“অসংখ্য রোহিঙ্গা প্রতি রাতে কাজের সরঞ্জামাদী নিয়ে গাড়ি থেকে নেমে তাজনিমারখোলা রোড থেকে টমটম যোগে আবার ক্যাম্পে চলে যায়।"”

টেকনাফ বন্দরে শ্রমিক হিসেবে কাজ করছে রোহিঙ্গারা

fec-image

উখিয়ার পালংখালী ইউনিয়নে অবস্থিত রোহিঙ্গা ক্যাম্প ১৩ ও ১৯ এর অসংখ্য রোহিঙ্গা  টেকনাফ বন্দরে শ্রমিক হিসেবে কাজ করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

মঙ্গলবার (৫ নভেম্বর) মধ্যরাতে শতাধিক রোহিঙ্গাদের থাইংখালী বাজারে একটি ড্রামপার গাড়ি থেকে নামতে দেখা যায়। ওই গাড়ির ড্রাইভারের সাথে কথা বললে জানায় তারা টেকনাফ বন্দর থেকে কাজ করে ফিরছে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে তাদের প্রতি রাতেই একই সময়ে দলেদলে গাড়ি থেকে নামতে দেখা যায়। থাইংখালী বাজারের নাইটগার্ডরা বলেন,”আমরা প্রতিদিনই লক্ষ্য করি অসংখ্য রোহিঙ্গা প্রতি রাতে কাজের সরঞ্জামাদী নিয়ে গাড়ি থেকে নেমে তাজনিমারখোলা রোড থেকে টমটম যোগে আবার ক্যাম্পে চলে যায়।”

এ নিয়ে স্থানীয় জনতা প্রশ্ন তুলেছে। তাদের অভিযোগ, তারা দীর্ঘদিন ধরে লক্ষ্য করে আসছে থাইংখালী বাজার থেকে খুব ভোরে কিছু রোহিঙ্গা মাহিন্দ্র, বাস ও নানা যানবাহন নিয়ে টেকনাফের দিকে চলে যায়। আবার দিনশেষে তাদের দলেদলে ফিরে আসতে দেখা যায়। এ যাবৎ অনেক দিন ধরেই এমনটা লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

জানা যায়, সম্প্রতি দু-তিন দিন ধরে রোহিঙ্গা লোকজন আগের তুলনায় অনেক বেশি সংখ্যক দেখা যাচ্ছে যারা টেকনাফের দিকে কাজের তাগিদে আসে-যায়। জানতে চাইলে তারা টেকনাফ বন্দরে শ্রমিক হিসেবে নিয়োজিত বলে জানায়।

স্থানীয় অনেকেই বলেন, এভাবে রোহিঙ্গারা দিনে-রাতে যখন ইচ্ছে তখন কাজ করবে ও ক্যাম্পের প্রচলিত আইনকে তোয়াক্কা না করে নিরাপত্তার দেয়াল ভেঙে চলাচল করে যা অভাবনীয় ব্যাপার।

এব্যাপারে পালংখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এম. গফুর উদ্দিন চৌধুরী বলেন,”রোহিঙ্গাদের এভাবে যত্রতত্র নিয়ে সময়ে-অসময়ে স্বাধীনভাবে ঘুরাঘুরি করা কামনা করি না। তারা দিনদিন বেপরোয়া হয়ে উঠছে। এভাবে চলতে থাকলে আমাদের উপর বিরুপ প্রভাব পড়বে। তাছাড়া রোহিঙ্গারা অসময়ে ক্যাম্পের বাইরে যেন না আসতে পারে সেজন্য কঠোরভাবে নিরাপত্তা জোরদার করতে হবে। বিষয়টির উপর নজরদারি করার জন্য সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ জানাই।”

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

sixteen − 7 =

আরও পড়ুন