কেপিএম বন্ধ হলে কাগজের বাজার দখলে যাবে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের: শিল্প প্রতিমন্ত্রী

fec-image

কাপ্তাইয়ের চন্দ্রঘোনাস্থ ঐতিহ্যবাহী কর্ণফুলী পেপার মিলকে (কেপিএম) দেশের স্বার্থে বাঁচিয়ে রাখা উচিত। কারণ কেপিএম বন্ধ হলে কাগজের বাজার বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের দখলে যাবে।

বুধবার(১৫ জানুয়ারি) কাপ্তাইয়ের কর্ণফুলী পেপার মিল পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার এমপি একথা বলেন।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী চান এই দেশে ব্যাপক পরিমাণে শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠুক। ২০২০ সালের মধ্যে কেপিএমকে আধুনিকায়ন করা হবে। বর্তমানে যে মানের কাগজ উৎপাদন করা হচ্ছে তা দিয়ে প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতাদিও পরিশোধ করা অসম্ভব। কেপিএমে পূর্বের ন্যায় মানসম্মত কাগজ আবারও তৈরি হবে।

প্রতিষ্ঠানটিতে মান সম্মত কাগজ তৈরীর সম্ভাব্যতার কথা উল্লেখ করে শিল্প প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, ইউরুপের কয়েকটি দেশের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়ে কর্ণফুলী কাগজ কলকে শীঘ্রই আধুনিকায়ন করা হবে। এদিকে বর্তমানে যেসব পুরাতন যন্ত্রপাতি দ্বারা প্রতিষ্ঠানটি চলছে সেসব যন্ত্রপাতির মাধ্যমে মান-সম্মত কাগজ উৎপাদন অসম্ভব। কেপিএম একটি লোকসানী প্রতিষ্ঠান। কোটি কোটি টাকা এপ্রতিষ্ঠানে ক্ষতি হচ্ছে। আমরা লাভ চাইনা। আমরা চাই এই প্রতিষ্ঠান থেকে অন্তত শ্রমিক কর্মচারীরা তাদের বেতন ভাতা পেতে পারে। সরকার চায় কেপিএম স্বয়ং-সম্পূর্ণ প্রতিষ্ঠানে পরিণত হউক। এখানে কোন অনিয়ম থাকলে তাও বন্ধ হবে।

পরে কর্ণফুলী পেপার মিলস লি. এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. এম.এম.এ কাদেরের সভাপতিত্বে কেপিএম রেস্ট হাউজ সভাকক্ষে প্রতিষ্ঠানের শ্রমিক-কর্মচারী ও উপজেলার উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ ক্যামিকেল ইন্ডাস্ট্রিজ কর্পোরেশনের (বিসিআইসি) চেয়ারম্যান মো. হাউয়ুল কাইয়ুম, কাপ্তাই উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মফিজুল হক, কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশ্রাফ আহমেদ রাসেল, কাপ্তাই উপজেলা আ.লীগ সভাপতি অংসুইছাইন চৌধুরী, কেপিএম সিবিএ সভাপতি আব্দুল রাজ্জাক, কেপিএম সিবিএ সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বাচ্চু, কাপ্তাই থানা অফিসার ইনচার্জ মো. নাছির উদ্দিন প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five × 4 =

আরও পড়ুন