টেকনাফে প্রথম ঢাকা ফেরত আম ব্যবসায়ীর করোনা পজিটিভ

fec-image

ঢাকা ফেরত আম ব্যবসায়ীর কভিড ১৯ পজিটিভ পাওয়া গেছে। টেকনাফে প্রথম কভিড-১৯ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্ত বক্তি উপজেলার বাহারছড়ার মারিশবনিয়া গ্রামের বাসিন্দা। তাকে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রের আইসোলেশন ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে। তিনি ঢাকা কাওরান বাজারের আম বিক্রি করে টেকনাফে ফেরত আসেন।

রবিবার(১৯ এপ্রিল) সন্ধ্যায় রিপোর্ট পাওয়ার পর এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. টিটু চন্দ্র শীল। এর আগে তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য কক্সবাজার মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছিল।

স্বাস্থ্য বিভাগ ও উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, আক্রান্ত ব্যক্তি ৪ এপ্রিল আম ভর্তি ট্রাক নিয়ে টেকনাফ থেকে ঢাকা কাওরান বাজারে পৌঁছান। সেখানে আম বিক্রি করে দুইদিন পরে একটি মিনি ট্রাকে করে আরও ৪জন ব্যক্তিসহ টেকনাফে ফেরত আসেন।

ঢাকা থেকে আসার পর থেকেই তিনি অসুস্থ হয়ে যান। আসার পর তিনি অসুস্থতা বোধ করলে চিকিৎসকের পরামর্শ না নিয়ে নিজেই টেকনাফ সদরের একটি ঔষধের দোকান থেকে ঔষধ নিয়ে চিকিৎসা শুরু করেন। এই খবর জানা জানি হলেই আমাদের হট লাইন নাম্বারে ফোন করে এলাকার জনসাধারণ অভিহিত করেন।

গত শনিবার তাঁর নমুনা সংগ্রহ করে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হলে রবিবার রির্পোট পজিটিভ পাওয়া যায়।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. টিটু চন্দ্র শীল এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত টেকনাফে ৬৪ জনের নমুনা সংগ্রহ করে করোনা পরীক্ষা জন্য পাঠানো হয়েছে। ওই আম বিক্রেতার করোনা পজিটিভ রিপোর্ট এলেও বাকিদের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। ওই ব্যক্তিকে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি রাখা হয়েছে।

তবে এখনও টেকনাফে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জ থেকে গাড়ি আসা বন্ধ না হওয়ায় দুঃখ প্রকাশ করে তিনি বলেন, এতে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে যেতে পারে।

এ প্রসঙ্গে টেকনাফ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আবুল মনসুর বলেন, আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসা ৪০টি বাড়ি, ২৫টি দোকান লকডাউন করা হয়েছে এবং গ্রামের দেড় কিলোমিটার রাস্তায় ১৪৪ ধারা জারি করে সবাইকে হোম কোয়ারান্টাইন নিশ্চিত করা হয়। আজ চিরুনি অভিযান চালিয়ে বাকীদের নমুনা সংগ্রহ করা হবে।

উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশক্রমে আমাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে আইসোলেশন ওয়ার্ডে আক্রান্ত ব্যক্তিকে ভর্তি করা হয়েছে ।

তিনি আরো বলেন,পরিস্থিতি বিবেচনায় রোগীর অবস্থা দেখে চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: করোনাভাইরাস, টেকনাফ, মেডিকেল কলেজ
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

20 − eleven =

আরও পড়ুন