চারদিন পার হয়ে গেলেও ফেরেনি মা

পিকাসু’র কান্না থামবে কি?

fec-image

ও এখন আড়াই বছর বয়সের কে-ই বা জানতো এ বয়সে এসেই মাকে হারাবে। সত্যি কি মাকে হারিয়েছে। হ্যাঁ পিকাসু এখন মাকেই হারিয়েছে। পরকীয়ার কারনেই তার মাকে হারাতে হয়েছে। সে এখন কেবলই মা মা ডেকে কান্নাকাটি করছে সারাদিন। মা’র জন্য ছেলের কান্না থামাতে না পেরে দিশেহারা হয়ে বাবাও কাঁদছে। এখন মা হীন পিকাসুর ভবিষ্যত জীবনটাও যেন ফাঁকা।

শুক্রবার (১৪ জুন) সকালে রাঙ্গামাটির বরকল উপজেলার শুভলং বাজার এলাকা থেকে পিকাসুর বাবার সহকর্মী ও প্রতিবেশী জনৈক মিলন চাকমার সাথে পালিয়েছে পিকাসুর মা পিংকি চাকমা। সোমবার (১৭ জুন) রাতে পিকাসুর বাবা শ্রীপন চাকমা জানান, স্ত্রী পিংকি চাকমা (২৩) ও আড়াই বছর বয়সী ছেলেকে নিয়েই সুন্দর সাজানো সংসার তার। স্বল্প আয়ের কারণে পরিবার নিয়েই রঙগাছছড়ি এলাকায় বরকল উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান সন্তোষ চাকমার বাগান পাহারার কাজ করছিলেন। মা না থাকায় ছেলেকে নিয়ে এখন মহা কষ্টে পড়েছি। সারাদিন সে মা মা বলে ডাকে আর কান্নাকাটি করে।

ছেলের কান্না দেখে দিশেহারা বাবাও কাঁদেন। পিকাসু যখন তার মাকে খুঁজে তখন তিনি বলেন তোমার মা নাই, পরে আসবে বা বিভিন্ন রকমের কথা বলে ভুলিয়ে রাখেন। এখন তিনি নিরুপায় হয়ে পিকাসুকে তার নানার বাড়ি পাঠিয়ে দিয়েছেন বাবা শ্রীপন চাকমা।

তিনি আরও জানান, শুক্রবার সকালে পিংকি ফোন করে তার স্বামী শ্রীপনকে শুভলং বাজারে তার ছেলে পিকাসুকে নিয়ে আসতে বলে, তার নানার বাড়ি নিয়ে যাওয়ার জন্য। তখন শ্রীপন আসলে তার স্ত্রী পিংকি তার মামাকে ছাতা দিবে নাম করে পালিয়ে যায়। এদিকে পিংকির আসতে দেরি হলে শ্রীপন তখন বারবার ফোন করতে থাকে। তখন পিংকি শ্রীপনকে আসতেছি, আসতেছি বলে। পরে মোবাইল বন্ধ করে দেয় পিংকি। দীর্ঘ চারদিন পার হয়ে গেলেও এখনো ফিরে আসেনি।

শ্রীপনের স্ত্রী পিংকি চাকমা ফিরে না আসায় বরকল থানায় রবিবার (১৬ জুন) সকালে বউ ভাগিয়ে নেয়ার অভিযোগে মিলন চাকমার (৩১) বিরুদ্ধে থানায় লিখিতভাবে অভিযোগ করে। অভিযুক্ত মিলন চাকমার বাড়ি শুভলং এলাকার চাপ্পিয়াছড়া গ্রামে। তার পিতা লক্ষী চন্দ্র চাকমা। তার দুই ছেলে ও স্ত্রী রয়েছে।

বরকল উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান সন্তোষ চাকমা বলেন, শ্রীপন স্ত্রী সন্তান নিয়ে তার বাগানে কাজ করে। মিলন চাকমাও শ্রমিকের কাজ করে। শুক্রবার থেকেই শ্রীপনের স্ত্রী পিংকি ও মিলন চাকমাকে পাওয়া যাচ্ছে না। ধারণা করা হচ্ছে দু’জনই একসঙ্গে পালিয়েছে। এতে দুটি পরিবারই অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে এবং মিলন চাকমাকে এই অপকর্মের জন্য তাকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

 এ বিষয়ে বরকল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মফজল আহমদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এই অভিযোগটির ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য শুভলং পুলিশ ফাঁড়িতে পাঠানো হয়েছে। তবে এখনো কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

three × one =

আরও পড়ুন