বান্দরবান জেলা উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে প্রতারণা মামলা

fec-image

বান্দরবানে বহু অভিযুগে অভিযুক্ত উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর সহকারি পরিচালক এবার মামলায় ফেঁসে গেলেন। তাঁর বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ এনেছেন এক নারী। রবিবার (২ নভেম্বর) বান্দরবান চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলাটি করেছেন সমাজসেবা কার্যালয়ের ট্রেড প্রশিক্ষক মেহেরুন নেছা।

বাদীর অভিযোগ আমলে নিয়ে আদালতের বিচারক মুজাহিদুর রহমান তদন্তের ভার দিয়েছেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেষ্টিগেশন (পিবিআই)কে। মামলার বিবাদীরা হলেন- উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর বান্দরবান সহকারি পরিচালক মঞ্জুর আহমেদ তাঁর স্ত্রী হ্লাসিং দাই এবং রুবি প্রু মার্মাসহ অজ্ঞাত আরো কয়েকজনকে বিবাদী করা হয়েছে। মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে বাদীর আইনজীবী এ্যাডভোকেট আবু জাফর জানান, আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে কক্সবাজার পিবিআই কে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলার বাদী মেহেরুন নেছা জানান, মামলার বিবাদীরা ভূয়া প্রত্যয়ন দিয়ে ঋণ উত্তোলনে আমাকে জামিনদার বানিয়ে প্রতারণা করেছে। ৩নম্বর বিবাদী হ্লাসিংদাই আমার স্বাক্ষর নকল করে চেকে ১০ লক্ষ টাকার অংক বসিয়ে সোনালী ব্যাংক, বান্দরবান শাখা থেকে টাকা উত্তোলনে ব্যর্থ হয়ে চেক ডিজ অর্নার করে আমার নামে উল্টো মিথ্যা মামলা দায়ের করে। উল্লেখিত কারণে আমি রুবি প্রু, মঞ্জুর আহমেদ ও তার স্ত্রী হ্লাসিংদাইসহ অজ্ঞাত কয়েকজনের নামে প্রতারণার মামলা দায়ের করেছি।

উল্লেখ্য, মঞ্জুর আহমেদ ২০০৭ সালে বান্দরবান জেলার উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোতে অফিস সহকারি হিসেবে যোগদান করেন। পরবর্তীতে সে বান্দরবান জেলা উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর সহকারি পরিচালক হিসেবে পদোন্নতি পায়। দীর্ঘদিন একই কর্মস্থলে কর্মরত থাকার সুবাদে তিনি বিভিন্ন অপকর্মের সাথে জড়িয়ে পড়েছেন। এরআগে ভূয়া প্রত্যয়ন প্রদান করার বিষয়টি জেলাজুড়ে তোলপাড় শুরু হয়।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো, জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × four =

আরও পড়ুন