পর্যটকে কানায় কানায় পূর্ণ বান্দরবান: মন্দা কিছুটা হলেও কাটবে

fec-image

পর্যটকের ঢল নেমেছে পাহাড়ি কন্যা বান্দরবানে। করোনা মহামারী কিছুটা কাটিয়ে টানা ৩ দিনের ছুটি পেয়েই পর্যটকরা এসে ভীড় করেছে বান্দরবানে। দেশি-বিদেশী অসংখ্য পর্যটকদের পদচারণায় এখন মুখরিত পুরো শহর। শুক্রবার থেকে বান্দরবানের হোটেল-মোটেল, কটেজগুলো পুরোপুরি বুকিং রয়েছে। আত্মীয় স্বজন ও পরিচিতজনদের বাসা বাড়িতে উঠেছেন অনেকে।

এছাড়া পিকনিকে আসা হাজার হাজার পর্যটক রুম না পেয়ে ভাড়া করা পরিবহনেই রাত কাটাচ্ছেন। পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা জানান, করোনা মহামারীর বন্ধের পর এই প্রথম পর্যটকদের উপচেপড়া ভিড় জমেছে বান্দরবানে। বেচা-কেনা বেশ ভালোই। এবারের পুরো মৌসুমের ব্যবসার মন্দাভাব পর্যটকদের উপস্থিতিতে কিছুটা হলেও কাটবে বলে মনে করছেন তারা। হোটেল-মোটেল ব্যবসায়ীরা জানান, তিন দিনের ছুটিতে বান্দরবানে ছোট-বড় হোটেল-মোটেল ও কটেজগুলোর সব রুম পুরোপুরি বুকিং। পর্যটকদের উপস্থিতিতে কানায় কানায় পরিপূর্ণ বান্দরবান শহর।

শুক্র ও শনিবার সরকারি ছুটির পাশাপাশি ২১ ফেব্রুয়ারি (রোববার) আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে টানা ৩ দিনের ছুটি থাকায় পূর্বে থেকে রুম বুকিং করেছেন পর্যটকরা। যারা পূর্বে রুম বুকিং দেননি তারা অনেকে রুম পেতে হিমশিম খাচ্ছে। পালকি গেস্ট হাউসের পরিচালক আলাউদ্দিন শাহরিয়ার বলেন, টানা ৩ দিনের ছুটি থাকায় বিপুল পর্যটকের সমাগম ঘটেছে শহরে। হোটেল মোটেলের সব রুম অগ্রিম বুকিং থাকায় অনেক পর্যটক গাড়িতে রাত্রিযাপন করেছেন।

শুক্রবার থেকে পর্যটন স্পট মেঘলা, নীলাচল, নীলগিরি, শৈলপ্রপাতসহ বিভিন্ন পর্যটন স্পটে পর্যটকদের পদচারনায় মুখর। শিশু বৃদ্ধ যুবক যুবতিরা তাদের প্রিয়জনদের নিয়ে চাঁদের গাড়িতে করে ঘুরে বেড়াচ্ছেন দর্শনীয় সব স্থান। কেউ কেউ ছুটে যাচ্ছে থানচির নাফাকুম রেমাক্রী দেখতে।

পরিবহন শ্রমিক নেতা বাহাদুর জানান, পর্যটকদের জন্য আমাদের প্রায় ৪০০ চাঁদের গাড়ি রয়েছে। এতো বেশি পরিমান পর্যটক এসেছে এ গাড়ি দিয়েও আমরা সার্ভিস দিতে পারছি না। হোটেল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম জানান, করোনার কারণে দীর্ঘদিন পর্যটক শূন্য ছিল। বান্দরবানে অনেকদিন পর টানা ছুটিতে প্রচুর পর্যটকের আগমন ঘটেছে। ব্যবসায়ীরা অনেক খুশি। এদিকে পর্যটকদের যাতে কোন অসুবিধা না হয় সে লক্ষ্যে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

বান্দরবান জেলার পুলিশ সুপার জেরিন আক্তার জানান, শীত মৌসুমে পাবর্ত্য জেলা বান্দরবানে প্রচুর পর্যটক বেড়াতে আসে টানা ছুটি থাকলে পর্যটকের আগমন আরো বাড়ে তাদের কথা মাথায় রেখে টুরিস্ট পুলিশের পাশাপাশি পর্যটকদের নিরাপত্তায় আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা তৎপর রয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন পর্যটন স্পটে সাদা পোশাকধারী পুলিশও দায়িত্ব পালন করছে। পর্যটকরা নির্বিঘ্নে সব পর্যটন স্পট ঘুরে বেড়াতে পারবে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

nineteen − 15 =

আরও পড়ুন