দুই যুগেও হয়নি সেই গণহত্যার বিচার

‘মিথ্যা মিটিং করার কথা বলে ৩৫কাঠুরিয়াকে হত্যা করে শান্তিবাহিনী’

fec-image

১৯৯৬ সালের ৯ সেপ্টেম্বর রাঙ্গামাটি জেলার পাকুয়াখালীতে মিথ্যা মিটিং করার কথা বলে ডেকে নিয়ে নিরীহ ৩৫ কাঠুরিয়াকে নির্মমভাবে হত্যা করে সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন শান্তিবাহিনী। সেই নির্মম গণহত্যার প্রায় দুই যুগ পেরিয়ে গেলেও এখনো বিচার হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের নেতাকর্মীরা।

বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) সকালে রাঙ্গামাটি কাঠ ব্যবসায়ী সমিতির সম্মেলন কক্ষে পাকুয়াখালী গণহত্যা দিবস’র স্মরণে শোকসভা ও দোয়া মাহফিলে এসব কথা বলেন বক্তারা।

সভায় বক্তারা আরও বলেন, শান্তিবাহিনী সেদিন এতগুলো মানুষকে হত্যা করতে একটি বুলেটও ব্যবহার করেনি। হাত-পা বেঁধে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে, দা-দিয়ে কুপিয়ে এবং বন্দুকের বেয়নেট ও অন্যান্য দেশি অস্ত্র দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে নানাভাবে কষ্ট দিয়ে হত্যা করেছিল এই অসহায় মানুষগুলোকে। প্রতিটি লাশকেই বিকৃত করে সেদিন চরম অমানবিকতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছিল তারা। তাই নৃশংসহত্যাকান্ডের বিচার জোর দাবি জানান এবং চিরুনী অভিযান চালিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করে সন্ত্রাসী সংগঠন জেএসএস এবং ইউপিডিএফ সংগঠনকে নিষিদ্ধের দাবি জানান বক্তারা।

এ সময় সভায় বক্তব্য রাখেন,পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের কেন্দ্রীয় মহাসচিব আলমগীর কবির, পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের রাঙ্গামাটি জেলা সভাপতি মোঃ ছাব্বির আহমেদ, সহ-সভাপতি নাদিরুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ সোলাইমান এবং দপ্তর সম্পাদক মোঃ হাবিব আজম প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: ইউপিডিএফ, গণহত্যা, গণহত্যা দিবস
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × four =

আরও পড়ুন