পানছড়িতে বানর-কুকুরে সখ্যতা

fec-image

কুকুর দেখলে বানর যেখানে দৌড়ে পালায় সেখানে তারা গড়ে তুলেছে সখ্যতা। পানছড়ির ঝর্ণাটিলায় বানর-কুকুরের সখ্যতা দেখতে নিত্য ছুটে আসে দর্শনার্থী। তাদের বন্ধুত্বের বাঁধন দেখে তৃপ্তির ঢেঁকুর নিয়ে ফিরে আবাল-বৃদ্ধ-বনিতারা।

জানা যায়, পানছড়ি-মাটিরাঙ্গা উপজেলার সীমান্তবর্তী ঝর্ণাটিলায় নানান জাতের ফলদ ও বনজ বাগান সাজিয়েছে রেজাউল করিম ও আবদুল খালেক। তাদের বাগানের পরিচর্যা করে মো: হারুণ-অর-রশিদ। একটি কালো কুকুর বাগানের পাহারাদার। হারুণ-অর-রশিদ জানায়, লিচু, বড়ই, কলা ও বিভিন্ন ফল বাগানে প্রায়ই বানর উপদ্রব চালায়।

গত মাস সাতেক আগে বানরের একটি বাচ্চা বাগানে পড়ে থাকতে দেখে বাড়ির সবাই মিলে তাকে সুস্থ করে তুলি। এরপর থেকেই বানরটি পরিবারের সদস্যদের মতো। এরি মাঝে বাগানের পাহারাদার কালো কুকুরটির সাথে গড়ে উঠে তার সখ্যতা। বর্তমানে দু’জন দু’জনার। তাদের সাথে রয়েছে গৃহপালিত প্রায় ২০-২৫টি মুরগী।

বাড়ির সদস্য জুয়েল ও সোহেল জানায়, বানর, কুকুর ও বাড়ির পালিত মোরগ-মুরগীগুলো একসাথে পুরো বাড়ি চষে বেড়ায়। বিস্কিট, ভাতসহ নানান খাবার তারা একসাথে খায়। তবে সবচেয়ে মজার বিষয় হলো দুপুরে মানুষ, কুকুর, বানর, হাঁস-মুরগী মিলে একসাথে খাওয়ার দৃশ্যটি মন কেড়ে নেয়।

কুকুর-বানরের সখ্যতার ব্যাপারে জানতে চাইলে পানছড়ি উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ভাষ্কর তালুকদার জানায়, এ ব্যাপারে কোন ধারণা নেই। তাই কিছু বলা যাচ্ছেনা।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: পানছড়ি, মাটিরাঙ্গা
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fifteen + fourteen =

আরও পড়ুন