“ইউপিডিএফ গণতন্ত্রিকের কেন্দ্রীয় সভাপতি শ্যামল কান্তি চাকমা অভিযোগ করেন, প্রসীতের নেতৃত্বে ইউপিডিএফ সম্পূর্ণ অগণতান্ত্রিক, বলপ্রয়োগের রাজনীতি, চাঁদাবাজি, গুম, খুন ও অপহরণের রাজনীতি করছে। বাজার বন্ধ করে দিয়ে ব্যবসায়ীদের কাছ খেকে চাঁদা আদায় করছে।”
সংবাদ সম্মেলনে

জেএসএস-ইউপিডিএফ(মূল) নিষিদ্ধ করার দাবি জানালো ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিক

fec-image

ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিকের কোন সশস্ত্র শাখা নেই। নেই কোন ক্যাডার বাহিনী। ইউপিডিএফ প্রসীত গ্রুপের অন্যায়-অত্যাচার থেকে সাধারণ মানুষকে রক্ষার জন্য ইউপিডিএফ গণতন্ত্রিকের জন্ম। পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়নের মাধ্যমে নতুন প্রজন্মের জন্য কাজ করছে ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিক।

মঙ্গলবার (৭ মে) খাগড়াছড়ি শহরের একটি রেস্টুরেন্টে স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভায় ইউপিডিএফ গণতন্ত্রিকের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ এ কথা বলেন।

ইউপিডিএফ গণতন্ত্রিকের কেন্দ্রীয় সভাপতি শ্যামল কান্তি চাকমা অভিযোগ করেন, প্রসীতের নেতৃত্বে ইউপিডিএফ সম্পূর্ণ অগণতান্ত্রিক, বলপ্রয়োগের রাজনীতি, চাঁদাবাজি, গুম, খুন ও অপহরণের রাজনীতি করছে। বাজার বন্ধ করে দিয়ে ব্যবসায়ীদের কাছ খেকে চাঁদা আদায় করছে।

তিনি বলেন, ইউপিডিএফ গণতন্ত্রিক চাঁদাবাজি করে না। সাধারণ মানুষের সহযোগিতায় সংগঠণ পরিচালিত হয়। পাহাড়ি-বাঙালিদের বুদ্ধিজীবীদের পরামর্শে আমাদের সংগঠণ পরিচালিত হচ্ছে।

ইউপিডিএফ গণতন্ত্রিকের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক রিপন চাকমা বলেন, ১৯৯৪ থেকে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের সাথে জড়িত ছিলাম। পরবর্তিতে ২০১৪ সাল পর্যন্ত প্রসীতের ইউপিডিএফ’র সাথে জড়িত ছিলাম।  প্রসীতের ইউপিডিএফ’র নানা অপকর্মের অপকর্মের প্রতিবাদ করতে গিয়ে সংগঠন ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনের ফিরে এসেছিলাম। কিন্তু আমাকে শান্তিতে থাকতে দেওয়া হয়নি।

প্রসীতের ইউপিডিএফ আমার পরিবারের উপর নির্মম নিয়াতন চালিয়েছে। বাগান লুট করেছে। আমাকে অপহরণ করে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে। ফলে বাধ্য হয়ে নতুন সংগঠনের জন্ম দিয়েছি। যারা আমার মত প্রসীতের ইউপিডিএফ ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনের ফিরে এসেছে কেউ তার সন্ত্রাসী বাহিনীর হাত থেকে রক্ষা পায়নি।

তিনি অভিযোগ করেন, প্রসীতের ইউপিডিএফ চাঁদাবাজিসহ নানা অপকর্ম করে আমাদের সংগঠনের নাম বিক্রি করছে। তিনি স্থানীয় সাংবাদিকদের সহযোগিতা কামনা করেন।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: ইউপিডিএফ, ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিক
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

13 + 12 =

আরও পড়ুন