের নানা তথ্য তারা সংগঠনের নেতাদের জানিয়ে দেয়। এছাড়া স্থানীয় বিত্তশালীদের (বাংলাদেশি) বিভিন্নভাবে প্রভাবিত করে ক্যাম্পে নিয়ে আসে আল-ইয়াকিনের সুন্দরী নারী সদস্যরা। পরে তাদের ক্যাম্প থেকে অপহরণ করা হয়। এ কাজের জন্য ১০ হাজার করে টাকা পায় তারা।

এভাবে অপহরণের শিকার কয়েকজন ভুক্তভোগী জানান, টেকনাফের শাল বাগান, শাপলাপুর পাহাড়, জিমংখালি পাহাড়, পালংখালি, কুতুপালং ক্যাম্প ও মিনা বাজার সংলগ্ন নির্জন পাহাড়ে নিয়ে যাওয়া হতো তাদের। এসব পাহাড় অন্যান্য এলাকার চেয়ে বেশ নির্জন, বন্য হাতি চলাফেরা করে। এ কারণে ভয়ে ওদিকে কেউ যায় না। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও সচরাচর এসব এলাকায় অভিযান চালাতে সাহস দেখায় না। গত পাঁচ বছরে র‍্যাব-পুলিশ মাত্র দু-একবার সেখানে যৌথ অভিযান চালায়। এ কারণে এসব পাহাড় নিরাপদ মনে করে আল-ইয়াকিনের সন্ত্রাসীরা।

আমার মুদি দোকান ছিল। তাদের বলেছিলাম, পাঁচ লাখ টাকা দিতে পারব না। তারা আমাকে উলঙ্গ করে একদিন দাঁড় করিয়ে রাখে। মুক্তিপণের টাকা না দেওয়া পর্যন্ত তারা আমাকে প্রস্রাব-পায়খানা করতে বারণ করে। যখন চেপে ধরতে পারতাম না তখন লাঠি দিয়ে নির্মমভাবে আমাকে পেটানো হতো অপহরণের শিকার এক ভুক্তভোগী পাহাড়ের চূড়ায় যেভাবে চলে নির্যাতন

অপহরণের পরই ভুক্তভোগীদের চোখ-মুখ ও হাত বেঁধে নির্জন পাহাড়ে নেওয়া হয়। পাহাড়ে ওঠার পর তাদের পাও বেঁধে ফেলা হয়। সেখানে তিন-চার ফিট গভীর গর্তে রাখা হয় তাদের। মাথার ওপরে খোলা আকাশ। রোদ-ঝড়-বৃষ্টি যা-ই হোক না কেন সেখানেই থাকতে হয়। পাশের ঝুপড়ি ঘরে অবস্থান করতেন অপহরণকারীরা।

দিনে একবেলা তাদের খাবার দেওয়া হতো। অধিকাংশ সময় মিলত চিড়া-মুড়ি আর পানি। অন্যদিকে, সারাদিন চলত পাশবিক নির্যাতন। পুরোপুরি উলঙ্গ করে লাঠি দিয়ে পেটানো হতো। গলায় ছুরি ধরা হতো, মাঝেমধ্যে হাতে পোঁচ দিয়ে রক্ত বের করে দিত। ঘাড়ে ও মাথায় পিস্তল ঠেকাত, বাট দিয়ে আঘাতও করত। ভয় দেখাতে আকাশে ফাঁকা গুলি ছুড়ত। এ সময় তারা বলত, মুক্তিপণের টাকা না দিলে এখনই মেরে ফেলবে। বাঁচার জন্য ভুক্তভোগী যখন কান্না শুরু করত তখনই তারা পরিবারের কাছে ফোন দিত।

 একজন ভুক্তভোগী নাম প্রকাশ না করে বলেন, ‘আমার মুদি দোকান ছিল। তাদের বলেছিলাম, পাঁচ লাখ টাকা দিতে পারব না। তারা আমাকে উলঙ্গ করে একদিন দাঁড় করিয়ে রাখে। মুক্তিপণের টাকা না দেওয়া পর্যন্ত তারা আমাকে প্রস্রাব-পায়খানা করতে বারণ করে। যখন চেপে ধরতে পারতাম না তখন লাঠি দিয়ে নির্মমভাবে আমাকে পেটানো হতো।’

গত কয়েক মাসে তাদের হাতে ধর্ষণের শিকার পাঁচ/ছয় নারীর চিকিৎসা করেছি। তাদের সবার বক্তব্য হলো, আল-ইয়াকিনের সদস্যরা তাদের সর্বনাশ করেছে। ক্যাম্পের ভেতরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের তেমন বিচরণ নেই। এ সুযোগে যা ইচ্ছা তা-ই করার সুযোগ পায় আল-ইয়াকিন। ইচ্ছা হলে তারা পরিবারের সদস্যদের সামনেই নারীদের ধর্ষণ করে। সর্বশেষ মে মাসে আল-ইয়াকিন সদস্যদের হাতে ধর্ষণের শিকার, পরে গর্ভবতী হওয়া এক রোহিঙ্গা নারী আমার কাছে চিকিৎসা নিয়েছেন এবং গর্ভপাত করিয়েছেন নাম প্রকাশ না করে এক পল্লীচিকিৎসক পরিবারের সামনেই ধর্ষণ করে আল-ইয়াকিন সদস্যরা

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ত্রাস সৃষ্টি করা সশস্ত্র সংগঠন আল-ইয়াকিন সম্পর্কে মুখ খুলতে চান না কেউই। যদি তারা খুন করে ফেলে— এ ভয়ে কেউ কিছু বলার সাহস দেখান না। প্রতিনিয়ত তাদের হাতে ধর্ষণের শিকার হচ্ছেন অসংখ্য রোহিঙ্গা নারী। পরে মুমূর্ষু অবস্থায় ক্যাম্পের আশপাশের পল্লীচিকিৎসকের শরণাপন্ন হন তারা। অনেকে বাধ্য হয়ে গর্ভবতী হয়েছেন, অনেকে আবার গর্ভপাতও করিয়েছেন।

অসংখ্য নারীর অনাকাঙ্ক্ষিত গর্ভপাত করানো টেকনাফের এক পল্লীচিকিৎসক পরিচয় গোপন করে বলেন, অনেক আগে থেকেই আল-ইয়াকিনের নির্মম বর্বরতার কথা শুনেছিলাম। কখনও নিজ চোখে তাদের দেখিনি। তবে গত কয়েক মাসে তাদের হাতে ধর্ষণের শিকার পাঁচ/ছয় নারীর চিকিৎসা করেছি। তাদের সবার বক্তব্য হলো, আল-ইয়াকিনের সদস্যরা তাদের সর্বনাশ করেছে। ক্যাম্পের ভেতরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের তেমন বিচরণ নেই। এ সুযোগে যা ইচ্ছা তা-ই করার সুযোগ পায় আল-ইয়াকিন। ইচ্ছা হলে তারা পরিবারের সদস্যদের সামনেই নারীদের ধর্ষণ করে। সর্বশেষ মে মাসে আল-ইয়াকিন সদস্যদের হাতে ধর্ষণের শিকার, পরে গর্ভবতী হওয়া এক রোহিঙ্গা নারী আমার কাছে চিকিৎসা নিয়েছেন এবং গর্ভপাত করিয়েছেন।

ছেলেকে উদ্ধারে এলাকার মেম্বার-চেয়ারম্যানসহ অনেককে দিয়ে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করি। তবে তারা কোনোভাবেই টাকা ছাড়া ছেলেকে ছাড়তে রাজি হয়নি। পাহাড়ের ওপরে তারা (আল-ইয়াকিন) কাঁটাতারের বেড়া তৈরি করেছে, বড় বড় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে থাকে। তাই পুলিশও সেখানে যেতে সাহস দেখায় না নাম প্রকাশ না করে ভুক্তভোগী এক বাবা

স্থানীয় থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ২০২০ সালের এপ্রিলে টেকনাফের জীমংখালি থেকে এক দিনমজুর ও দুই কৃষককে (জুমচাষি) তুলে নিয়ে যায় আল-ইয়াকিনের সশস্ত্র সদস্যরা। তারা তাদের পরিবারের কাছে মোট ২০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। ওই সময় তাদের উদ্ধারে টেকনাফের তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাস উনচিপ্রাং, মিনাবাজার, জীমংখালিসহ বেশ কয়েকটি পাহাড়ে অভিযান চালান। তবে তাদের উদ্ধার করা যায়নি। পরে তিন লাখ টাকা করে মুক্তিপণ দিয়ে দুজন কৃষক ফিরে আসেন। তবে দিনমজুরের পরিবার টাকা দিতে না পারায় তাকে হত্যা করা হয়। পরে তার মাটিচাপা মরদেহ মেলে জীমংখালির পাহাড়ে।

র‍্যাব-পুলিশ কেউই আমার ছেলেকে এনে দিতে পারেনি

পরিচয় গোপন করে ভুক্তভোগী এক বাবা আল-ইয়াকিনের হাত থেকে ছেলেকে ফিরে পাওয়ার কাহিনি বলেন। তিনি বলেন, মে মাসে আল-ইয়াকিনের সদস্যরা আমার ছেলেকে অপহরণ করে। এরপর আমার কাছে ১০ লাখ টাকা দাবি করে। আমরা পুলিশ, র‍্যাবকে বলেছি। কিন্তু কেউ আমার ছেলেকে উদ্ধার করতে পারেনি। পরে বিকাশের মাধ্যমে ধাপে ধাপে পাঁচ লাখ টাকা দেওয়ার পর তারা আমার ছেলেকে নির্জন রাস্তায় ফেলে যায়। এপিবিএন তাকে উদ্ধার করে।

স্থানীয় পুলিশ ও আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন জানায়, টেকনাফ ও কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এসবিবিএল (একনলা বন্দুক), নাইন এমএম পিস্তল, থ্রি নট থ্রি রাইফেল, ওয়ান শুটারগান, এমনকি একে-৪৭ এর মতো মারাত্মক আগ্নেয়াস্ত্রের সন্ধান পাওয়া গেছে। মাঝেমধ্যে কিছু অস্ত্র ধরাও পড়ে

তিনি আরও বলেন, ‘কক্সবাজারে আল-ইয়াকিন সদস্যদের নিজস্ব সোর্স থাকে। তারা বিভিন্নভাবে প্রলোভন দেখিয়ে ভুক্তভোগীদের রোহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকায় নিয়ে যায়। পরে আল-ইয়াকিনের সদস্যদের হাতে তুলে দেয়। এ কাজে তারা নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা পায়। সেখান থেকে ভুক্তভোগীকে অস্ত্রের মুখে নিয়ে যাওয়া হয় শালবনের নির্জন পাহাড়ে। ছেলেকে উদ্ধারে এলাকার মেম্বার-চেয়ারম্যানসহ অনেককে দিয়ে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করি। তবে তারা কোনোভাবেই টাকা ছাড়া ছেলেকে ছাড়তে রাজি হয়নি। পাহাড়ের ওপরে তারা (আল-ইয়াকিন) কাঁটাতারের বেড়া তৈরি করেছে, বড় বড় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে থাকে। তাই পুলিশও সেখানে যেতে সাহস দেখায় না।’

অপহরণের শিকার দুই ভুক্তভোগী ও দুই সিএনজি চালক জানান, কক্সবাজার থেকে টেকনাফের পথে শাপলাপুর ও হুইংচংয়ের মাঝের বড়ডালার এক কিলোমিটার সড়কটি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। এখানে আল-ইয়াকিনের সদস্যদের আনাগোনা বেশি। সিএনজি অটোরিকশা বা মোটরসাইকেল আটকে অহরহ তারা এখানে অপহরণের ঘটনা ঘটায়।

সড়কটি ‘সোনালী ব্যাংক’ নামেও পরিচিত। আলম নামের ঢাকার এক সিএনজিচালক বলেন, ‘এ সড়কে অপহরণের পাশাপাশি মুক্তিপণের টাকাও আদায় করা হয়। আল-ইয়াকিনের সদস্যরা অপহরণের পর মুক্তিপণের টাকা দিতে ভুক্তভোগীর পরিবারকে এখানে আসতে বলে। তারা এখানে স্থানীয় স্কুলশিক্ষার্থীদের দাঁড় করিয়ে রাখে। ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা শিক্ষার্থীদের হাতে টাকা দেন। সেই টাকা চলে যায় অপহরণকারীদের কাছে। ক্যাম্প থেকে টাকাপ্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর ভুক্তভোগীকে মুক্তি দেওয়া হয়।’

তারা ক্যাম্পে নাশকতা করে। আমাদের মারধর করে। কেউ প্রতিবাদের সাহস দেখায় না। প্রতিবাদ করলে যে জবাই করে ফেলবে। একবার একজনের শরীর ও মাথা পাহাড়ে দুই স্থান থেকে উদ্ধার করা হয়। আমরা শান্তির জন্য বাংলাদেশে এসেছিলাম। সন্ত্রাসীদের কারণে এখানেও শান্তি মিলছে না নাম প্রকাশ না করে উনচিপ্রাং ক্যাম্পের এক রোহিঙ্গা আল-ইয়াকিন সদস্যদের হাতে যেসব অস্ত্র

কক্সবাজারের স্থানীয়রা (বাংলাদেশি) বলছেন, তারা কক্সবাজার ও টেকনাফের রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে অত্যাধুনিক অস্ত্র দেখেছেন। এগুলো অবৈধভাবে মিয়ানমার থেকে আনা। বিষয়টি স্থানীয় থানা পুলিশও স্বীকার করেছে। তবে সীমান্ত দিয়ে কীভাবে অস্ত্র প্রবেশ করছে— এ প্রশ্নের উত্তর মেলেনি কারও কাছে।

স্থানীয় পুলিশ ও আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন জানায়, টেকনাফ ও কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এসবিবিএল (একনলা বন্দুক), নাইন এমএম পিস্তল, থ্রি নট থ্রি রাইফেল, ওয়ান শুটারগান, এমনকি একে-৪৭ এর মতো মারাত্মক আগ্নেয়াস্ত্রের সন্ধান পাওয়া গেছে। মাঝেমধ্যে কিছু অস্ত্র ধরাও পড়ে।

টেকনাফ থানা পুলিশ জানায়, তাদের সঙ্গে প্রায়ই রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। এছাড়া সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে প্রায়ই পুলিশ অভিযান পরিচালনা করে এসব অস্ত্র উদ্ধার করে।

কক্সবাজারের স্থায়ী বাসিন্দাদের দাবি, আব্দুল হাকিম ওরফে হাকিম ডাকাত সশস্ত্র সংগঠন আল-ইয়াকিন পরিচালনা করছেন। তাকে বেশ কয়েকবার অভিযান চালিয়েও ধরতে পারেনি পুলিশ।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আল-ইয়াকিন সদস্যদের অপতৎপরতা দেখেছেন উনচিপ্রাং ক্যাম্পের অনেক রোহিঙ্গা। তাদেরই একজন পরিচয় গোপন করে বলেন, তারা ক্যাম্পে নাশকতা করে। আমাদের মারধর করে। কেউ প্রতিবাদের সাহস দেখায় না। প্রতিবাদ করলে যে জবাই করে ফেলবে। একবার একজনের শরীর ও মাথা পাহাড়ে দুই স্থান থেকে উদ্ধার করা হয়। আমরা শান্তির জন্য বাংলাদেশে এসেছিলাম। সন্ত্রাসীদের কারণে এখানেও শান্তি মিলছে না।

কক্সবাজারের স্থায়ী বাসিন্দাদের দাবি, আব্দুল হাকিম ওরফে হাকিম ডাকাত সশস্ত্র সংগঠন আল-ইয়াকিন পরিচালনা করছেন। তাকে বেশ কয়েকবার অভিযান চালিয়েও ধরতে পারেনি পুলিশ।

বর্তমানে রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে মোট ১২টি গ্রুপ সক্রিয় রয়েছে। তাদের মধ্যে মুন্না গ্রুপ, আনাস গ্রুপ, মাহাদ গ্রুপ, সালমান শাহ গ্রুপ, হাফেজ আহমদ গ্রুপ, হাকিম ডাকাত গ্রুপ, নুরে আলম বাহিনী, জকির ডাকাত গ্রুপকে ‘সন্ত্রাসী গোষ্ঠী’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সক্রিয় আরও ডজনখানেক সন্ত্রাসী গ্রুপ

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে মোট ১২টি গ্রুপ সক্রিয় রয়েছে। তাদের মধ্যে মুন্না গ্রুপ, আনাস গ্রুপ, মাহাদ গ্রুপ, সালমান শাহ গ্রুপ, হাফেজ আহমদ গ্রুপ, হাকিম ডাকাত গ্রুপ, নুরে আলম বাহিনী, জকির ডাকাত গ্রুপকে ‘সন্ত্রাসী গোষ্ঠী’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

ক্যাম্পের রোহিঙ্গারা জানান, সেখানে বর্তমানে আতাউল্লাহর বাহিনী, আরএসও, আরআরএসও নামের কয়েকটি সংগঠন সক্রিয়ভাবে কাজ করছে।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পকেন্দ্রিক আল-ইয়াকিন কিংবা আরসার মতো উগ্রবাদী সংগঠনের কোনো অস্তিত্ব নেই বলে দাবি করেন বাংলাদেশ পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মো. আনোয়ার হোসেন। তিনি বলেন, ‘এ ধরনের কোনো সংগঠনের অস্তিত্ব নেই। তারপরও আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখব।’

রোহিঙ্গা ক্যাম্পকেন্দ্রিক আল-ইয়াকিন কিংবা আরসার মতো উগ্রবাদী সংগঠনের কোনো অস্তিত্ব নেই। তারপরও আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখব চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মো. আনোয়ার হোসেন
তবে ২০২০ সালের জুলাই মাসে কক্সবাজারের সাবেক পুলিশ সুপার (এসপি) এ বি এম মাসুদ হোসেন ‘আব্দুল হাকিম’ ওরফে ‘হাকিম ডাকাত’-কে গ্রেফতারে পুরস্কার ঘোষণা করেছিলেন।

কে এই হাকিম ডাকাত

রোহিঙ্গা দুর্ধর্ষ ডাকাত আবদুল হাকিম। গরু চোরাকারবারির মাধ্যমে তার বেড়ে ওঠা। মিয়ানমার থেকে গরুর চালান আনতেন বাংলাদেশে। মিয়ানমারে ম্যাট্রিক পর্যন্ত পড়ালেখা করেন। পরে জড়িয়ে পড়েন ইয়াবা ও অস্ত্রকারবারে। কক্সবাজার অঞ্চলের বিশেষ মহলের আশীর্বাদে এক সময় বাংলাদেশ ও মিয়ানমারে গড়ে তোলেন ডাকাত বাহিনী। কক্সবাজারের সীমান্ত জনপদ টেকনাফের পাহাড়ি অঞ্চল ও মিয়ানমার সীমান্ত এলাকার বাসিন্দাদের কাছে মূর্তিমান আতঙ্কের নাম আবদুল হাকিম।

মিয়ানমারের রাশিদং থানার বড়ছড়া গ্রামের জানি আলীর ছেলে তিনি। দুই যুগ আগে হাকিম মিয়ানমারের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এক কর্মকর্তাকে খুন করে দেশ ছাড়েন, পালিয়ে আশ্রয় নেন টেকনাফে। সঙ্গে নিয়ে আসেন স্ত্রী-সন্তান ও পাঁচ ভাইকে। অভিযোগ আছে, কুতুবদিয়া দ্বীপে মিথ্যা তথ্য দিয়ে জন্মনিবন্ধনসহ ভোটার আইডি তৈরি করে নেন হাকিম ও তার পরিবারের সদস্যরা। টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপের মিস্ত্রিপাড়ার জহির আহমদ ওরফে গাছ জহিরের মেয়ে ইসমত আরা বেগমকে বিয়ে করেন হাকিম। এছাড়া একাধিক বিয়ে রয়েছে তার।

গত বছরের ২৬ জুন পুলিশ তাদের আস্তানায় অভিযান চালালে হাকিম ডাকাত পালিয়ে যেতে সক্ষম হন। ওই সময় বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন তার দুই ভাই বশির আহমেদ ও আবদুল হামিদসহ চারজন। এর আগে তার আরেক ভাই, শ্যালক ও স্ত্রী পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মারা যান।

টেকনাফ পৌর এলাকার পুরাতন পল্লান পাড়ায় বনভূমি দখল করে কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে গড়েন বিশাল অট্টালিকা। এখন তা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দখলে। অভিযোগ রয়েছে, ডাকাত হাকিম ২০১৫ সালের ১২ জুন সেলিম ওরফে মুন্ডি সেলিমকে হত্যা করেন। নুরুল কবির নামে একজনকেও খুন করেন তার বাহিনীর সদস্যরা। বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমারের মংডুর বাসিন্দা নুরুল হকের ছেলে নুর হাফেজ ও নাইট্যংপাড়ার মৃত মোহাম্মদ কাশিমের ছেলে তোফায়েলকেও অপহরণের পর হত্যার অভিযোগ রয়েছে এ বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধে। রয়েছে অসংখ্য ধর্ষণের অভিযোগও।

সূত্র: ঢাকা পোস্ট

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

nineteen − three =

আরও পড়ুন