ইরানি নেভির প্রতিরোধের মুখে পালিয়ে গেল মার্কিন নেভি জাহাজ (ভিডিও)

fec-image

ওমান সাগরে আন্তর্জাতিক জলসীমায় জ্বালানি তেলবাহী একটি ইরানি সুপার ট্যাংকারকে আটক করে সেটি হতে তেল অন্য আরেকটি ট্যাংকারে সরিয়ে নিতে থাকে মার্কিন নৌবাহিনী। বিষয়টি জানতে পারার সাথে সাথে ইরানের ইসলামিক রেভ্যুলেশন গার্ড কোর (আইআরজিসি) নেভী দ্রুত হেলিকপ্টারে তাদের নৌকমান্ডো, ১০-১৫ টি ভারীগান সজ্জিত বিশেষ নেভাল স্পীড বোট ও বিভিন্ন প্রকারের ড্রোন প্রেরণ করে ট্যাংকারটি উদ্ধারে।

ইরানের ফারস নিউজ এজেন্সির পার্সিয়ান শাখা থেকে পুরো ঘটনার বিস্তারিত বিবরণসহ তিনটি ভিডিও টুইট করা হয়। ভিডিওগুলো পর্যবেক্ষণে দেখা যাচ্ছে ইরানের নৌ কমান্ডোরা হেলিকপ্টার হতে অবতরণ করে একটি বিশাল তেলবাহী ট্যাংকারের নিয়ন্ত্রণ নিচ্ছে এবং ১০-১৫ টি ভারীগান সজ্জিত ইরানি নেভীর বিশেষ স্পীড বোট ট্যাংকাটির নিকটে এসে পৌছেছে ও একটি মার্কিন যুদ্ধ জাহাজ ক্রমশ ট্যাংকারটি হতে দূরে সরে যাচ্ছে।

পুরো বিষয়টি অত্যাধুনিক ইরানি অপারেশনাল কন্ট্রোল রুম হতে নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। এক পর্যায়ে ইরানি নেভীর পক্ষ হতে মার্কিন যুদ্ধজাহাজের সাথে যোগাযোগ করে আগমনের কারণ বিস্তারিত জানানোর জন্য বলা হয় এবং মার্কিন যুদ্ধ জাহাজ হতে আন্তর্জাতিক জলসীমায় অনুসন্ধান ও টহল চালিয়ে যাবে বলে জবাব দিতে শোনা যায়। মাত্র ৫০-১০০ মিটার দূরত্বের মধ্যে মুখোমুখি অবস্থায় চলে আসায় মার্কিন যুদ্ধ জাহাজ ও ইরানি নেভাল স্পীড বোট গুলোর মধ্যে যুদ্ধ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে ইরানি নেভাল স্পীড গুলোর প্রহরায় ট্যাংকারটি একদিকে এবং মার্কিন যুদ্ধ জাহাজ গুলো অন্য আরেক দিকে চলে যেতে দেখা যায়। ঘটনার পুরোটা সময় মার্কিন যুদ্ধজাহাজ গুলো ইরানি ড্রোনের নিশানায় ছিল এবং মার্কিন নৌসেনাদের নির্লিপ্ত হতাশ দাড়িয়ে থাকা ভিডিওতে স্পষ্টভাবে দেখানো হয়।

ইরানি জ্বালানি মন্ত্রী জাবেদ ওজি “মার্কিন জলদস্যুদের” হাত থেকে তেলবাহী ট্যাংকার উদ্ধারের জন্য আইআরজিসি নেভীর ভূয়সী প্রশংসা করেছেন বলে জানিয়েছে ফারস নিউজ। প্রতিবেদনে আরো বলা হয় সকল ধরনের আন্তর্জাতিক আইন-কানুন ও রীতিনীতি অমান্য করে পরিস্থিতি খারাপ করার একটি হীন মার্কিন অপচেষ্টা আইআরজিসি নেভী রুখে দিয়েছে।

অতি সম্প্রতি আইআরজিসি নেভী পরিদর্শনকালে আইআরজিসি প্রধান মেজর জেনারেল হুসেইন সালামি বলেন, “আইআরজিসি নেভীর পারস্য উপসাগর এবং হরমুজ প্রণালীতে আধুনিক ইলেকট্রনিক ওয়ারফেয়ার মাধ্যম পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ রয়েছে।” এর সাথে তিনি আরো যোগ করেন, ‘ইরানের শত্রুদের বোঝা উচিত তাদের যে কোন আকৃতির ইরান বিরোধী কার্যক্রম (উপসাগরীয় অঞ্চলে) সহ্য করা হবে না এবং তারা দ্রুত দৃঢ়সংকল্পবদ্ধ কঠোর জবাব পাবে।” আফগানিস্তানের হতে সৈন্য প্রত্যাহারের পর এই ঘটনার ভিডিও প্রকাশে অনেকেই উপসাগরীয় অঞ্চলে মার্কিনীদের আধিপত্যের দিন শেষ বলে মন্তব্য করছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন তথ্য প্রচারকারী একটি গ্রুপ টুইট করেছে ইরানি ট্যাংকারটি মূলতঃ ইরানের মতো আরেক মার্কিন নিষেধাজ্ঞা কবলিত দেশ ভেনেজুয়েলায় যাচ্ছিল এবং জানতে পেরে মার্কিন নৌবাহিনী আন্তর্জাতিক জলসীমায় এটিকে আটক করে একটি সৌদি ট্যাংকারে তেল সরিয়ে নিচ্ছিল। সৌদি ট্যাংকারটিকে আটক করেছে ইরানি নৌবাহিনী। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মার্কিন নৌবাহিনী কোন অফিশিয়াল বক্তব্য প্রদান করেনি এবং ইরানি কর্তৃপক্ষ সৌদি ট্যাংকারের সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে কোন মন্তব্য জানায়নি।

তথ্যসূত্রঃ ফারস নিউজ এজেন্সি, টুইটার

ভিডিও

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

12 − 2 =

আরও পড়ুন