রাঙামাটি জেলা যুবলীগের সম্পাদকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা

fec-image

রাঙামাটি জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নূর মোহাম্মদ কাজলের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে রাঙামাটি কোতয়ালী থানায় মামলা দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী এক নারী। শুক্রবার (২২অক্টোবর) সন্ধ্যায় মামলার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন, রাঙামাটি কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কবির হোসেন।

যারা মামলা নং- ১২, তারিখ ২১.১০.২১খ্রি: (নারী ও শিশু নির্যাতন আইন ২০০০ সংশোধিত ২০০৩ এর ৯ (১) এর ৩০ ধারা)। মামলার অপর দুই অভিযুক্ত হলেন- মো. বদরুল ইসলাম (২৫) এবং মো. রবিউল ইসলাম (৫০)।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, মামলার এক নম্বর আসামি মো. নুর মোহাম্মদ কাজল ভুক্তভোগী নারীকে বিয়ে করবেন বলে প্রলোভন দেখিয়ে অন্তরঙ্গ সম্পর্ক গড়ে তোলেন। পরবর্তী ২০১৯ সালের ৭ আগস্ট ওই নারীকে বিয়ের উদ্দেশ্যে কাজল তার সহযোগী বদরুল ও রবিউল এর সহযোগিতায় ওই নারীকে তার ব্যবসায়ীক অফিসে নিয়ে আসে। এরপর কাজী ডেকে বিয়ের কার্য সম্পাদন করা হলেও ভুক্তভোগী নারীকে বিয়ের কাবিননামায় স্বাক্ষর দিতে বাধা প্রদান করে কাজলের দুই সহযোগী বদরুল এবং রবিউল। পরবর্তী সময়েও ওই নারী বারবার কাবিননামায় স্বাক্ষরের জন্য চাপ দিলেও বিভিন্ন অজুহাতে এড়িয়ে যান কাজল।

এজাহারে উল্লেখ করা হয়- ভূয়া বিয়ের মাধ্যমে ওই নারীকে দিনের পর দিন ধর্ষণ করা হয়। পরবর্তীতে ওই নারী গর্ভবর্তী হয়ে পড়লে বিষয়টি তার কথিত স্বামী যুবলীগ নেতা কাজলকে জানালে তিনি সন্তানের পরিচয় বহন করতে অস্বীকৃতি জানান। শুধু তাই নয়; যুবলীগের এ নেতা তার কথিত স্ত্রী থেকে পনের লাখ টাকা ধার নিয়ে পরবর্তীতে চেকের মাধ্যমে পরিশোধ করবেন বলেও পরিশোধ করেনি এমন অভিযোগ এজাহারে উল্লেখ করেন ওই নারী।

এজাহারে আরও উল্লেখ হয়- ভুক্তভোগী নারী বিবাহিত ছিলেন। তার দুই কন্যা সন্তান রয়েছে। কাজলের জন্য তিনি তার স্বামীকে তালাক দিয়েছেন। কিন্তু কাজল তাকে বিয়ে না করে বর্তমানে তিনি এক কিশোরীর প্রেমে মজেছেন বলে অভিযোগ করেন ওই নারী।

তবে এসব বিষয়ে জানার জন্য মামলার মূল আসামি নুর মোহাম্মদ কাজলের ব্যবহৃত ব্যক্তিগত মুঠোফোনে (রবি নাম্বার) কল করা হলেও সংযোগ পাওয়া যায়নি।

রাঙামাটি কোতয়ালী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নয়ন কুমার চক্রবর্তী বলেন, মামলার তদন্ত কাজ চলছে। ঘটনার সত্যতা প্রমাণিত হলে আসামীদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী অভিযান পরিচালনা করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

nineteen − four =

আরও পড়ুন