সাজেকে হাম আক্রান্তে আরও ১ শিশুর মৃত্যু: মৃতের সংখ্যা ৯

fec-image

রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলায় হামে আরও এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। তার নাম নিকেতন চাকমা (১৫)।

মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে উপজেলার সাজেক ইউনিয়নের দুর্গম বেটলিং এলাকায় ওই শিশুর মৃত্যু হয়। এ নিয়ে ওই এলাকায় হামে ৯শিশুর মৃত্যু হলো। আক্রান্ত হয়েছে আরও দুই শতাধিক শিশু। এর মধ্যেই গত পাঁচ দিনের ব্যবধানে ১১গ্রামে নতুন করে দেড়শতাধিক শিশু হামে আক্রান্ত হয়।

সাজেক ইউপি চেয়ারম্যান নেলশন চাকমা গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন এবং তিনি জানান, সাজেকের দূর্গম এলাকায় হামের প্রাদুর্ভাব বেড়ে যাওয়ায় সেখানে সাস্থ্য বিভাগ নিয়মিত চিকিৎসা দিচ্ছে এর মধ্যেই গতকাল চিকিৎসাধীন অবস্থাই নিকেতন চাকমা নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়।

চিকিৎসাধীন অবস্থায় সর্বশেষ ২৩ মার্চ প্রাণ হারায় সাজেক ইউনিয়নের লুঙথিয়ান পাড়ার খেতবালা ত্রিপুরা (১৩) নামে এক শিশু। ২২ মার্চ প্রাণ হারায় গোরাতি ত্রিপুরা (৯)। এর অগে একই মাসের ব্যবধানে আরও প্রাণ হারায় ৬ জন।

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ইসতেখার আহম্মদ বলেন, হামে আক্রান্ত সাজেকের দুর্গম বেটলিং এলাকায় নিকেতন চাকমা নামে আরো একশিশুর মৃত্যু হয়। এলাকাটি দূর্গম হওয়ার কারণে আমাদের সঠিক সময়ে ওই এলাকার স্থানীয় প্রতিনিধিরা জানাতে পারেনি। আজকে জানিয়েছে সেখানে আরও পাঁচজন মুমূর্ষ রোগী আছে আমরা তাদের নিয়ে আসার চেষ্টা করছি।

সাজেক ইউনিয়নের অরুণপাড়ায় হামের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয় ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি। এতে ১১৭ জন শিশু আক্রান্ত হয়।

২৬ ফেব্রুয়ারি হামে প্রথম প্রাণ হারায় সাগরিকা ত্রিপুরা (১৩)। তখন খবর পেয়ে বাঘাইছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মো. ইফতেখার আহমদের নেতৃত্বে একটি চিকিৎসক দল যায় আক্রান্ত এলাকায়। পরে অরুণপাড়াসহ পাঁচটি গ্রামে হামে আক্রান্ত শিশুদের চিকিৎসা ও সেবা দেয়া হয়। আক্রান্ত শিশুদের শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করে পাঠানো হয়েছে, ঢাকা স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরীক্ষাগারে। পরীক্ষায় হাম সনাক্ত হয় এছাড়াও উন্নত চিকিৎসায় ২৫ মার্চ বিজিবি ও সেনাবাহিনীর ব্যবস্থাপনায় চিকিৎসার জন্য হেলিকপ্টারে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে হামে আক্রান্ত ৫ শিশুকে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five × 1 =

আরও পড়ুন