মঙ্গলের সঙ্গে তুরস্কের হ্রদের মাটিতে ‘অবিশ্বাস্য’ মিল

fec-image

মঙ্গল গ্রহে প্রাণের অস্তিত্ব ছিল কিনা তা জানতে সেখানে অনুসন্ধান চালাচ্ছে নাসার আলোচিত মহাকাশযান পারসিভারেন্স। এরই মধ্যে গ্রহটি থেকে ছবি ও ভিডিও পাঠানো শুরু করেছে সে। আশ্চর্যজনকভাবে মঙ্গল গ্রহের মাটি ও পাথরের সঙ্গে তুরস্কের একটি হ্রদের মাটি-পাথরের অবিশ্বাস্য মিল খুঁজে পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

জানা গেছে, তুরস্কের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের ওই হ্রদের নাম সালদা। পানির রংয়ে মিল থাকায় এটিকে ‘তুরস্কের মালদ্বীপ’ নামেও ডাকা হয়।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, পারসিভারেন্স মঙ্গলের যে জায়গায় অবতরণ করেছে, সেই জাজেরো বেসিনের মাটি ও খনিজ এবং তুরস্কের সালদা হ্রদের মাটি ও খনিজ অনেকটা একই ধরনের।

সালদা হ্রদের মাটি ও খনিজের সঙ্গে মঙ্গলের মিল থাকা গ্রহটিতে প্রাণের অস্তিত্বের একটা ইঙ্গিত হতে পারে বলে ধারণা করছেন বিজ্ঞানীরা। তাদের মতে, সালদার মাটি ও খনিজের নমুনা মঙ্গল গ্রহ নিয়ে গবেষণায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।

২০১৯ সালে সালদা হ্রদ নিয়ে গবেষণায় নেমেছিল যুক্তরাষ্ট্র ও তুরস্কের বিজ্ঞানীদের একটি দল। তাদের দেওয়া তথ্যই হ্রদটির সঙ্গে মঙ্গলের মিল থাকার কথা জানাচ্ছে।

পৃথিবীর মাটি ও খনিজ পদার্থের সঙ্গে মিল থাকায় মঙ্গলেও প্রাণের অস্তিত্ব সম্পর্কে নতুন করে আশাবাদী হয়ে উঠেছেন বিজ্ঞানীরা। তবে তারা সতর্ক করে বলেছেন, বিষয়টি নিয়ে নিশ্চিত হতে এখনো অনেক গবেষণা দরকার।

এর আগে, দীর্ঘভ্রমণ শেষে গত ১৮ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলের বুকে অবতরণ করে নাসার মহাকাশযান পারসিভারেন্স। ছয় চাকার স্বয়ংক্রিয় রোবট যানটি পৃথিবী থেকে যাত্রা শুরু করেছিল প্রায় সাত মাস আগে।

আগামী দুই বছর মঙ্গলে অবস্থান করে সেখানে গুরুত্বপূর্ণ নমুনা সংগ্রহসহ অতীতে প্রাণের অস্তিত্ব ছিল কিনা তা জানার চেষ্টা করবে নাসার এই মহাকাশযান।

সূত্র: ডয়েচে ভেলে, বিবিসি (জাগোনিউজ)

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

nine − 4 =

আরও পড়ুন