পেকুয়ায় স্ত্রীর মামলায় জেল পুলিশকে গ্রেপ্তার করল থানা পুলিশ

fec-image

কক্সবাজারের পেকুয়ায় জেল পুলিশের এক সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পেকুয়া থানার পুলিশ উপজেলার শিলখালী ইউনিয়নের স্কুল স্টেশন থেকে রবিবার (১০ জানুয়ারি ) সন্ধ্যার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত জেল পুলিশ সদস্যের নাম শাহাদাত ইসলাম (২৭)।

তিনি উপজেলার সদর ইউনিয়নের উত্তর মেহেরনামা আবদুল হামিদ সিকদারপাড়ার মুহাম্মদ হাসানের পুত্র।

পেকুয়া থানার এ,এস,আই আবদুল কাদেরসহ সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্স শাহাদাতকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হন। গ্রেপ্তারকৃত শাহাদাত ইসলাম জেল পুলিশের কর্মরত জোয়ান। বান্দরবান জেলার কারারক্ষী হিসেবে কর্মরত।

প্রাপ্ত সুত্র জানা যায়, শাহাদাত ইসলামের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল কক্সবাজারের একটি মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা রয়েছে। যার সি,পি, মামলা নং ২৭০/১৯। ওই মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সুত্র জানায়, ২০১৭ সালে শাহাদাত ইসলাম বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। উপজেলার টইটং ইউনিয়নের আবদুল্লাপাড়ার জামাল হোসেনের মেয়ে আকলিমা বেগমকে ৭ লক্ষ টাকা দেনমোহরে বিবাহ করেন। তার স্ত্রী আকলিমা বেগম স্বামীর বিরুদ্ধে যৌতুক ও নির্যাতনের অভিযোগে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল কক্সবাজারের-৩ ও চীফ মেট্টোপলিটন আদালত ম্যাজিষ্ট্রেটের আদালত,চট্টগ্রামে যৌতুক নিরোধ আইনে পৃথক মামলা রুজু করেন।

মামলা সুত্র জানায়, আকলিমা বেগমের স্বামী কারারক্ষী শাহাদাত ইসলাম যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে প্রায় সময় মারধরসহ নির্যাতন করতেন। এ নিয়ে সামাজিকভাবেও একাধিকবার বৈঠক হয়েছিল। মেয়েটিকে স্বামী প্রায় সময় অত্যাচার ও নির্যাতন চালাতেন। এমনকি স্বামী হিসেবে স্ত্রীকে মর্যাদা দেয়ার এ অধিকার থেকেও আকলিমা বঞ্চিত ছিলেন। নির্যাতন ও যৌতুক দাবীর মাত্রা তীব্রতর হওয়ায় স্বামী তাকে একাধিকবার সংসার থেকে তাড়িয়ে দেয়। তার কর্মস্থল চট্টগ্রাম জেলা কারাগারে হওয়ায় চীফ জুড়িসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত চট্টগ্রামে মামলা করেন। এরপর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল কক্সবাজারেও মামলা করেন।

পেকুয়া থানার ওসি সাইফুর রহমান মজুমদার জানান, গ্রেপ্তারকৃত শাহাদাতের বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট রয়েছে। ওয়ারেন্টভূক্ত আসামিকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: গ্রেপ্তার, পেকুয়া
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

9 + 20 =

আরও পড়ুন