চকরিয়ায় নাশকতা-লুটপাটের মামলায় ইউপি সদস্য ও যুবদল নেতা গ্রেফতার

fec-image

গাড়িতে অগ্নিসংযোগ, নাশকতা, ভাঙচুর, লুটপাট ও মারামারিসহ একাধিক মামলার পলাতক আসামি চকরিয়া উপজেলার লক্ষ্যারচর ইউপি সদস্য আবুল কালামসহ (৩৮) দুই যুবদল নেতাকে আটক করেছে পুলিশ।

রবিবার (৮ ডিসেম্বর) গভীর রাতে চকরিয়া থানার এসআই আবদুল বাতেন এ অভিযান পরিচালনা করেন। রবিবার দুপুর ১২টার দিকে আটককৃতদের জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

জানা যায়, সম্প্রতি সময়ে লক্ষ্যারচর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের রুস্তম আলী চৌধুরীপাড়ার বাসিন্দা মৃত আকবর আহমদের পুত্র আবুল কালাম তার অপরাপর সহযোগিরা রাস্তা নির্মাণের নামে অসহায় নারী বুলবুল জন্নাতের বসতভিটা ভাঙচুর ও লুটপাট চালিয়েছিলো।

ওইসময় আবুল কালাম, আরিফ ও মামুনের নেতৃত্বে ব্যাপক লুটপাট চালিয়ে বাড়ির আসবাবপত্র ও বিভিন্ন মূল্যবান মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। এমনকী বাড়িতে রক্ষিত চাষের উৎপাদিত আলু ও গোলা ভরা ধান রাস্তায় ফেলে পানি দিয়ে নষ্ট করে দেয়। ওই ঘটনায় বুলবুল জন্নাতের দুই লক্ষ টাকা ক্ষতি সাধিত হয়।ঘটনার বিষয় নিয়ে বুলবুল জন্নাত লক্ষ্যারচর ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা কাইছারের কাছে অভিযোগ দিলেও কালক্ষেপন করে এড়িয়ে যান। উল্টো নানাভাবে হুমকি ধমকি দিয়ে চাপে রেখেছিলেন ইউপি চেয়ারম্যান।

এসআই আবদুল বাতেন বলেন, গত ২৬ জুন বুলবুল জন্নাত তার বসতভিটা ভাঙচুর ও লুটপাটের অভিযোগ এনে চকরিয়া উপজেলা সিনিয়র জুড়িশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আবুল কালাম, আরিফ, আমিন ও মামুনসহ ৫জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য চকরিয়া থানা পুলিশকে নির্দেশ দেন আদালত।

পুলিশ তদন্তে ঘটনার সত্যতা পেয়ে আদালতে প্রতিবেদন জমা দেন। এরপ্রেক্ষিতে আদালত উল্লেখিত আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করলে তাদেরকে আটক করার কথা জানান তিনি।

চকরিয়া থানার ওসি হাবিবুর রহমান বলেন, আটককৃত আসামিদের বিরুদ্ধে নাশকতা, ভাঙচুর ও লুপাটের অভিয়োগ রয়েছে। আদালতের পরোয়ানা পেয়ে তাদেরকে আটকের জন্য এসআই আবদুল বাতেনকে নির্দেশ দেয়া হয়। তাদেরকে জেলহাজতে প্রেরণের কথা জানান তিনি।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আটক, গ্রেফতার, লক্ষ্যারচর ইউনিয়ন
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

7 − six =

আরও পড়ুন