ছেলেধরা সন্দেহ; গনপিটুনি থেকে একজনকে উদ্ধার করল পানছড়ি থানা পুলিশ

fec-image

ছেলেকে দাদার বাড়িতে বেড়াতে নিয়ে যাচ্ছিল বাবা। পথিমধ্যে ছেলে কান্না করলে ছেলেধরা সন্দেহে বাপ-বেটা দু’জনকেই আটক করে স্থানীয় জনতা। গনধোলাইয়ের আগেই খবর পেয়ে যায় পানছড়ি থানা পুলিশ। দ্রুত গিয়ে তাদের উদ্ধার করে নিয়ে আসে থানায়। জিজ্ঞাসাবাদে জানতে পারে তারা সম্পর্কে বাপ-বেটা।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) সকাল দশটার দিকে ঘটনাটি ঘটে পানছড়ি উপজেলার শান্তিপুর এলাকায়। এই ভূয়া খবরটি মুহুর্তেই পুরো উপজেলায় আতংক ছড়িয়ে দেয়। জানা যায়, ৫নং উল্টাছড়ি ইউপির উমরপুর গ্রামের মো আবদুল হামিদের মেয়ে হালিমার বিয়ে হয় নীলফামারি জেলার ডিমলা উপজেলার ডালিয়া গ্রামের মশিয়ার রহমানের ছেলে মোবারক হোসেনের সাথে। সম্পর্কে তারা আপন চাচাতো-জেঠাতো ভাইবোন।

তাদের সংসারে রয়েছে হাবিবুর রহমান নামের এক সন্তান। বাবা মোবারক তার সন্তানকে দাদার বাড়ি নিয়ে যাওয়ার সময় ঘটনাটি ঘটে। পানছড়ি থানার ওসি তদন্ত মো: দুলাল হোসেন জানান, খবর পাওয়ার সাথে সাথে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছার কারণেই গনধোলাই থেকে সে বেঁচে যায়। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে অভিভাবকদের জিম্মায় তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eighteen − 11 =

আরও পড়ুন