হাসপাতালে শুয়েও রসিকতা রনির, সাহস দিচ্ছেন পরিবার ও বন্ধুদের

fec-image

রনির বন্ধু ও ব্যবসায়িক পার্টনার সোহেল আহমেদ ওরফে সুমন্ত সোহেল জানান, ‘রনিকে যখন আইসিইউতে নেওয়া হয় তখন সেখানে অনেকে ভিড় করেন। ভিড় সামাল দিতে হাসপাতালের লোকজন হিমশিম খান।’

‘সবমিলিয়ে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠলে সবাইকে শান্ত করার চেষ্টা করেন রনি। চিকিৎসককে ডেকে তিনি বলেন, ‘ডাক্তার, প্রথমবার এসেছি। তাই এত লোক। দ্বিতীয়বার এলে কেউ আসবে না,’ হাসপাতালের আইসিইউ বেডে শুয়ে এমন রসিকতা করছিলেন জনপ্রিয় কৌতুক অভিনেতা আবু হেনা রনি।

রবিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরের দিকে আবু হেনা রনির শারীরিক ও মানসিক অবস্থার বর্ণনা দিয়ে স্ট্যান্ড আপ কমেডিয়ান হা-মো সিজন ৩ এর চ্যাম্পিয়ন হৃদয় আল মিরু ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “আমরা শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে অপেক্ষা করছি। রনি ভাই আমাদের সঙ্গে স্বাভাবিকভাবেই কথা বলছেন। তিনি এখন স্পেশাল ওয়ার্ডে আছেন। দুপুর ১টায় মেডিকেল বোর্ড বসবে।”

হৃদয় আল মিরু বলেন, “রনি ভাই পরিবারের লোকজনসহ আমাদেরকেও সাহস দিচ্ছেন। তিনি বলছেন, কিচ্ছু হবে না। চিন্তা করিস না।” তিনি হাসপাতালের বেডে শুয়েও সবার মনোবল ধরে রেখেছেন।

এর আগে রবিবার সকালের দিকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন সংবাদমাধ্যমকে বলেন, “রনির শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত আছে। আজ দুপুর ১টায় মেডিকেল বোর্ড বসবে। এরপর বিস্তারিত বলা যাবে।”

এর আগে হাসপাতালের আইসিইউ বেডে নেওয়ার সময়কার রনির অবস্থার বর্ণনা দিয়েছেন রনির বন্ধু ও ব্যবসায়িক পার্টনার সোহেল আহমেদ।

তিনি বলেন, “আইসিইউ বেডে রনিকে নেওয়ার সময় দায়িত্বরত চিকিৎসককে তিনি বলেছিলেন,  ‘ডাক্তার, প্রথমবার এসেছি। তাই এত লোক। দ্বিতীয়বার এলে কেউ আসবে না’।”

আবু হেনা রনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যতত্ত্ব বিভাগে তৃতীয় বর্ষে থাকাকালে কলকাতার জনপ্রিয় রিয়েলিটি অনুষ্ঠান মিরাক্কেলে অংশ নেন। তার আক্রান্ত হওয়ার খবরে দুই বাংলায় অসংখ্য ভক্ত সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে রনির জন্য শুভকামনা জানিয়েছেন।

এক ফেসবুকে পোস্টে তার জন্য দোয়া চেয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের জনপ্রিয় উপস্থাপক ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব মীর আফসার আলী।

মিরাক্কেলের এই উপস্থাপক ফেসবুকে লিখেছেন, “আবু হেনা রনি নিজেই আগুন। ওকে পোড়ায় কার সাধ্য? দোয়া করবেন সবাই।”

গত শুক্রবার বিকালে গাজীপুর জেলা পুলিশ লাইনস মাঠে জিএমপির ৪ বছর পূর্তির অনুষ্ঠানে গ্যাস বেলুন বিস্ফোরণে কৌতুক অভিনেতা রনিসহ ৫ জন দগ্ধ হন।

‘শরীরে ২৫ শতাংশ দগ্ধ নিয়েও রনি মনোবল হারাননি’ উল্লেখ করে সোহেল আরও বলেন, ‘রনি সবার সঙ্গে হাসিমুখে কথা বলেছেন, পরিবারের সবাইকে সান্ত্বনা দিয়েছেন।’

রনির বন্ধু জানান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যতত্ত্ব বিভাগে তৃতীয় বর্ষে থাকাকালে রনি কলকাতার জনপ্রিয় রিয়েলিটি অনুষ্ঠান মিরাক্কেলে অংশ নেন।

২ বাংলায় অসংখ্য ভক্ত সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে রনির জন্য শুভকামনা জানিয়েছেন।

এক ফেসবুকে পোস্টে তার জন্য দোয়া চেয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের জনপ্রিয় উপস্থাপক ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব মীর আফসার আলী।

মিরাক্কেলের এই উপস্থাপক ফেসবুকে লিখেছেন, ‘আবু হেনা রনি নিজেই আগুন। ওকে পোড়ায় কার সাধ্য? দোয়া করবেন সবাই।’

গত শুক্রবার বিকালে গাজীপুর জেলা পুলিশ লাইনস মাঠে জিএমপির ৪ বছর পূর্তির অনুষ্ঠানে গ্যাস বেলুন বিস্ফোরণে কৌতুক অভিনেতা রনিসহ ৫ জন দগ্ধ হন।

এ ঘটনায় তাদের প্রথমে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। দগ্ধের মাত্রা বেশি হওয়ায় সেখান থেকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে পাঠানো হয় রনি ও পুলিশ সদস্য জিল্লুর রহমানকে।

গতকাল শনিবার বিকেলে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন জানান, ‘অপারেশন থিয়েটারে ড্রেসিংয়ের পর রনিকে হাই ডিপেন্ডেন্সি ইউনিটে (এইচডিইউ) রাখা হয়েছে।’ ‘তার পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে। শ্বাসনালী সামান্য দগ্ধ হলেও দগ্ধরোগী হওয়ায় তাকে শঙ্কামুক্ত বলা যাবে না।’ রনিকে গভীর পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

গত শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টায় গাজীপুরে গ্যাস বেলুন বিস্ফোরণের ঘটনায় কৌতুক অভিনেতা আবু হেনা রনিসহ ৫জন দগ্ধ হন। রনির শরীরের ২৫ শতাংশ দগ্ধ হয়।

সেই রাতে তাকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আইসিইউতে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়।

তার হাত, কান, মুখের কিছু অংশ ও শ্বাসনালী সামান্য দগ্ধ হলেও তিনি মনোবল হারাননি।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

twelve − 2 =

আরও পড়ুন