রাজধানীতে পার্বত্য জেলার ঐতিহ্যসমৃদ্ধ বিপণী বিতান উদ্বোধন করলেন পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী

fec-image

রাজধানীর বেইলি রোডস্থ শেখ হাসিনা পার্বত্য চট্টগ্রাম কমপ্লেক্সে এক মনোরম পরিবেশে উদ্বোধন হলো খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের বিক্রয় ও প্রদশর্নী কেন্দ্র, পরিচালনায় সিএইচটি গ্রুপ ও RENG Hill of Essence ।

সোমবার (১৩ মে) সন্ধ্যায় পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা পার্বত্য চট্টগ্রামের ঐতিহ্য হস্ত ও কারু শিল্পের দৃষ্টি নন্দন পণ্যসামগ্রীর পসরাসমৃদ্ধ বিক্রয় ও প্রদর্শনী কেন্দ্র দুটির শুভ উদ্বোধন করেন।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন টাস্কফোর্স চেয়ারম্যান (সিনিয়র সচিব) সুদত্ত চাকমা, ট্যুরিস্ট বাংলাদেশ পুলিশের এডিশনাল ডিআইজি বিধান ত্রিপুরা, দৈনিক প্রতিদিনের চিত্র পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক অয়ন আহমেদ, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা রাজীব ত্রিপুরা, খাগড়াছড়ি সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি প্রদীপ চৌধুরী, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী’র সহকারী একান্ত সচিব খগেন্দ্র ত্রিপুরা, এবং ইউএনডিপি’র প্রোগ্রাম অফিসার এ, এ, মং উপস্থিত ছিলেন।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা বলেন, বেইলি রোডের পার্বত্য চট্টগ্রাম কমপ্লেক্সের বিপণী বিতানগুলোতে সব সম্প্রদায়ের মানুষের ব্যবহারযোগ্য পোশাক, পাহাড়ি অঞ্চলে উৎপাদিত ফরমালিন ও বিষমুক্ত মৌসুমি ফল, খাদ্যপণ্য ও হস্ত শিল্পসামগ্রী পাওয়া যাবে। পার্বত্য চট্টগ্রাম কমপ্লেক্সের বিক্রয় কেন্দ্রের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য অত্যন্ত মহৎ। এ বিক্রয় কেন্দ্র রাজধানীতে বসবাসরত তিন পার্বত্য জেলার অধিবাসী এবং দেশি-বিদেশি সকলের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী জন নেত্রী শেখ হাসিনার অনেকগুলো ইচ্ছার মধ্যে এই ইচ্ছা অনন্য আরেকটি ইচ্ছা, সেটি হচ্ছে পার্বত্য চট্টগ্রামসহ বাংলাদেশের সকল জাতিগোষ্ঠীর কৃষ্টি, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের বন্ধন যেন একে অপরে ভাগাভাগি করে নেয়। তাই প্রধানমন্ত্রীর ঐকান্তিক ইচ্ছায় রাজধানীর বুকে পার্বত্য-বাসীদের জন্য পার্বত্য চট্টগ্রাম কমপ্লেক্স নির্মাণ করা হয়েছে। পার্বত্য অঞ্চল ব্যতীত দেশের অন্যান্য অঞ্চল ও বাংলাদেশের বাইরে যারা আছেন, তারাও পার্বত্য চট্টগ্রামের কৃষ্টি ও সংস্কৃতি উপভোগের সম-অংশীদার হবেন।

রাজধানীর বুকে, বেইলি রোডের প্রাণকেন্দ্রে পাহাড়িদের উৎপাদিত হস্ত শিল্পসামগ্রী এবং ফরমালিনমুক্ত অর্গানিক ফুড ও মসলার সমাহার থাকবে এ বিক্রয় কেন্দ্রে। খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার উৎপাদিত হলুদ, মরিচ, পেঁপে, মুড়ি, খই, ড্রাই আম, নারিকেল তেল, ঘি, বাঁশের তৈরি তৈজসপত্র, পার্বত্য জেলার ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরিচ্ছদ যেমন- ত্রিপুরাদের ঐতিহ্যবাহী পোশাক রিনাই ও রিসা, মাটির টব, বার্মিজ লুঙ্গি, মার্মাদের ঐতিহ্যবাহী থামি কাপড়, মাছ ধরার লুই, বাঁশের বাঁশি, বেতের ঝুড়ি (কাবাং), লাল বিন্নি চাল, সাদা বিন্নি চাল, হরেক রকমের সবজি ও আখের গুড়সহ নানা রকমের খাদ্যপণ্য পাওয়া যাবে এখানে। এ বিক্রয় কেন্দ্রগুলো থেকে মারমা, চাকমা, ত্রিপুরা, ম্রো, তঞ্চগ্যা, বাঙালি, অহমিয়া, খেয়াং, খুমি, গুর্খা, চাক, পাংখোয়া, বম, লুসাই, রাখাইন এবং সাঁওতালসহ সকল সম্প্রদায় তাদের পছন্দ মতো জিনিসপত্র অনায়াসেই কেনাকাটা করতে পারবেন।

আশার কথা হলো, পার্বত্য চট্টগ্রামের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য দেশ ও বিশ্বময় ছড়িয়ে দিতে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান তিন পার্বত্য জেলা পরিষদের বিশেষ উদ্যোগে এই বিক্রয় ও প্রদর্শনী কেন্দ্র পরিচালিত হবে। এ বিক্রয় ও প্রদর্শনী কেন্দ্রটি সারা বছর জুড়ে ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের জন্য সকাল ৮ টা থেকে রাত ৮ টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। সব শেষে প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা রাজধানীর বেইলি রোডস্থ পার্বত্য চট্টগ্রাম কমপ্লেক্সের বিক্রয় কেন্দ্রে সর্বস্তরের সবাইকে ঘুরে যাওয়ার আহ্বান জানান।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন