উন্নয়নের ছোঁয়ায় বদলে যাচ্ছে চকরিয়ার পশ্চিম বড় ভেওলার গ্রামীণ জনপদ

fec-image

গ্রাম হবে শহর, এ প্রতিপাদ্যকে শতভাগ বাস্তবায়নের আলোকে কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার গ্রামীণ জনপদে উন্নয়নের ছোঁয়ায় বদলে যাচ্ছে। তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হিসেবে দেখা মেলেছে পশ্চিম বড় ভেওলা ইউনিয়নে। এ ইউনিয়নের ইলিশিয়া ও দরবেশকাটা গ্রামের প্রত্যেক ঘরে নিশ্চিত করছেন বিদ্যুৎ, শতভাগ স্বাস্থ্য সম্মত স্যানেটারী ল্যাট্রিন ও যাতায়াত উপযোগী চলাচল রাস্তা। এছাড়াও শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতেও এসেছে আমূল পরিবর্তন। গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নের ছোঁয়ায় অনেকটা শহরের সঙ্গেই তাল মিলিয়ে চলছে এ গ্রামীণ জনপদের হাজার হাজার জনগোষ্ঠী।

সরেজমিন দেখাগেছে, চকরিয়া উপজেলার উপকূলীয় সাত ইউনিয়নের মধ্যে পশ্চিম বড়ভেওলা ইউনিয়ন হচ্ছে মিডল পয়েন্ট।

এ ইউনিয়নের গ্রামীণ জনপদের বর্তমান বেশির ভাগ সড়ক পিচঢালা। এছাড়াও অধিকাংশ বসতঘরগুলো হলো পাকা ও আধাপাকা। মুজিববর্ষে পশ্চিম বড়ভেওলা ইউনিয়ন হবে একটি মডেল ইউনিয়ন। ইউনিয়নের প্রায় ২০ হাজার জনগোষ্ঠী বসবাস করেন। বর্তমান সরকারের ব্যাপক উন্নয়নের ছোঁয়ায় সম্পূর্ণ বদলে গেছে ইউনিয়নের দৃশ্যপট। ইতোমধ্যে শতভাগ স্বাস্থ্যসম্মত স্যানিটারী ল্যাট্রিনের আওতায় আনতে অক্লান্ত ও নিরলসভাবে পরিশ্রম করে যাচ্ছেন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও মাতামুহুরী সাংগঠনিক থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বাবলা।

জানা গেছে,পশ্চিম বড় ভেওলা ইউনিয়নের অধিকাংশ জনসাধারণ মৎস্য প্রকল্প ও কৃষি চাষ করে জীবন জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন। ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে নানা গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন কর্মকান্ডে চালিয়ে যাচ্ছে। যার ফলে বদলে যাচ্ছে ইউনিয়নের গ্রামীণ দৃশ্যপট। প্রথমবারেই চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর বর্তমান চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বাবলা এলাকায় মানবিক কর্মকান্ড, ন্যায়-বিচার প্রতিষ্টা ও আইনশৃঙ্খলা স্বাভাবিক পরিস্থিতি এবং সমুন্নত রাখার ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখায় জেলার শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন তিনি।

চলতি বছরে এলজিইডি ও এডিবির অর্থায়নে প্রায় তিন কোটি টাকা বরাদ্দে নানা উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়িত হচ্ছে। বিশেষ করে ইলিশিয়া ও দরবেশকাটা গ্রামের আভ্যন্তরীণ গ্রামীণ চলাচল রাস্তার কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এই সাফল্যের অগ্রযাত্রায় জনগুরুত্বপূর্ণ দুইটি সড়কের কার্পেটিং কাজও বর্তমানে সম্পন্ন হওয়ার পথে। তৎমধ্যে কেবি জালাল উদ্দিন সড়ক থেকে দরবেশকাটা উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশ ঘেষে লবণ মাঠ পর্যন্ত এবং অপরটি হচ্ছে বড়দ্বিয়া কবরস্থান সড়ক। সম্প্রতি ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী এই সড়ক দুটির সংস্কার কাজ পরিদর্শন করেছেন। সেই সাথে তিনি বড়দ্বিয়া কবরস্থানে মানুষের ব্যবহারের জন্য একটি গভীর নলকূপ স্থাপন করেন। বর্তমানে ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডে প্রায় তিন কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। অতিবৃষ্টির ফলে সৃষ্ট জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছেন।

এ ব্যাপারে পশ্চিম বড়ভেওলা ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, এলাকায় রাস্তাঘাট ও জনগণের জীবন-মান উন্নয়নে পরিষদের পক্ষ থেকে সর্বাত্বক প্রচেষ্ঠা অব্যাহত রয়েছে। লকডাউনের কারণে এলাকায় কর্মহীন, দরিদ্র ও নিম্ন আয়ের লোকজনকে আর্থিক সহায়তাও করে যাচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রীর পরিকল্পনা মোতাবেক গ্রামকে শহরে পরিণত করতে সরকারি বরাদ্দ শতভাগ সুষম বণ্টন, পরিকল্পিত রাস্তা, ব্রিজ, কালভার্ট নির্মাণ, স্যানিটেশন, স্বাস্থ্য, কৃষকদের সর্বোচ্চ সুবিধা প্রদান, শিক্ষা, এলাকার আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ, অপরাধ প্রবণতা কমিয়ে আনা ও জবাবদিহিতার মাধ্যমে ন্যায় ভিত্তিক সমাজ গঠনের মাধ্যমে মডেল ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তোলা হচ্ছে। যেটি হবে মুজিব বর্ষের জন্য অনন্য একটি মডেল ইউনিয়ন।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × 1 =

আরও পড়ুন