চকরিয়ায় রাতের আঁধারে কৃষকের ধান ক্ষেতে সন্ত্রাসী তাণ্ডব

fec-image

কক্সবাজারের চকরিয়ায় চলতি আমন মৌসুমের এক কৃষকের পঞ্চাশ শতক জমির রোপিত ধান রাতের আঁধারে শত্রুতার জের ধরে গুড়িয়ে দিয়ে সন্ত্রাসী তাণ্ডব চালিয়েছে। এনিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত জমির কৃষক মানিক সিকদার স্থানীয় চেয়ারম্যানকে অবগত করে তিনি বাদী হয়ে নয়জনকে অভিযুক্ত করে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

শুক্রবার ভোর রাতে উপজেলার বিএমচর ইউনিয়নস্থ উত্তর বহদ্দার কাটা এলাকায় এ ন্যাক্কার জনক ঘটনা ঘটে।

অভিযোগ সূত্রে জানাগেছে, উপজেলার বিএমচর ইউনিয়নের উত্তর বহদ্দার কাটা এলাকার মৃত কালু সিকদারের পুত্র মানিক সিকদার গংয়ের ভেওলা মানিকচর মৌজার বিএস ৫৭৬ নম্বর খতিয়ানের বিএস ১৩৫০ ও ১৩৫১ দাগের এবং তার নামে সৃজিত-২৬০২নম্বর খতিয়ানের একই দাগের ৫০শতক জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে একই এলাকার মৃত জালাল আহমদের ছেলে আবু বক্কর এর মাঝে। মানিক সিকদার তার পৈত্রিক ও ক্রয়সূত্রে ভোগদখলীয় জমিতে দীর্ঘদিন ধরে চাষাবাদ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে।

শুক্রবার ভোররাতে মানিক সিকদার গংয়ের ৫০ শতক জমির সম্পূর্ণ রোপিত ধান রাতের আঁধারে শত্রুতার জের ধরে গুড়িয়ে দিয়ে সন্ত্রাসী তাণ্ডব চালিয়েছে একদল দখলবাজ চক্র। বিভিন্ন সময় ওই জায়গায় ভাড়াটে সন্ত্রাসী নিয়ে বেশ কয়েকবার জমি দখলে নিতে অনুপ্রবেশ চেষ্টা চালায় উত্তর বহদ্দার কাটা এলাকার আবু বক্কর ও তার ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীরা।

এছাড়াও ওই জমির পাকা ধান চলতি বছরের গত ৫জুন লগডাউনের করোনাকালীন সময়ে রাতের আঁধারে কেটে নিয়ে যায় দখলবাজ সন্ত্রাসীরা। শুক্রবার ভোররাতের ৫০ শতক জমির সম্পূর্ণ রোপিত ধান গুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনা নিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক মানিক সিকদার বাদী হয়ে ৯জনকে অভিযুক্ত করে ৭-৮জনকে অজ্ঞাত দেখিয়ে চকরিয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এতে অভিযুক্ত করা হয়েছে, বিএমচর ইউনিয়নের উত্তর বহদ্দার কাটা এলাকার মৃত জালাল আহমদের ছেলে আবু বক্কর, খলিলুর রহমানের ছেলে ফোরকান, মৃত আলী আহমদের ছেলে মনুর আলম, জালাল উদ্দীনের ছেলে ইব্রাহিম ও মো. ইসমাঈলসহ ৯জনের বিরুদ্ধে।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক মানিক সিকদার সাংবাদিকদের জানান, তার পৈত্রিক ভোগদখলীয় ও ক্রয়কৃত ৫০শতক জমি দীর্ঘদিন ধরে চাষাবাদ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। তার দখলীয় জমিতে স্থানীয় উত্তর বহদ্দার কাটা এলাকার মৃত জালাল আহমদের ছেলে আবু বক্কর ও ফোরকানের নেতৃত্বে ১৫/২০ জন সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে রাতের আধাঁরে ৫০শতক রোপিত ধান গুড়িয়ে তাণ্ডব চালায়। অভিযুক্ত আবু বক্কর নানা অজুহাত দেখিয়ে আমার জায়গার মধ্যে তার ক্রয়কৃত জায়গা রয়েছে দাবি করে তিনি দীর্ঘদিন ধরে নানা ধরণের ঘটনা করে আসছে। এ বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে অবগত করা হয়েছে। শুক্রবার ভোররাতেও একদল ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী নিয়ে শত্রুতার জের ধরে আমার রোপিত ধানের মধ্যে এ ঘটনা করেছে আবু বক্কর বলে দাবি করেছেন ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক। এতে প্রায় দুইলক্ষাধিক টাকার মতো ক্ষতি সাধন করেছে বলে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক মানিক সিকদার জানান।

তিনি আরও বলেন, ৫০শতক জমির রোপিত ধান গুড়িয়ে তাণ্ডব চালানোর বিষয়ে ক্ষতিগ্রস্ত মানিক সিকদার বাদী হয়ে আবু বক্কর ও ফোরকানসহ ৯জনকে অভিযুক্ত করে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। থানায় অভিযোগটি আমলে নিয়ে মাতামুহুরী পুলিশ ফাঁড়ির তদন্ত কেন্দ্রের এস আই সিরাজুল ইসলামকে ঘটনার তদন্তের জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।
ঘটনায় জড়িত অভিযুক্ত আবু বক্করের কাছে ঘটনার বিষয়ে জানতে যোগাযোগ করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায় নি।

ঘটনার বিষয়ে তদন্তকারী কর্মকর্তা ও মাতামুহুরী পুলিশ ফাঁড়ির তদন্ত কেন্দ্রের (এস আই) সিরাজুল ইসলাম কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, রোপিত ধান ক্ষেত গুড়িয়ে দেয়ার বিষয়ে থানায় লিখিত একটি অভিযোগ আমাকে তদন্তের জন্য দেয়া হয়েছে। ঘটনাস্থল সরেজমিনে পরিদর্শন করা হয়। বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যানসহ নিষ্পত্তি করতে আমরা চেষ্টা করছি। এরপরও বিষয়টি নিষ্পত্তি করা না গেলে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও তিনি জানান।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eighteen − fourteen =

আরও পড়ুন