সংসদে পার্বত্য চুক্তি রাস্তবায়নের রোডম্যাপ চাইলেন উষাতন তালুকদার এমপি(ভিডিওসহ)

1782043_779998898702929_724370365_n

পার্বত্যনিউজ রিপোর্ট:

রাঙামাটি থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য ও পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির কেন্দ্রীয় নেতা উষাতন তালুকদার সোমবার জাতীয় সংসেদে রাষ্ট্রপতির ভাষণের উপর ধন্যবাদ প্রস্তাবের উপর নির্ধারিত  আলোচনায় অংশ নিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নে সরকারের কাছে সময় নির্ধারন করে একটি জাতীয় রোডম্যাপ চাইলেন। তিনি বলেন ১৯৯৭ সনে পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য জাতীয় চুক্তি বা পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি স্বাক্ষর করা হয়েছিল। কিন্তু চুক্তির অধিকাংশ ধারা বাস্তবায়িত না হওয়ায় এখানকার মানুষ হতাশায় ভুগছে। তিনি বলেন, শান্তি চুক্তি বাস্তবায়নে আমরা বিগত সরকারগুলোকে আন্তরিক দেখেনি, বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে চুক্তি স্বাক্ষর করা হয়েছিল তাই চুক্তি বাস্তবায়ন এই সরকারের উপর বেশী বর্তায়।

উষাতন তালুকদার বলেন, শান্তি চুক্তি অনুযায়ী পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক ও জেলা পরিষদ আইন কার্যকর করা হয়নি। আঞ্চলিক পরিষদের প্রবিধানমালা প্রনীত হয়নি। পুলিশ ও ভুমি পার্বত্য জেলা পরিষদগুলোতে হস্তান্তরিত হয়নি। তিনি আরো বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের আর্থসামাজিক বিপ্লব ঘটাতে প্রয়োজন সুষম উন্নয়ন। একটি সুনির্দিষ্ট উন্নয়ন পরিকল্পনা নিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামের সকল জনগোষ্ঠীর আর্থসামাজিক উন্নয়ন ঘটাতে হবে।

স্থানীয় সমস্যা সম্পর্কে তিনি সংসদে বলেন, ১৯৬০ সনে কর্নফুলী নদীতে বাঁধ দিয়ে কাপ্তাই পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করা হলেও পার্বত্য এলাকার দুর্গম এলাকায় এখনো বিদ্যুৎ পৌঁছায়নি। অথচ বাঁধের ফলে এখানকার হাজার হাজার পাহাড়ী বাঙ্গালী পরিবার উদ্বুস্ত হয়েছিল। তারা এখনো ক্ষতিপুরনসহ সরকারের প্রতিশ্রুতি দেয়া সুযোগ সুবিধা পাচ্ছে না। তিনি পার্বত্য এলাকার প্রত্যন্ত অঞ্চলে গ্রাম পর্যায়ে সরকারের বিদ্যুৎ সুবিধা পৌছিয়ে দেয়ার দাবী জানান।

উষাতন তালুকদার তার বক্তব্যে পার্বত্যবাসীর দাবী জানাতে গিয়ে বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে উল্লেখ করার মত শিল্প কারখানা নেই এখানকার মানুষ আবাদী ফল ফসলাদির উপর নির্ভরশীল। পার্বত্য চট্টগ্রামে আনারস, কাঠাল পঁচে যায় সেই সব ফসল রক্ষা ও কৃষক যেন ন্যায্য মুল্য পায় সে জন্য প্রক্রিয়াজাতকরনের জন্য কোলষ্টোরল স্থাপনের দাবী জানান।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

sixteen + 8 =

আরও পড়ুন