আড়াই লাখ টাকায় সমঝোতা: অত:পর শ্রমিকের মরদেহ দাফন

fec-image

দীর্ঘ বিশ ঘন্টা পর আড়াই লাখ টাকায় সমঝোতায় দাফন করা হয়েছে এক বিদ্যুৎ শ্রমিকের মরদেহ। শ্রমিকের নাম মো. বাপ্পী (২৮)। তিনি রাঙামাটি শহরের মোল্লা পাড়া এলাকার বিদ্যুৎ শ্রমিক মো. কুদ্দুসের ছেলে।

শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে নিহতের স্বজন থেকে জানা গেছে, শুক্রবার সকালে রাঙামাটি বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগের পক্ষ থেকে শহরের দেবাশিষ নগর এলাকায় বিদ্যুতের খুঁটি অপসারণের কাজ চলছিলো। যে কারণে শহরে সকাল থেকে বিদ্যুৎ বন্ধ রাখার ঘোষণা করে বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগ।

ওই কাজে অংশ নেন বিদ্যুৎ শ্রমিক মো. বাপ্পী। হঠাৎ করে বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগ বিদ্যুৎ সঞ্চালন চালু করে দিলে শ্রমিক বাপ্পী গুরুতর আহত হন। ঘটনাস্থল থেকে তার সহকর্মীরা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে রাঙামাটি সদর হাসাপতাল পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করেন। ওইদিন সন্ধ্যায় চট্টগ্রামে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। রাতে তার মরদেহ রাঙামাটিতে নিয়ে আসা হলে তার সহকর্মী এবং বন্ধু-বান্ধবরা মিলে বিদ্যুৎ অফিস ঘেরাও করে। পরে বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ আন্দোলনকারীদের সাথে আপোষ করে এবং ঘটনাটি ধাপাচাপা দেয়।

অবশেষে দীর্ঘ বিশ ঘন্টা পর মাত্র আড়াই লাখ টাকার বিনিময়ে শ্রমিক বাপ্পীর মরদেহটি মোল্লাপাড়া এলাকায় দাফন করা হয়।

সূত্রটি আরও জানায়, বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগ মরদেহটি দাফনের জন্য পঞ্চাশ হাজার টাকা নগদ এবং দাফনের পর নিহতের পরিবারকে নগদ দুই লাখ টাকা প্রদানের আশ্বাস দেন। পাশাপাশি নিহত শ্রমিক বাপ্পীর স্ত্রীকে একটি চাকরি এবং তার সন্তানের লেখা-পড়ার খরচ চালানো হবে বলেও জানানো হয়েছে।

রাঙামাটি বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সবুজ কান্তি মজুমদার বলেন, এটা একটা দুর্ঘটনা। আমরা আমাদের বিভাগ থেকে সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি নিহতের পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

15 − 2 =

আরও পড়ুন