বাসন্তি চাকমার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ বাঙালি ছাত্র পরিষদের

প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে অনুদান এনে বন্যার্তদের না দিয়ে বৌদ্ধ বিহারে বিতরণ 

fec-image

পার্বত্য চট্টগ্রামের মহিলা সংসদ সদস্য বাসন্তী চাকমা প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল হতে কয়েক লক্ষ টাকা অনুদান হিসেবে নিয়ে এসে তার ন্যায্য প্রাপ্যদার বন্যার্তদের মাঝে বিতরণ না করে বৈশাখী পূর্ণিমা উপলক্ষে খাগড়াছড়ির ৫৬ টি বৌদ্ধ বিহারে বিতরণ করেছে অভিযোগ করে এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদ।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) দুপুরে সংগঠনটির খাগড়াছড়ি জেলা শাখার অস্থায়ী কার্যালয়ে আয়োজিত এক সভায় নেতৃবৃন্দ এ প্রতিবাদ জানান। জেলা সভাপতি মুহাম্মদ আসাদুল্লাহ আসাদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন জেলা শাখার সিনিয়র সহ-সভাপতি সুমন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক মোঃ শাহাদত হোসেন কায়েশ, মোঃ সাইফুল ইসলাম, মোহাম্মদ শামীম হোসেন, মোহাম্মদ সোহেল রানা, সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ আশ্রাফুল আলম রনি।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মোঃ শাহাদত হোসেন কায়েশ খাগড়াছড়ি জেলা শাখা কর্তৃক স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানান।

বিজ্ঞপ্তিতে বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, বাসন্তী চাকমা প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল থেকে বন্যার্তদের জন্য অর্থ এনে অসহায় বন্যার্তদের পাশে না দাঁড়িয়ে, মানবতার ডাকে সাড়া না দিয়ে গতকাল ১৫ই জুলাই বৈশাখী পূর্ণিমা উপলক্ষে খাগড়াছড়ি সদরসহ বিভিন্ন উপজেলার ৫৬টি বৌদ্ধবিহারে ৭ লক্ষ ৭৩ হাজার টাকার অনুদানের চেক প্রদান করেন। তারা বলেন, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে ধর্মীয় অর্থ ব্যয় করলে কোন সমস্যা নেই। কিন্তু বন্যার মতো ভয়াবহ দুর্যোগ চলাকালে একজন সংরক্ষিত সংসদ সদস্য কিভাবে ত্রাণ তহবিলের অর্থ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে ব্যয় করেন?

সংগঠনের নেতারা বলেন, প্রধানমন্ত্রী স্বয়ং যেখানে দলীয় নেতাকর্মীদের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়াতে বলেছেন, সেখানে উগ্র সাম্প্রদায়িক সাংসদ ও শান্তিবাহিনীর বোন বাসন্তী চাকমা আবারো নিজের চরিত্রের ফিরে গেছেন।

এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানানোর পাশাপাশি এর প্রতিবাদে আগামীকাল ১৭ই জুলাই খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করার কথা জানিয়েছেন পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের নেতাা।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: অনুদান, পার্বত্য চট্টগ্রাম, প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fourteen − 9 =

আরও পড়ুন