চকরিয়ায় ৭টি কেন্দ্রে এসএসসি পরীক্ষায় ৭২৭৮ শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণ, বহিষ্কার-১

fec-image

সারাদেশের ন্যায় কক্সবাজারের চকরিয়ায় বহু কাঙ্খিত এসএসসি ও সমমানের প্রথম দিনের পরীক্ষা সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ বছর উপজেলায় এসএসসি, দাখিল ও ভোকেশনালসহ অনুষ্টিতব্য পরীক্ষায় ৭টি কেন্দ্রে মোট ৭ হাজার ৪শত ৩৪ জন পরীক্ষার্থী ছিল। তৎমধ্যে পরীক্ষার প্রথমদিনে উপস্থিত ছিল ৭ হাজার ২শত ৭৮ জন শিক্ষার্থী। এতে পরীক্ষায় অনুপস্থিত ছিল ১৫৬ জন শিক্ষার্থী। পরীক্ষার সময় আমজাদিয়া মাদ্রাসা কেন্দ্রে দাখিলের ১ জন পরীক্ষার্থী অসদুপায় অবলম্বন করার অপরাধে কেন্দ্র থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) উপজেলার ৭টি কেন্দ্রে এসএসসি, দাখিল ও ভোকেশনাল পরীক্ষা সকাল ১১টা থেকে শুরু হয়ে দুপুর ১টা পর্যন্ত পরীক্ষা শেষ হয়।

জানাগেছে, চকরিয়া উপজেলায় যেসব পরীক্ষা কেন্দ্রে এসএসসি, দাখিল ও ভোকেশনাল পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে তা হলো, বদরখালী ডিগ্রী কলেজ কেন্দ্র, চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠ কেন্দ্র, চকরিয়া সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র, চকরিয়া সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র ও কিশালয় আদর্শ শিক্ষা নিকেতন ভোকেশনাল পরীক্ষা কেন্দ্র। এছাড়াও সাহারবিল আনোয়ারুল উলুম ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্র ও আমজাদিয়া রফিকুল উলুম মাদ্রাসা কেন্দ্রে দাখিল পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

এদিকে, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে পরীক্ষা আয়োজনের জন্য চকরিয়া উপজেলা প্রশাসনের পক্ষথেকে সব ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করেন। পরীক্ষার দিন শান্তি-শৃঙ্খখলা রক্ষায় কেন্দ্রের ২০০ গজের মধ্যে ১৪৪ ধারা জারি করা হয় এবং মাইকিং করে তা সকলকে অবগত করা হয়। পরীক্ষার প্রথমদিনে ইউএনও জেপি দেওয়ান কয়েকটি কেন্দ্র পরিদর্শন করেছেন।

চকরিয়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. নজরুল ইসলাম বলেন, ‘চকরিয়ায় এসএসসি, দাখিল ও এসএসসি (ভোকেশনাল) পরীক্ষায় মোট ৭ হাজার ৪শ ৩৪ জনের মধ্যে ১৫৬ জন পরীক্ষার্থী অনুপস্থিত ছিলেন। পরীক্ষা চলাকালে মাদ্রাসার এক শিক্ষার্থীকে অসদুপায় অবলম্বন করায় বহিষ্কার করা হয়েছে।’

চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জেপি দেওয়ান বলেন, সুষ্ঠু, সুন্দর ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কোথাও কোন ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। তবে, একটি পরীক্ষা কেন্দ্রে মাদ্রাসার এক শিক্ষার্থীকে নকল করার অপরাধে বহিষ্কার করা হয়। পরীক্ষা চালাকালীন সময় দায়িত্বরত শিক্ষক ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের পরীক্ষার করণীয় নির্দেশনা মেনে চলার আহ্বান জানান।

উল্লেখ্য, গত ১৯ জুন এ পরীক্ষা শুরুর হওয়ার কথা ছিল কিন্তু জুনের মাঝামাঝি সময়ে সিলেট অঞ্চল এবং উত্তরাঞ্চলের কয়েকটি জেলায় ভয়াবহ বন্যার কারণে গত ১৭ জুন পরীক্ষা স্থগিতের ঘোষণা দেওয়া হয়। পরবর্তীতে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ায় নতুন করে পরীক্ষা গ্রহণের তারিখ ঘোষণা দেওয়া হয়। এছাড়াও পরীক্ষার বিষয়, নম্বর ও সময় কমিয়ে এনে পুনর্বিন্যাসকৃত সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে এবারের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তাছাড়া পরীক্ষার সময় ৩ ঘণ্টা থেকে কমিয়ে ২ ঘণ্টা করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one × one =

আরও পড়ুন