কুতুবদিয়ায় গুলিতে নৌকার এজেন্ট নিহত

fec-image

কুতুবদিয়ায় ৬ ইউপি‘র নির্বাচনে সহিংসতায় পুলিশের ফাঁকা গুলিতে এক নৌকার এজেন্ট নিহত হয়েছে। নিহত আব্দুল হালিম (৩৮) বড়ঘোপ গোলদার পাড়ার মৃত মো. হোসেন‘র পুত্র। এ সময় আরও গৃুলিবিদ্ধ হয়েছে ৩ জন।

প্রত্যক্ষদর্শীর জানায়, উপজেলার সব ক‘টি ইউনিয়নে বেলা ১২টা পর্যন্ত বেশ সুন্দর পরিবেশে ভোট চলছিল। বড়ঘোপ পিলটকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৩নং বুথে ভোট দিতে আসা প্রবাসী আব্দু ছাত্তারের স্ত্রী বিলকিস আক্তার জানান, হঠাৎ নৌকার ৫০-৬০ সমর্থক কেন্দ্রে ঢুকে ব্যালট, সরঞ্জাম কেড়ে নেয়। এসময় পুলিশ ফাঁকা গুলি চালালে জানালা দিয়ে ভিতরে প্রবেশ করে। তারা ভোট না দিয়েই পালিয়ে যান।

প্রিজাইডিং অফিসার ডা: সাহাব উদ্দিন বলেন, অতর্কিত হামলা করে অর্ধশত ব্যক্তি কেন্দ্র দখলের চেষ্টা করায় বাধা দিলে তার উপরও হামলা করা হলে তিনি আত্মরক্ষার্থে পুলিশকে ফাঁকা গুলির নির্দেশ দেন। এসময় তারা অন্তত ১০০টি ব্যালট ছিনিয়ে নেয়।

অপর দিকে আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নে তাবালের চর, সন্দীপি পাড়া, কবি জসীম উদ্দিন, বড়ঘোপ কুতুবদিয়া সরকারি কলেজ, মুরালিয়া, কাজি হেলাল উদ্দিন, পিলটকাটা, লেমশীখালী সতরুদ্দীন হাই স্কুল কেন্দ্র সহ অন্তত ১০টি কেন্দ্রে ছোট-খাটো সহিংসতার ঘটনা ঘটে। সোমবার নির্বাচনি সহিংসতায় প্রায় ৪০ জন আহত হয়েছে বলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বরত চিকিৎসক মোহাম্মদ শরীফ জানিয়েছেন।

উপজেলা নির্বাচন অফিসার মো. জামশেদুল ইসলাম সিকদার জানান, পিলটকাটা কেন্দ্রটি স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে। বাকি প্রতিটি কেন্দ্রে কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া সুন্দরভাবে ভোট সম্পন্ন হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: কুতুবদিয়ায়, গুলিতে, নিহত
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × 5 =

আরও পড়ুন