রামুতে সহস্রাধিক পরিবার পানিবন্দী, সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

fec-image

কয়েকদিনের প্রবল বর্ষণের ফলে রামুতে সহ¯্রাধিক বসত বাড়ি পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। রামু-নাইক্ষ্যংছড়ি সড়ক সহ গ্রামীন সড়কগুলো প্লাবিত হওয়ায় যান চলাচল বিচ্ছিন্ন রয়েছে। নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ায় বেড়েছে জনদূর্ভোগ। উপজেলার কচ্ছপিয়া ও গর্জনিয়া ইউনিয়নের সবচেয়ে বেশি বসত ঘর পানিবন্দী হওয়ার খবর যাওয়া গেছে।

রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণয় চাকমা মঙ্গলবার বিকালে পানিতে একাকার হওয়ায় গর্জনিয়া-কচ্ছপিয়া এলাকা দেখতে যান। এসময় তিনি এসব এলাকার পানিবন্দী লোকজনের জন্য খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন।

কচ্ছপিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু মো. ইসমাইল নোমান জানিয়েছেন-ইউনিয়নের ৮টি গ্রাম এখন পানিতে একাকার হয়ে গেছে। এসব গ্রামের ৫০০ পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। ঝূঁকিপূর্ণ স্থান থেকে লোকজনকে উদ্ধার করে আশ্রয় কেন্দ্রে নেয়া হচ্ছে। নদীর পানি রাত ১০ টার পরও বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই আরো বেশী দূর্ভোগের আশংকা রয়েছে।

গর্জনিয়া ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি হাফেজ আহমদ জানিয়েছেন-ইউনিয়নের কৈয়াজরবিল, ডেইঙ্গারচর, ৮ নং ওয়ার্ডের পশ্চিম বোমাংখিল, জুমছড়ি, ফকিরপাড়া সহ আরো অনেক গ্রামে মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। ছাত্রলীগ-যুবলীগ নেতৃবৃন্দ পানিবন্দী লোকজনকে উদ্ধার করে নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়ে যাচ্ছে। এছাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দেয়া শুকনো খাবার বিতরণ করা হচ্ছে।

রাজারকুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুফিজুর রহমান জানিয়েছেন-ইউনিয়নের ধরপাড়া, হালদারকুল সহ কয়েকটি গ্রামে শতাধিক বসত ঘর প্লাবিত হয়েছে। এছাড়া বাঁকখালী নদীর শিকলঘাট-পূর্ব রাজাকুল সংযোগ সড়কস্থলে ভাঙ্গন তীব্র আকার ধারণ করেছে। জরুরী ভিত্তিতে এখানে সংস্কার না হলে পুরো সড়কটি নদীগর্ভে তলিয়ে যাবে।

কাউয়ারখোপ ইউনিয়ন নিকাহ রেজিষ্ট্রার কাজী এম আবদুল্লাহ আল মামুন জানিয়েছেন-ইউনিয়নের ফরেষ্ট অফিস এলাকা পানিতে প্লাবিত হওয়ায় রামু-নাইক্ষ্যংছড়ি সড়কে যান চলাচল বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। এছাড়া ইউনিয়নের পশ্চিম মনিরঝিল, পূর্ব কাউয়ারখোপ, বৈলতলী, চরপাড়া সহ কয়েকটি গ্রাম পানিবন্দী হয়ে পড়ায় এসব এলাকার লোকজন চরম দূর্ভোগ পোহাচ্ছে।

দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ইউনুছ ভূট্টো জানান-ইউনিয়নের সিকদারপাড়া, চরপাড়া, উমখালী গ্রামে ২ শতাধিক পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। ৩ ওয়ার্ডের উমখালীতে বাঁকখালী নদীর ভাঙ্গনের সৃষ্টি হওয়ায় লোকজন আতংকে রয়েছে। তবে ভাঙ্গন রোধে সম্মিলিতভাবে কাজ চলছে।

চাকমারকুল ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ছৈয়দ নুর জানিয়েছেন-পশ্চিম চাকমারকুল এলাকায় বাঁকখালী নদীর পানি আকষ্মিকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় ভাঙ্গন তীব্র হয়েছে। ভাঙ্গন ঠেকাতে মঙ্গলবার পরিষদের পক্ষ থেকে বালির বস্তা দিয়ে কাজ চালানো হচ্ছে।

জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়ন পরিষদের ৪নং ওয়ার্ডের সদস্য আবু তালেব জানিয়েছেন-গ্রামের ১২টি পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। তাদের উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণয় চাকমা জানিয়েছেন-গর্জনিয়া, কচ্ছপিয়া সহ বিভিন্ন ইউনিয়নে পানিবন্দী লোকজনকে উদ্ধারের পাশাপাশি খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হচ্ছে। তিনি জানান-রাতে রামুর অফিসেরচর গ্রামে রামু-মরিচ্যা সড়কের পাশে বেড়িবাধ বিচ্ছিন্ন থাকায় নদীর পানিতে এলাকাটি প্লাবিত হতে থাকে। এসময় তিনি সড়ক প্রশস্থকরণ কাজের ঠিকাদারকে জরুরী ভিত্তিতে বিচ্ছিন্ন করা বেড়িবাধ সংস্কারের জন্য নির্দেশ দেন।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eighteen + 16 =

আরও পড়ুন