কুতুপালংয়ে রোহিঙ্গাদের ফ্রি চিকিৎসা সেবায় রেডক্রিসেন্টের ১০০ শয্যার ফিল্ড হাসপাতাল

ঘুমধুম প্রতিনিধি:

মিয়ানমার সরকারের দমন পীড়নে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের চিকিৎসা সেবায় ১০০ শয্যার ফিল্ড  হাসপাতাল করেছে আন্তর্জাতিক রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি। কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্প সংলগ্ন (টিভি রিলে উপকেন্দ্রের) বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম রাবার বাগানের ভিতরে ছোট -ছোট তাবু টাঙ্গিয়ে হাসপাতালের যাত্রা।

অনানুষ্ঠানিক ভাবে গত ১৬ অক্টোবর থেকে আপাতত ৬০ শয্যার (বেডে) চিকিৎসা সেবা দিচ্ছে রোহিঙ্গাদের, এমন তথ্য নিশ্চিত করেছেন হাসপাতালের সমন্বয়কারী হিসেবে দায়ীত্বরত মো. বেলাল হোসাইন সরদার। তাদের ৪০ শয্যার আরো একটি কলেরা ইউনিট খোলার পরিকল্পনা রয়েছে। তা প্রয়োজন স্বাপেক্ষে অচীরেই হবে বলে তিনি জানান।

তিনি আরো জানান, হাসপাতালটি ৩টি ওয়ার্ডে বিভক্ত করে  পুরুষ, মহিলা ও শিশু ওয়ার্ড খোলা হয়েছে। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির পরিচালনায় ও ফিনল্যান্ডের( ফিনিশড এনজিও) এবং নরওয়ের অর্থায়নে  হাসপাতালটিতে এইচআইভি,কলেরা, টিবি, অপারেশন,  জটিল ও কঠিন রোগের পরীক্ষা -নিরীক্ষা কেন্দ্রসহ সব ধরণের রোগের চিকিৎসা সেবা দিতে স্থাপন করা হয়েছে সর্বোচ্চ প্রযুক্তির অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা ও প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, রোহিঙ্গাদের পাশাপাশি স্থানীয়দেরও চিকিৎসা সেবা দিতে স্থাপন করা হয়েছে অপারেশন থিয়েটার, রেডিওলজি ল্যাব, এক্সরে মেশিন সহ প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি। চিকিৎসা সেবা দিতে ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব রেডক্রস ও রেড  ক্রিসেন্ট সোসাইটির ( আইএফআরসি) নিযুক্ত ১৫ বিদেশী বিশেষজ্ঞ ডাক্তার, ১৫ বিদেশী অভিজ্ঞ নার্স এবং বাংলাদেশী ১২জন সহ ৪২জন ডাক্তার -নার্স নিয়মিত চিকিৎসা সেবা দিচ্ছে।

গত ১৬ অক্টোবর থেকে চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম শুরু করেছে। প্রতিদিন গড়ে ২৫০ থেকে ৩০০ মত রোগীর চিকিৎসা পথ্য দেওয়া হচ্ছে। আগামী ৪ মাস পর্যন্ত চিকিৎসা কার্যক্রম রোহিঙ্গা ও স্থানীয়দের জন্য উম্মুক্ত থাকবে বলে চিকিৎসকদের প্রধান সমন্বয়কারী ডাক্তার মোহাম্মদ মহসিন জানিয়েছেন। কোন -কোন দিন অপারেশন করা হচ্ছে। ২৬ অক্টোবর এক রোহিঙ্গা মহিলার সফল অপারেশনের কথাও জানান।

কক্সবাজারস্থ বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের চেয়ারম্যান ও কক্সবাজার জেলা পরিষদ প্রশাসক মোস্তাক আহমদ চৌধুরী জানিয়েছেন, ১৬ অক্টোবর থেকে অনানুষ্ঠানিক ভাবে রোহিঙ্গাদের চিকিৎসা ও স্বাস্থ্য সেবা কার্যক্রম শুরু হয়। ২৫ অক্টোবর ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব রেডক্রস এন্ড রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির (আইএফআরসি) ‘র সেক্রেটারি আলহাজ্ব  আস সাঈদ ওই হাসপাতাল পরিদর্শন করে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

এসময় বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির চেয়ারম্যান হাফিজ আহমেদ, ভাইস চেয়ারম্যান হাবিবের মিল্লাত সাথে ছিলেন। তিনি আরো বলেন, শুধু রোহিঙ্গা নয় স্থানীয়দেরও চিকিৎসা সেবা ও ঔষধ পথ্য প্রদান করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

19 + 18 =

আরও পড়ুন