চালের চালান লুট করেও দুস্থদের কথা জেনে ফেরত দিলো আরাকান আর্মি

fec-image

মিয়ানমারের পালেটওয়া টাউনশিপের ১,৭০০ গৃহহীন চিন গ্রামবাসীদের জন্য যে ১০০ বস্তা চালের চালান যাচ্ছিল, সেগুলোর একটা অংশ লুট করে নিয়েছে আরাকান আর্মি (এএ)। তবে এ সংক্রান্ত সংবাদ প্রকাশের পর চালানের অধিকাংশ চালই তারা আবার ফিরিয়ে দিয়েছে বলে চিন রাজ্য সরকার জানিয়েছে।

আরাকান আর্মির যোদ্ধারা একটি ট্রাকের গতিরোধ করে যেটাতে করে সামি থেকে পালেটওয়াতে চাল নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। ১,৭৭১ জন গৃহহীন মানুষের মধ্যে ওই চাল বিতরণের কথা ছিল। এই পরিবহনের আয়োজন করেছিল পালেটওয়ার সম্প্রদায় ভিত্তিক কমিটি। টাউনশিপে অতিরিক্ত খাবার আনার জন্য কাজ করছে তারা।

প্রায় দুই মাস আগে চিন রাজ্য সরকার এবং স্থানীয় নাগরিক সমাজের সংগঠনগুলো পালেটওয়ার গৃহহীন মানুষদের জন্য ওই চালের চালান নিয়ে আসে, কিন্তু সংঘর্ষের কারণে সেগুলোর ডেলিভারিতে দেরি হয়।

আরাকান আর্মিমিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর মধ্যে লড়াইয়ের কারণে পালেটওয়া টাউনশিপের হাজার হাজার মানুষ ঘরবাড়িছাড়া হয়েছে। এদের মধ্যে পালেটওয়া শহরে আশ্রয় নিয়েছে সর্বমোট ১,৭৭১ জন। আর চিন রাজ্যেরই আরেক শহর সামিতে আশ্রয় নিয়েছে ২,৯৪৫ জন।

ট্রাকে যে তিন ব্যক্তি চাল নিয়ে আসছিল, তাদের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার পর চিন রাজ্যের মিউনিসিপ্যাল অ্যাফেয়ার্স, ইলেকট্রিসিটি ও ইন্ডাস্ট্রি মন্ত্রী উ সো তেত রোববার দ্য ইরাবতীকে জানান যে, আরাকান আর্মি চালের চালান ছিনতাই করেছে।

কমিটি চেয়ারম্যান উ সিন তুন লা’র মতে, আরাকান আর্মি একই দিনে দুপুর দুইটার দিকে তাকে ফোন করেছিল এবং তার কাছে জানতে চাই যে, এই চাল সত্যিই সাধারণ মানুষের জন্য নেয়া হচ্ছিল কি না। তিনি বলেন যে, আরাকান আর্মি সন্ধ্যায় আবারও তাকে ফোন করে এবং আরাকান আর্মির সদস্যদের কাছে ২০ বস্তা চাল বিক্রির জন্য অনুরোধ করে, কারণ যুদ্ধের কারণে দাম বেড়ে যাওয়ায় চাল সংগ্রহ করতে তারাও হিমশিম খাচ্ছে। তিনি বলেন যে, তাদের অনুরোধে রাজি হন তিনি।

তবে আরাকান আর্মির সদস্যরা তাৎক্ষণিকভাবে ২০ বস্তা চালের দাম পরিশোধ করেনি এবং বলেছেন যে, কমিটির সাথে যোগাযোগ করে পরে তারা এর অর্থ পরিশোধ করবে।

আরাকান আর্মি এরপর বাকি ৮০ বস্তা চালসহ ওই তিন ব্যক্তিকে ছেড়ে দেয়। সোমবার সকালে তারা পালেটওয়াতে পৌঁছায়।

চিন রাজ্যের মন্ত্রী উ সো তেত দ্য ইরাবতীকে সোমবার জানান যে, আরাকান আর্মি প্রথমে ট্রাকটিকে বনের মধ্যে নিয়ে যায়। পরে মিডিয়ায় খবর প্রকাশিত হলে সশস্ত্র গ্রুপটি জানায় যে, মূলত ড্রাইভারদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্যই তারা এটা করেছিল।

সূত্র: south-asian-monitor.com

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আরাকান আর্মি
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

two × 3 =

আরও পড়ুন