পর্যটকদের জন্য নতুনরূপে উন্মোচিত হলো রিছাং ঝর্ণা

fec-image

পাহাড়ে ঘুরতে আসা পর্যটকদের কাছে অতি পরিচিত নাম তেরাং তৈকালাই (রিছাং ঝর্ণা)। পর্যটকদের কাছে ‘রিছাং ঝর্ণা’ নামেই অধিক পরিচিত। উঁচু-নীচু সবুজ পাহাড়, বুনোঝোঁপ, নামহীন রঙ্গীন বুনোফুলে ঢাকা পথ পেরিয়ে পর্যটকরা তাদের কল্পনার রাজ্যে তাদের উপস্থিতি জানান দেয়।

খাগড়াছড়ির পর্যটনের ব্যাপক উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাসের হাত ধরে বদলে যেতে শুরু করেছে খাগড়াছড়ির পর্যটনের অন্যতম আকর্ষণ তেরাং তৈকালাই বা রিছাং ঝর্না।উন্নয়নের পাশাপাশি পরিচ্ছন্নতার ছোঁয়া লেগেছে রিছাং ঝর্নার সর্বত্র। বাড়ানো হয়েছে পর্যটকদের সুযোগ সুবিধা।

পর্যটকদের সুযোগ-সুবিধা বাড়ানোর পাশাপাশি পর্যটন কেন্দ্রটির আয় বাড়ানোর জন্য চালু করা হয়েছে টিকিট প্রথা। মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) বিকাল ৪টার দিকে খাগড়াছড়ির জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাসের পক্ষে টিকিট কাউন্টারের উদ্বোধন করেন মাটিরাঙ্গা উপজেলা চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম ও মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজ তৃলা দেব।

এসময় সহকারী কমিশনার (ভুমি) মিজ ফারজানা আক্তার ববি, মাটিরাঙ্গা উপজেলা প্রকৌশলী মো. মনির হোসেন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা রাজ কুমার শীল, মাটিরাঙ্গা সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হিরন জয় ত্রিপুরা, মাটিরাঙ্গা পৌরসভার কাউন্সিলর মো. শহিদুল ইসলাম সোহাগ ও বিআরডিবি চেয়ারম্যান মো. জাকির হোসেন বাবলু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উদ্বোধন শেষে মাটিরাঙ্গা উপজেলা চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, টিকিট ব্যবস্থা চালুর ফলে পর্যটন কেন্দ্রটিতে শৃঙ্খলা ফিরবে। আগত পর্যটকদের সুরক্ষাসহ নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে। পর্যটন কেন্দ্র তেরাং তৈকালাই বা রিছাং ঝর্ণার সৌন্দর্য্য রক্ষায় পর্যটকদের সহযোগিতা কামনা করে তিনি।

খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস মহোদয়ের ব্যাক্তিগত স্বদিচ্ছায় রিছাং ঝর্না বদলে যেতে শুরু করেছে উল্লেখ করে মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজ তৃলা দেব বলেন, রিছাং ঝর্নাকে পর্যটকবান্ধব পরিচ্ছন্ন পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা হবে। পর্যায়ক্রমে পর্যটকদের জন্য সবধরণের সুযোগ সুবিধা বাড়ানো হবে।

প্রসঙ্গত, পর্যটন কেন্দ্র তেরাং তৈকালাই বা রিছাং ঝর্ণা-কে পর্যটক বান্ধব পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার উদ্যোগ গ্রহণ করেন খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস। এ উদ্যোগের অংশ হিসেবে প্রথম পর্যায়ে গাড়ি পার্কিং জোন গড়ে তোলা হয়েছে। পর্যটকদের জন্য টিকিট ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। পর্যটন কেন্দ্রের প্রবেশ দ্বারে টিকিট কাউন্টারসহ বাথরুম তৈরি করা হয়েছে। সবমিলিয়ে নান্দনিকতার ছোঁয়ায় বদলে যেতে শুরু করেছে তেরাং তৈকালাই বা রিছাং ঝর্ণা।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: পাহাড়, রিছাং ঝর্ণা
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

3 × five =

আরও পড়ুন