মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সব অ্যাকাউন্ট-বিজ্ঞাপন বন্ধ করলো ফেসবুক

fec-image

সামরিক বাহিনী ক্ষমতা দখলের পর থেকেই উত্তাল মিয়ানমার। দেশটিতে গত কয়েক সপ্তাহের বিক্ষোভে এখন পর্যন্ত তিনজন আন্দোলনকারী এবং একজন পুলিশ সদস্য নিহত হয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী সংশ্লিষ্ট সব অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়া জায়ান্ট ফেসবুক। বৃহস্পতিবার একই সঙ্গে সেনা নিয়ন্ত্রিত সব কোম্পানির বিজ্ঞাপনও ফেসবুক থেকে সরিয়ে নেওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

ফেসবুকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, আমরা বিশ্বাস করি মিয়ানমার সেনাবাহিনী ফেসবুক এবং ইনস্টাগ্রামে থাকার অনুমতি দেয়া হলে তা হবে বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। ২০২০ সালের মিয়ানমার নির্বাচনে জালিয়াতির অভিযোগ ফেসবুকের মাধ্যমে ছড়িয়ে দিতে চেয়েছিলো মিয়ানমার সেনাবাহিনী।

এর আগে মিয়ানমার সেনাবাহিনী পরিচালিত মূল পেজটি মুছে দিয়েছে ফেসবুক। গত রবিবার সামাজিক যোগাযোগের প্লাটফর্মটি জানায় সহিংসতায় উসকানির নীতিমালা ভঙ্গ করায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এছাড়া ফেসবুকের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান ইনস্টাগ্রামেও একই নিষেধাজ্ঞা বহাল রয়েছে।

নতুন সেনা সংশ্লিষ্ট সব অ্যাকাউন্ট ও বিজ্ঞাপন বন্ধ করে দিয়ে ফেসবুক জানিয়েছে, অভ্যুত্থান পরবর্তী সময়ের বিক্ষোভে প্রাণঘাতী সহিংসতার কারণে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এছাড়া দেশটির অভ্যুত্থান পরবর্তী পরিস্থিতিকে জরুরি অবস্থা বিবেচনা করার কথা জানিয়েছে ফেসবুক।

উল্লেখ্য, মিয়ানমারে ঘৃণাবাদী প্রচারণা ঠেকাতে ব্যর্থতার জন্য আন্তর্জাতিক সমালোচনার মুখে পড়ে ফেসবুক গত কয়েক বছর ধরেই দেশটির নাগরিক অধিকার কর্মী এবং রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে নিবিড়ভাবে কাজ শুরু করেছে। ২০১৮ সালে ফেসবুক মিয়ানমারের সেনাপ্রধান মিন অং হ্লাইং ছাড়াও আরও ১৯ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে নিষিদ্ধ করে। এছাড়া সমন্বিতভাবে ঘৃণা ছড়ানোর দায়ে সেনা সদস্যদের পরিচালিত শত শত পেজ ও অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেওয়া হয়। সূত্র : বিবিসি

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: ফেসবুক, মিয়ানমার, সেনাবাহিনীর
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fourteen + 20 =

আরও পড়ুন