ঘরে বসেই মিলবে স্থায়ী বাসিন্দার সনদ

fec-image

রাঙামাটিতে অনলাইনে স্থায়ী বাসিন্দাদের সনদ বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে। রবিবার সকালে জেলা প্রশাসক সম্মেলন কেন্দ্রে এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম বিভাগের বিভাগীয় কমিশনার এবিএম আজাদ।

রাঙামাটি জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. মামুন, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও গণমাধ্যমকর্মী, এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রধান ও শিক্ষার্থীবৃন্দ।

এসময় জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ বলেন, রাঙামাটির অধিকাংশ উপজেলার সাথে নৌ যোগাযোগের কারণে জেলা সদর আসনে অনেক সময় লাগে, দিনে দিনে ফেরা যায় না ফলে সেবা প্রত্যাশিদের সময় ও অর্থের অপচয় হয়। তাছাড়া পার্বত্য জেলাগুলোতে স্থায়ী বাসিন্দার সনদ অত্যন্ত প্রয়োজনীয় একটি দলিল। যা এখানকার সকল মানুষের প্রয়োজন হয়। এই সেবা চালু করার চিন্তা মাথায় আসে। সে মোতাবেক একটি সাইট তৈরি করা হয়। আজ থেকে এখানকার স্থায়ী বাসিন্দাগণ ঘরে বসেই আবেদন করে সাথে প্রয়োজনীয় কাগজের স্কেনিং কপি ও মোবাইলে মাধ্যমের ২শ টাকা দিয়েই ঘরে বসে বা ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্র বা যে কোন বাণিজ্যিক দোকান থেকে এই সেবা গ্রহণ করতে পারবেন। তিনি আরও বলেন, আগে একটি সনদের জন্য ১০/১৫ দিন সময় লাগতো এখন এসেবা জেলাবাসী পাবেন মাত্র ৪/৫ দিনেই।

তিনি আরও বলেন, এটা কেউ নকল করতে পারবে না, সকল সনদের আলাদা ট্রেকিং নাম্বার থাকবে, সাথে থাকবে বারকোর্ড, সেটি রিড করলেই অটো আমাদের এই সার্ভারে চলে আসবে। সেখানে সকল তথ্যই সংরক্ষিত থাকবে। ফেসবুকের ডিস্ট্রিক্ট অ্যাডমিনিস্টার পেইজে সার্ভারের লিংক পাওয়া যাবে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিভাগীয় কমিশনার এবিএম আজাদ বলেন, রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের এই উদ্যোগ প্রশংসার দাবিদার। সরকারে সেবা জনগণের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দিতে এই সেবা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। এমন কাজের জন্য তিনি জেলা প্রশাসককে ধন্যবাদ প্রদান করেন। তিনি বলেন, এই সাইটটি এখন থেকে কার্যকর হলো, কাজ করতে গিয়ে সমস্যা আসবে তার সমাধানও হয়ে যাবে। এভাবে প্রযুক্তির বিকাশ হয়।

পরে বিভাগীয় কমিশনার বাটন চেপে এই সেবার উদ্বোধন করেন এবং দুজনকে স্থায়ী বাসিন্দার সনদ প্রদান করেন। এর আগে তিনি বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে শিক্ষার্থীদের মাঝে বৃত্তি প্রদান করেন। শেষে প্রধান অতিথি ডিজিটাল হাব পরিদর্শন করেন।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

3 × two =

আরও পড়ুন