রামুর অসুস্থ বন্ধুর পাশে এসএসসি ৯৯ ব্যাচ উখিয়া

fec-image

দূরারোগ্য টিউমারে আক্রান্ত রামুর বন্ধু ইমাম হোসেনের চিকিৎসা সহায়তায় এগিয়ে এসেছে এসএসসি ৯৯ ব্যাচ উখিয়া শাখার সদস্যরা। রামুতে অসুস্থ বন্ধুকে দেখতে এসে তুলে দিয়েছে ৩১ হাজার টাকার অর্থ সহায়তা। এসএসসি ৯৯ ব্যাচ উখিয়া উপজেলা সভাপতি রফিক উদ্দিন জানান- ইমাম হোসেনের জন্য উখিয়ার বন্ধুরা চিকিৎসা সহায়তা হতবিল গঠন করেছে। আপাতত সংগৃহিত অর্থ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। পরবর্তীতে উখিয়ার বন্ধুরা আরও সহায়তা দেবে।

গত ২২ মে বিকালে রামুর উপজেলার ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের সাতঘরিয়া পাড়াস্থ ৯৯ ব্যাচ রামুর সদস্য অসুস্থ ইমাম হোসেনের বাড়িতে যান এসএসসি ৯৯ ব্যাচ উখিয়া শাখার একঝাঁক সদস্য। এসময় উখিয়ার বন্ধুরা ইমাম হোসেনের পরিবারকে তাৎক্ষণিক ২১ হাজার টাকার অর্থ সহায়তা দেন। ইতিপূর্বে উখিয়া এক সদস্য দেন আরও ১০ হাজার টাকা। এনিয়ে উখিয়ার বন্ধুরা এ পর্যন্ত ইমাম হোসেনের পরিবারকে ৩১ হাজার টাকা অর্থ সহায়তা প্রদান করলো। অর্থ সহায়তা প্রদানকালে এসএসসি ৯৯ ব্যাচ উখিয়া উপজেলা শাখার সভাপতি রফিক উদ্দিন, পারিবারিক মিলনমেলা ‘উম্মিলন’ আহবায়ক পরিষদের সদস্য সচিব রাসেল মোস্তফা, মোহাম্মদ ইছহাক, আবদুস ছালাম, মোশাররফ হোসাইন, জাহাঙ্গীর আলম, দেলোয়ার হোছাইন, পলাশ শর্মা, আকতার কামাল সহ এসএসসি ৯৯ ব্যাচ রামুর সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য ইতিপূর্বে এসএসসি ৯৯ ব্যাচ কক্সবাজার জেলা শাখার পক্ষ থেকে অসুস্থ ইমাম হোসেনের পরিবারকে ৬০ হাজার টাকার অর্থ সহায়তা দেয়া হয়েছে।

এসএসসি ৯৯ ব্যাচ রামুর সকল বন্ধুরা অসুস্থ ইমাম হোসেনের চিকিৎসা সহায়তায় স্বত্বঃস্ফূর্তভাবে এগিয়ে আসায় এসএসসি ৯৯ ব্যাচ কক্সবাজার জেলা শাখা ও উখিয়া উপজেলা শাখার বন্ধুদের প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

ইমাম হোসেনকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন
ইমাম হোসেনের বুকে বাসা বেধেছে টিউমার। এ কারনে ১০ মাস পূর্বে ব্রেইন স্ট্রোক ও প্যারালাইসিস আক্রান্ত হয়ে অবশ হয় ডান হাত-পা সহ শরীরের একাংশ। পরে ঢাকা ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন হাসপাতালে পরীক্ষায় ইমাম হোসেনের বুকে ধরা পড়ে টিউমার। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন- তার বুকের টিউমার অপারেশন অত্যন্ত জটিল। তবে অপারেশন সফলভাবে সম্পন্ন করতে পারলে পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠবে ইমাম হোসেন। এজন্য প্রয়োজন হবে ৫ থেকে ৭ লাখ টাকা।

সহজ সরল বন্ধু ইমাম হোসেন। পাড়ায় সামান্য মুদি দোকান দিয়ে সংসার চালালেও বর্তমানে শয্যাশায়ী। দূরারোগ্য ব্যাধির কারণে স্ত্রী, ৩ সন্তান নিয়ে চরম সংকটময় পরিস্থিতি পার করছে সে। ইমাম হোসেন রামুর ফতেখারকুল ইউনিয়নের সাতঘরিয়া পাড়ার বাসিন্দা। ইতিপূর্বে স্ট্রোক করার পর চিকিৎসা এবং পরে ঢাকায় পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে গিয়ে আর্থিকভাবে নিঃস্ব হয়ে পড়ে সে। যে কারণে অর্থাভাবে অনিশ্চিত হয়ে পড়ে তার অপারেশন। প্রহর গুনছে মৃত্যুর।

এহেন পরিস্থিতিতে বন্ধুমহলসহ সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় সুস্থ হয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে পারে ইমাম হোসেন। দ্রুত সময়ে অপরারেশন করা সম্ভব হলেই সুন্দর ভুবনে বেঁচে থাকার স্বপ্নপূরণ হবে ইমাম হোসেনের। অকালে বাবাকে হারানোর বেদনা সইতে হবে না তিন শিশু সন্তানকে।

ইমাম হোসেনের পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন- প্রতিমাসে ইমাম হোসেনকে ৫ হাজার টাকার ঔষধ সেবন করতে হচ্ছে। তাই স্ত্রী, ৩ সন্তান নিয়ে চরম অর্থকষ্টে দিন পার করছে পরিবারটি। পরিবারের এ চরম দূর্দিনে অসহায় হয়ে ইমাম হোসেনের ১১ বছর বয়সী শিশু সন্তান এখন ইটভাটার শ্রমিক।

এসএসসি ৯৯ ব্যাচ কক্সবাজার জেলা শাখার সার্বিক তত্ত¡াবধানে জেলা শাখা, উখিয়া, টেকনাফ, ঈদগাঁও, রামু সহ বিভিন্ন এলাকার বন্ধুরা ইমাম হোসেনের চিকিৎসা সহায়তা তহবিল গঠন করে অর্থ সংগ্রহ করছেন। এরই অংশ হিসেবে এসএসসি ৯৯ ব্যাচ রামু শাখার উদ্যোগে ইমাম হোসেন চিকিৎসা সহায়তা তহবিল গঠন করা হয়েছে। এতে এসএসসি ৯৯ ব্যাচ রামুর সকল বন্ধু এবং বিত্তবান, দানশীল ব্যক্তিদের অর্থ সহায়তা প্রদানের জন্য বিনীত অনুরোধ জানানো হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

9 − 1 =

আরও পড়ুন