মানিকছড়িতে অ-উপজাতি স্থায়ী সনদ জালিয়াতি: বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রসহ আটক দুই

fec-image

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা প্রশাসক প্রদত্ত অ-উপজাতি স্থায়ী বাসিন্দা সনদ জালিয়াতি করার অপরাধে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থী মো. আবু বকর সিদ্দিক ও সনদ জালিয়াতিতে সহযোগিতার অপরাধে মো. ফারুক হোসেন(৪০)কে আটক করেছে মানিকছড়ি থানা পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় মেধা তালিকায় উত্তীর্ণ হয় মানিকছড়ি উপজেলার ২১১ নং ডাইনছড়ি মৌজার মো. রফিকুল ইসলাম ও ছকিনা বেগমের পুত্র মো. আবু বকর সিদ্দিক।

পরে সে অ-উপজাতি কোটায় মাইগ্রেশন হয়ে অন্য বিভাগে(ফরেস্টি) ভর্তি হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সময়ে অ-উপজাতি স্থায়ী বাসিন্দা সনদ পত্র দিলে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ওই শিক্ষার্থীর সকল কাগজপত্র যাছাই-বাছাই শুরু করলে অ-উপজাতি স্থায়ী সনদটি খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে প্রেরণ করা হয়।

যাছাইকালে দেখা যায় যে, বিশ্ববিদ্যালয়ে জমাকৃত ওই ছাত্রের সনদটি তার নামে নয়। সেটি একই জেলার মাটিরাঙ্গা উপজেলার তৈলাফাং গ্রামের নুর আলম ও নাসিমা আক্তারের পুত্র মো. শাহ আলমের সনদ জাতিয়াতি করে তার (মো. আবু বকর সিদ্দিক) নামে বিশ্ব বিদ্যালয়ে জমা দেয়া হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর মঙ্গলবার(১১ ফেব্রুয়ারি) মানিকছড়ি থানা পুলিশ প্রথমে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মো. আবু বকর সিদ্দিককে আটক করে এবং তার দেওয়া তথ্যে সনদ উত্তোলনে সহায়তাকারী একই এলাকার প্রতারক মো. ফারুক হোসেন (৪০) পিতা. ফুল মিয়া , সাং-ঢাকাইয়া শিবিরকে আটক করেন।

পরে আটক ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে জালিয়াতি ও প্রতারণার ধারায় ফৌজধারী মামলা রজু পূর্বক জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়। অফিসার ইনচার্জ আমির হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আটক, খাগড়াছড়ি, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × 3 =

আরও পড়ুন