খাগড়াছড়িতে তিন বাগানের ১০হাজার গাছ কেটে ফেলেছে উপজাতীয় সন্ত্রাসীরা

স্টাফ রিপোর্টার, পার্বত্যনিউজ :

খাগড়াছড়িতে আবারো উপজাতীয় সন্ত্রাসীদের নগ্ন থাবায় নি:স্ব হয়ে গেছে জেলার মহালছড়ি উপজেলাধীন গুইমারা থানার সিন্দুকছড়ি ইউনিয়নের পঙ্খীমূড়া এলাকার তিন বাগান মালিক। সন্ত্রাসীরা তাদের দাবীকৃত চাঁদার টাকা না পেয়ে গভীর রাতে কেটে ফেলেছে তিনটি বাগানের প্রায় দশ সহস্রাধিক বিভিন্ন প্রজাতির বনজ ও ফলজ গাছ। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে।

বাগান মালিক সুত্রে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে উপজাতীয় সন্ত্রাসীরা একর প্রতি পনের শত টাকা হারে চাঁদা দাবী করে আসছে। ক্ষতিগ্রস্থ বাগান মালিকরা অভিযোগ করে বলেন, চাঁদা দাবী করা সন্ত্রাসীরা আঞ্চলিক রাজনৈতিক সংগঠন ইউপিডিএফ‘র নেতাকর্মী। তাদের দাবীকৃত চাঁদা অপারগতা প্রকাশ করায় ইউপিডিএফ‘র সন্ত্রাসীরাই এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। বাগানের জন্য এতে প্রায় দশ হাজারের অধিক সেগুন ও ফলজ গাছ কর্তন করা হয়েছে বলে দাবী করেছেন ক্ষতিগ্রস্ত বাগান মালিকেরা।

সবচেয়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্ত বাগান মালিক মো: নুরুল ইসলাম জানান, তার বাগানে কমপক্ষে ৮ হাজার সেগুনসহ বনজ ও বিভিন্ন প্রজাতির ফলজ গাছ কেটে ফেলেছে সন্ত্রাসীরা। সিন্দুকছড়ি ইউনিয়নের পঙ্খীমূড়ার ক্ষতিগ্রস্থ তিন বাগান মালিক হলেন মো: নুরুল ইসলাম, মো: তৈয়ব আলী সিকদার ও মো: জাহাঙ্গীর আলম। এ ব্যপারে ইউপিডিএফের মহালছড়ি উপজেলা সমন্বয়ক অলকেশ চাকমা’র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এ ঘটনায় ইউপিডিএফ কোনভাবেই জড়িত নয়। তবে আসন্ন দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ইউপিডিএফ‘র ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার জন্য তাদের প্রতিপক্ষ একটি গ্রুপ ষড়যন্ত্রমূলকভাবে এ ঘটনা ঘটাতে পারে। এ

দিকে ঘটনার সংবাদ পেয়ে শুক্রবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন, মহালছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লাবনী চাকমা, গুইমারা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: আবু ইউসুফ মিয়া ও সিন্দুকছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান সুইনুপ্রæ চৌধুরী। এসময় মহালছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লাবনী চাকমা সকলকে শান্ত থাকার অনুরোধ জানান। সেই সাথে যারাই ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকুক তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বাগান মালিকদের এমন আশ্বস্থ করে আগামী ৯ ডিসেম্বর সোমবার সকাল ১০টায় স্থানীয় গন্যমান্য ও জন প্রতিনিধিদের নিয়ে সিন্দুকছড়িতে বৈঠক আহবান করেন ।

গুইমারা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: আবু ইউসুফ মিয়া বলেন, ঘটনার সাথে যারাই জড়িত থাকুক তদন্ত সাপেক্ষে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় পাহাড়ী ও বাঙ্গালীদের মাঝে চাপা ক্ষোভের পাশাপাশি আতঙ্ক ও উত্তেজনা বিরাজ করছে। যেকোন সময় চাপা ক্ষোভের বিস্ফোরণ ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করছে স্থানীয়রা।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: চাঁদাবাজি, সন্ত্রাস
Facebook Comment

One Reply to “খাগড়াছড়িতে তিন বাগানের ১০হাজার গাছ কেটে ফেলেছে উপজাতীয় সন্ত্রাসীরা”

  1. জায়গা কার ?? হাংকির ফোলারা তোমরা অন্য জায়গায় গাছ লাগাবা কেটে দিলে বলবা কেটে দিয়েছে? ভালো হয়েছে ??

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

twelve + twelve =

আরও পড়ুন