বিজিবি-বিজিপির রিজিয়ন কমান্ডার পর্যায়ে সম্মেলন অনুষ্ঠিত

fec-image

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিজিপি) এর রিজিয়ন কমান্ডার পর্যায়ে সীমান্ত সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার (১ জুন) মিয়ানমারের মংন্ডুতে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থাপনা, মিয়ানমার হতে অবৈধভাবে ইয়াবা, ক্রিস্টাল মেথ (আইস) সহ বিভিন্ন মাদকদ্রব্য পাচার, মিয়ানমার হতে বাংলাদেশে অবৈধ অনুপ্রবেশ রোধ, আন্তঃ সীমান্ত অপরাধ দমন, সীমান্ত এলাকায় সন্ত্রাসী/দুষ্কৃতিকারীদের ক্যাম্প/আস্তানা অপসারণ, সীমান্তে ইম্প্রোভাইসড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস (IED) স্থাপন সম্পর্কে আলোচনা হয়।

এছাড়াও মিয়ানমারের কাঁটাতারের বেড়ায় বৈদ্যুতিক সংযোগ স্থাপন, অসতর্কতা বা ভুলবশত আন্তর্জাতিক সীমানা অতিক্রম করে মিয়ানমারের অভ্যন্তরে প্রবেশের পর আটককৃত বাংলাদেশি নাগরিকদের দ্রুত ফেরত প্রদানের বিষয়টি ত্বরান্বিত ও সহজীকরণ, সীমান্তের নানাবিধ সমস্যা নিরসনকল্পে উভয় দেশের বর্ডার লিঁয়াজো অফিস (বিএলও) এর কার্যক্রম পূর্ণরূপে সক্রিয়করণ, বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তে যৌথ সমন্বিত টহল পরিচালনা ও পিলার পরিদর্শন ইত্যাদি বিষয়ের উপর বিস্তারিত ও ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে।

এছাড়াও মিয়ানমারে কারাভোগ শেষে স্বদেশে প্রত্যাবাসনের জন্য অপেক্ষমান বাংলাদেশি নাগরিকদের হস্তান্তর প্রক্রিয়া দ্রুত সম্পন্নের বিষয়েও সম্মেলনে ফলপ্রসূ আলোচনা করেন দুই দেশের প্রতিনিধিবৃন্দ।

দুই দেশের সীমান্ত সম্মেলনে বিজিপি কমান্ডার General Htet Lwin-এর নেতৃত্বে ১৫ সদস্যের প্রতিনিধিদল অংশগ্রহণ করেন।

অপরদিকে, বিজিবি’র ১৬ সদস্যের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্বে দেন কক্সবাজার রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাজম-উস-সাকিব।

বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলে বিজিবি’র ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ছাড়াও স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দও ছিলেন।

বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল মিয়ানমারের মন্ডুতে পৌঁছালে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান মিয়ানমার প্রতিনিধিদল।

বিজিবি প্রতিনিধিদলের প্রধানকে মায়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিজিপি) কর্তৃক ‘গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়।

এই সম্মেলনের মাধ্যমে বিজিবি প্রতিনিধিদল মিয়ানমারে কারাভোগ শেষে স্বদেশে প্রত্যাবাসনের জন্য অপেক্ষমান ০৪ জন বাংলাদেশি নাগরিককে ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে বলে জানান জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. শরিফুল ইসলাম।

সম্মেলনে সীমান্তবর্তী জনসাধারণের নিরাপত্তা এবং সীমান্তে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে উভয় প্রতিনিধিদলের প্রধান একসাথে কাজ করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

সম্মেলন শেষে বিকেলে বাংলাদেশে প্রত্যাবর্তন করেন বিজিবি প্রতিধিদল।

উল্লেখ্য, সর্বশেষ সীমান্ত সম্মেলন ২০১৯ সালের ১৯ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হয়।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: বিজিপি, বিজিবি, মিয়ানমার
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 + 16 =

আরও পড়ুন