চকরিয়ায় জায়গা দখলে নিতে বসতঘর ভাংচুর, হুমকিতে অসহায় বিধবা নারীর আর্তনাদ

fec-image

কক্সবাজারের চকরিয়ায় কোনাখালী বটতলী এলাকায় দিনদুপুরে দুবৃর্ত্ত দখলবাজ চক্রের নেতৃত্বে অসহায় এক বিধবা মহিলার বসতঘর ভাংচুর চালিয়ে জায়গা দখলের চেষ্টা ও হুমকি দিয়ে হয়রানি করার অভিযোগ উঠেছে।

কোনাখালী ইউনিয়নের বটতলী এলাকার মৃত দফাদার ইদ্রিস আহমদের বিধবা স্ত্রী নুরুন্নাহার স্থানীয় সাংবাদিকদের লিখিত বক্তব্য এ অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, আমি একজন সহজ সরল, শান্তি প্রিয় ও আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল একজন অসহায় বিধবা মহিলা। মানুষের বিভিন্ন ক্ষেতে খামারে দিনমজুর করে সংসার চালায়।

তিনি অভিযোগ করেছেন, উপজেলার উপকূলীয় আঞ্চলিক মহাসড়কের (এবিসি) পাশে কোনাখালী বটতলী এলাকায় আমার ভোগ দখলীয় জায়গায় বসতঘর দখলের উদ্দেশ্যে একদল সন্ত্রাসী দখলবাজ চক্র বসতবাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে।

সড়কের পাশে লাগোয়া আমার বসতবাড়িটি নির্মাণ করে দীর্ঘ ১৫বছর ধরে ওই জায়গা ভোগ দখল করে আসছি।

স্থানীয় মৃত ফজল হকের ছেলে আবুল কালাম, জনুমিয়া ছেলে ইস্তেহার উদ্দিন, মৃত হাজ্বী ইমাম শরীফের ছেলে শাহ আলম ও চৌয়ার ফাঁড়ি এলাকার এনামুল হকের নেতৃত্বে একদল দখলবাজ সন্ত্রাসী জায়গা দখলে নিতে অপচেষ্টা চালিয়ে আসছে।

তার ধারাবাহিকতায় গতকাল আমার বসতঘরের জায়গা দখলে নিতে ওই দখলবাজ সন্ত্রাসীরা হামলা ও ভাংচুর চালিয়ে বসতঘরের একপাশ ও ঘেরা বেড়া ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়।

এখানে তাদের কোন জায়গা জমি নেই। বর্তমানে আমি যে জায়গায় বসবাস করে আসছি তা সম্পূর্ণ সড়ক বিভাগের অধিগ্রহণকৃত জায়গা।

আমার আট বছরের এক শিশু মেয়েকে নিয়ে মানুষের বিভিন্ন ক্ষেতে খামারে ও বাড়িতে দিনমজুর কাজ করে সংসার চালায়। মাথা গোজার জায়গা হিসেবে এ বসতঘর ছাড়া আমার আর কোন জায়গা নেই।

ভুক্তভোগী অসহায় বিধবা নুরুন্নাহার আরো বলেন, তারা হামলা ও ভাংচুর চালিয়ে আমার বাড়ির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি করেছে। এমনকি জায়গা ছেড়ে দেয়ার জন্য তারা প্রতিনিয়ত আমাকে নানা হুমকি দিয়ে আসছে।

বর্তমানে আমি আমার শিশু মেয়েকে নিয়ে তাদের ভয়ে মানুষের বাড়িতে বাড়িতে আশ্রয় নিয়ে রাত যাপন করতেছি। এই নিয়ে বর্তমানে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছি।

এমতাবস্থায় আমি একজন বিধবা অসহায় মহিলা হিসেবে শিশু মেয়েকে নিয়ে আমার স্বামীর দখলে রাখা এ ভিটামাটি আগলে ধরে বেঁচে থাকতে চাই। এনিয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

কোনাখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দিদারুল হক সিকদার কাছে ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিধবা মহিলার বসতঘর ভাংচুর চালিয়ে জবর-দখলের চেষ্টার ঘটনাটি কেউ আমাকে অবহিত করেনি। এরপরও ঘটনার বিষয়ে আমি খবর নিয়ে দেখছি কি কারণে তা ভাংচুর করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

6 + two =

আরও পড়ুন