রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৬ মাসে ৪ লাখ ইয়াবাসহ ১৪১৬ জন রোহিঙ্গা আটক

fec-image

কক্সবাজারের উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গত ৬ মাসে ১৪ এপিবিএনের অভিযানে ৪ লাখ ইয়াবা ও ১৫টি দেশি-বিদেশি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার এবং ১৪১৬ জন রোহিঙ্গা দুষ্কৃতিকারীকে আটক করা হয়েছে।

কক্সবাজার ১৪ এপিবিএন আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক (পুলিশ সুপার) মো. নাইমুল হক পিপিএম জানান, কক্সবাজারে ৩৩টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মধ্যে ১৪ এপিবিএন ১৫টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নিরাপত্তা দিয়ে আসছে। ৮ এপিবিএন ১১টি ক্যাম্পের এবং ১৬ এপিবিএন ৭টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নিরাপত্তা দিচ্ছে।

অধিনায়ক বলেন, রোহিঙ্গা দুষ্কৃতিকারীদের দমনে ১৪ এপিবিএন সব সময় সাহসী সব পদক্ষেপ নিয়ে আসছে। দীর্ঘদিন রোহিঙ্গা ক্যাম্প শান্ত থাকার পর গত মাসে ১৪ এপিবিএনের আওতাধীন এলাকায় ৩ টি মার্ডার হয়। হত্যাকান্ড হবার পরপরই মামলা রুজু হবার পর ১৪ এপিবিএন পুলিশের কঠোর পদক্ষেপে এজাহার নামীয় অধিকাংশ আসামিকে গ্রেফতার করে। হত্যাকাণ্ডের পর আসামিদের গ্রেপ্তার এবং তথাকথিত বিভিন্ন গ্রুপের সদস্যদের গ্রেফতারে ১৪ এপিবিএন স্থায়ী চেকপোস্ট সহ বিভিন্ন স্থানে অস্থায়ী চেকপোস্ট, ফিক্সড পোস্ট, ব্লকের রেইড সহ বিভিন্ন ধরনের বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে আসছে।

তিনি বলেন, ২০২২ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৩০শে জুন ২০২২ পর্যন্ত ১৪ এপিবিএন পুলিশ রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আইনশৃঙ্খলা সমুন্নত এবং স্থিতিশীল রাখার স্বার্থে বিভিন্ন ধরনের অভিযান পরিচালনা করে আসছে । গত ছয় মাসে এ পর্যন্ত ৩টি বিদেশি পিস্তল, ১২টি দেশীয় আগ্নেয়াস্ত্র, ২০ রাউন্ড গুলি, ১৭ রাউন্ড কার্তুজ, ৩টি ম্যাগজিন, ২০০ এর অধিক বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

এ সংক্রান্ত গত ৬ মাসে ১৫টি অস্ত্র মামলা রুজু হয় এবং ১৯ জন অবৈধ অস্ত্রধারীকে গ্রেফতার করা হয়। ক্যাম্প এলাকায় ডাকাতি করার মুহূর্তে ডাকাতদের গ্রেপ্তার করে ১০টি ডাকাতি প্রস্তুতি মামলা রুজু করে এবং ৫২ জন রোহিঙ্গা দুষ্কৃতিকারীকে আটক করেছে ১৪ এপিবিএনের সদস্যরা। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করে গত ছয় মাসে উদ্ধারকৃত মালামালের মধ্যে রয়েছে ৩ লাখ ৯৩ হাজার ৫১৯ পিস ইয়াবা, ৩ কেজি ৬৯ গ্রাম গাজা, বিয়ার ক্যান ১৮৮, ১২ বোতল হুইস্কি, বাংলা মদ ৬২৫৪ মিলি উদ্ধার করা হয়। এসময় মাদক ক্রয় বিক্রয়ের ৯,৩৬,৭৩০ টাকা জব্ধ করে এপিবিএন।

মো. নাইমুল হক আরও বলেন, এসব ঘটনা মামলা রুজু করা হয় ১৫৪টি এবং ২০৩ জন আসামিকে গ্রেফতার করে কোর্টে প্রেরণ করা হয়েছে। তাছাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে চোরাকারবারিদের বিরুদ্ধেও নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করে আসছে ১৪ এপিবিএন সদস্যরা।

গত ৬ মাসে এপর্যন্ত ২২৬ গ্রাম স্বর্ণ, ১২৮৪০ কেজি চাল, ১১৯৫ কেজি চিনি, ১৮২৩ লিটার সয়াবিন তেল, ৮১৪ কেজি ডাল, ২১৭ কেজি সুজি সহ আরো অনেক চোরাচালান পন্য জব্দ করা হয় এবং ৫৬১জন রোহিঙ্গাকে মোবাইল কোর্ট দ্বারা ৫,০১,৩০০ টাকা জরিমানা করা হয় এবং ৫৪ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করা হয়েছে।

১৫ টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বিভিন্ন অভিযান পরিচালনা করে গত ছয় মাসে ২০১ একটি মামলা দায়ের করে এবং ১৪১৬ জন রোহিঙ্গা দুষ্কৃতিকারীকে আটক করা হয়। যার মধ্যে কথিত আরসার সদস্য রয়েছে ৪১৪ জন এবং মুন্না গ্রুপের সদস্য রয়েছে ৯ জন। অপরাধীদের বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অভিযান অব্যাহত রয়েছে এই অধিনায়ক জানান।

 

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

20 − three =

আরও পড়ুন