টেকনাফে শিশু আলো হত্যার ১০ বছর : ইন্ধনদাতা ও হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবি

fec-image

আজ ৭ সেপ্টেম্বর বর্বরোচিত, হৃদয় বিদারক ও জগন্যতম হত্যাকাণ্ডের শিকার শহীদ আলী উল্লাহ আলোর ১০ম শাহাদত বার্ষিকী।

২০১১ সনের ৭ সেপ্টেম্বর কক্সবাজার জেলা বিএনপির কোষাধ্যক্ষ মোঃ আবদুল্লাহর শিশু পুত্র ও টেকনাফ বিজিবি-পাবলিক স্কুলের ১ম শ্রেণীর ছাত্র আলী উল্লাহ আলোকে খুনিরা তার নিজ বাড়ীর কাচারী ঘরে জবাই করে হত্যা করেছিল।

এ হত্যার ১০ বছর অতিবাহিত হলেও মূল ইন্ধনদাতারা এখনো ধরা ছোঁয়ার বাইরে রয়েছে। এমনকি ওই অদৃশ্য শক্তি ও হত্যা পরিকল্পনাকারী গডফাদাররা কৌশলে মামলার আসামি সুমনকে জামিনে মুক্ত করে তাকেও হত্যার চেষ্টা করেছিল বলে আলোর পিতা দাবি করেন।

এদিকে দিনটি যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে শহীদ আলী উল্লাহ আলোর পারিবার। সূত্রে জানা গেছে, আজ দিনটি উপলক্ষে খতমে বোখারী, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল, গরীব-দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরনের আয়োজনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। এছাড়াও প্রতি বছরের ন্যায় আলোর ১০তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে শহীদ আলী উল্লাহ আলো স্মৃতি ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে কোরআন খতম, এতিম ও মিসকিনদের খাবার বিতরণসহ ধর্মীয় নানা কর্মসূচি পালনের উদ্যোগ নিয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২০১১ সনের ৭ সেপ্টেম্বর টেকনাফ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুল্লাহর শিশুপুত্র ও টেকনাফ বিজিবি স্কুলের ১ম শ্রেণীর ছাত্র আলী উল্লাহ আলোকে ভাড়াটিয়া খুনিরা তার নিজ বাড়ীর কাচারী ঘরে নির্মমভাবে জবাই করে হত্যা করেছিল। এ হত্যাকাণ্ডের ১০ বছর অতিবাহিত হলেও হত্যার মূল ইন্ধনদাতারা এখনো ধরা ছোঁয়ার বাইরে রয়েছে। এমনিক ওই অদৃশ্য শক্তি ও হত্যা পরিকল্পনাকারী গডফাদাররা কৌশলে মামলার আসামি সুমনকে জামিনে মুক্ত করে তাকেও হত্যার চেষ্টা করেছিল। বর্তমানে আলো হত্যার মামলা বিচারাধীন রয়েছে।

এমন বর্বরোচিত হত্যাকাণ্ডের মূল ইন্ধনদাতা ও হত্যাকারীদের ফাঁসি দাবি করেছেন টেকনাফের সচেতন মহল।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

nineteen + twenty =

আরও পড়ুন