সোনামিয়া টিলার ভূমি রক্ষা কমিটির সভাপতির বাড়িতে সন্ত্রাসীদের ব্রাশফায়ার; নিহত ১

fec-image

সোনামিলা ভূমি রক্ষা কমিটির সভাপতি আবদুল মালেকের বসত ঘরে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা হামলা চালায়। এতে আবদুল মালেকের স্ত্রী মোর্শেদা বেগম(৪৫) গুলিবিদ্ধ হয়। তার ছেলে আবদুল আহাদ(১১) মাথায় গুলিবিদ্ধ হয়। গুলিটি তার কানের পাশ ঘেঁষে বেরিয়ে যাওয়ায় তিনি মারাত্মক আহত হননি।

পরে দিঘীনালা হাসপাতালে নিলে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণে সেখানে তার মৃত্যু ঘটে। নিহতের স্বামী আবদুল মালেক এ ঘটনার জন্য ইউপিডিএফ সন্ত্রাসীদের দায়ী করেন।

বাবুছড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন।

নিহত মহিলার স্বামী ও সোনামিয়া টিলা ভূমি রক্ষা কমিটির আহ্বায়ক আবদুল মালেক পার্বত্যনিউজকে বলেন, আমরা প্রতিদিনের মতো ঘুমিয়ে ছিলাম। রাত শোয়া একটার দিকে হঠাৎ গুলি শুরু হয়। আমরা দ্রুত খাটের উপর থেকে নিচে নামতে শুরু করি।

এর মধ্যে আমার স্ত্রীর কোমরে একটা গুলি লাগে। আরো একটি গুলি লাগে তার যাতে তেমন ক্ষতি হয়নি। এরপর টানা ব্রাশ ফায়ার চলে। আমার সন্তানের মাথায় গুলি লাগে। গুলি থামলে আমি আমার স্ত্রীকে নিয়ে দিঘীনালা সদর হাসপাতালে ভর্তি করি। সেখানে তিনি রাত দুইটার পরে মারা যান।

কারা গুলি করেছে- এমন প্রশ্নের জবাবে আবদুল মালেক পার্বত্যনিউজকে বলেন, এটা পাহাড়ের সন্ত্রাসী সংগঠন ইউপিডিএফ ও তার সহযোগি দালালদের কাজ। দীর্ঘদিন ধরেই স্থানীয় একটি গ্রুপ তার উপর হামলা করার হুমকি দিয়ে আসছিলো। তিনি বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে জানিয়েছিলেন জানিয়ে বলেন, তারা অনেকদিন ধরেই চেষ্টা করছিলো। গতরাতে সফল হয়েছে।

এ ব্যাপারে ইউপিডিএফের বক্তব্য নেয়ার জন্য তাদের প্রেস সেকশনের দায়িত্বপ্রাপ্ত নিরন চাকমার মোবাইলে যোগাযোগ করলে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: ইউপিডিএফ, ইউপিডিএফের সন্ত্রাসী হামলা, সন্ত্রাসী হামলা
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

twenty − eleven =

আরও পড়ুন