কুতুবদিয়ায় নির্বাচন স্থগিত হলেও থেমে নেই প্রচারণা

fec-image

নির্বাচন কমিশন প্রথম ধাপের ইউপি নির্বাচন দু‘দফা স্থগিত করলেও কুতুবদিয়ায় থেমে নেই প্রচারণা। উপজেলায় ৬ ইউপিতে ১১ এপ্রিল নির্বাচন হবার কথা ছিল। তা স্থগিত করেন নির্বাচন কমিশন। পরে আবার ২১ জুন নতুন তারিখ দেয়া হলেও সেটাও স্থগিত করা হয়। ৬ ইউনিয়নে ৩৩ চেয়ারম্যান প্রার্থী, ৭৬ সংরক্ষিত মহিলা সদস্য প্রার্থী ও ২২৩ জন সাধারণ সদস্য নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। বার বার নির্বাচন স্থগিত হওয়ায় প্রার্থীদের নির্বাচনি ব্যয় বেড়েছে অনেকের দ্বিগুণ। করোনা আর আর্থিক মন্দায় অনেক প্রার্থী ঘরে বসে থাকলেও তারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও দৈনিক পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিচ্ছেন নির্বাচনি প্রচারণার।

এটি নির্বাচনি আচরণ বিধি বহির্ভুত হলেও মানছেন না অনেকেই। এ প্রচারণায় এগিয়ে আছেন সরকারি দলের নৌকার প্রার্থীরা। আলী আকবর ডেইল, বড়ঘোপ ও দক্ষিণ ধুরুং ইউনিয়নের নৌকার প্রার্থীদের সমর্থনে স্থানীয় দৈনিক রূপালী সৈকতে নিয়মিত নির্বাচনি প্রচারণা বিজ্ঞাপন প্রকাশিত হচ্ছে। একই পত্রিকায় উত্তর ধুরুং ইউপির চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল হালিম এর আনারস প্রতীকের প্রচারণা বিজ্ঞাপন প্রচারিত হচ্ছে। তেমনি দৈনিক বাঁকখালীতে নির্বাচনি প্রচারণা প্রকাশিত হয়েছে উত্তর ধুরুং ইউনিয়নের নৌকার প্রার্থীর।

বড়ঘোপ ইউপি চেয়ারম্যান ও ঘোড়া প্রতীকের প্রার্থী আ.ন.ম শহীদ উদ্দিন ছোটন বলেন, নির্বাচন স্থগিত সময়ে পত্রিকা বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নির্বাচনি প্রচারণা করা নির্বাচনী বিধি লঙ্ঘন। এ ধরণের প্রচারণা প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। যারা এ ধরণের এক তরফা প্রচারণা করছেন তাদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিবেন –এ প্রত্যাশা করেন তিনি।

অপর দিকে সাধারণ সদস্যদের কেউ কেউ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নির্বাচনি পোস্টার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। লেমশীখালী ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য প্রার্থী (বর্তমান মেম্বার) মো: গিয়াস উদ্দিন গত ২০ আগস্ট তালা প্রতীকের পোস্টার প্রচারণা আপলোড দিয়েছেন নিজের ফেসবুক আইডিতেই।

ওই ওয়ার্ডের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী কামাল উদ্দিন বলেন, গিয়াস উদ্দিন বর্তমান মেম্বার হিসেবে ক্ষমতার অপব্যবহার করে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচারণা চালাচ্ছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

নির্বাচন স্থগিত হবার পর এভাবে নির্বাচনি প্রচারণা চালানোর বিধি নিষেধের ব্যাপারে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ জামশেদুল ইসলাম সিকদার বলেন, ইউপি নির্বাচনের পূণ: তারিখ ঘোষণা না দেয়ার আগ পর্যন্ত এ ধরণের প্রচারণা চালানো নিষেধ। এ প্রচারণার বিরুদ্ধে কোন সংক্ষুদ্ধ ব্যক্তি বা প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী লিখিত অভিযোগ করলে নির্বাচনি আচরণ বিধি লঙ্ঘনে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

17 + eight =

আরও পড়ুন