রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমার আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে বিভ্রান্ত করছে: পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

fec-image

রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমার মনগড়া তথ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে বিভ্রান্ত করছে বলে জানিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তারা বলছে, মিথ্যাচার বন্ধ করে মিয়ানমার সরকারকে তাদের প্রতিশ্রুতি পূরণে মনোযোগী হতে হবে।

বুধবার (৩০ অক্টোবর) মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ কথা বলা হয়। মিয়ানমারের আন্তর্জাতিক সহযোগিতা বিষয়ক মন্ত্রী উ কিয়াও তিনের সাম্প্রতিক মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এই বিবৃতি দেয়।

শুরু থেকেই বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন রুখতে মিয়ানমার সরকারের পক্ষ থেকে মিথ্যা তথ্য উপস্থাপন করা হচ্ছে উল্লেখ করে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয় থেকে বলা হয়, বাংলাদেশের বিরুদ্ধে মিয়ানমার অভিযোগ দিয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে।

আজারবাইজানের রাজধানী বাকুতে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত ‘নন-অ্যালাইন্ড মুভমেন্ট (ন্যাম)’ সম্মেলনের মন্ত্রীপর্যায়ের বৈঠকে রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে বক্তব্য দিয়েছিলেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে মিয়ানমার সরকারের অবস্থানের প্রতি তার অসন্তুষ্টি প্রকাশ করে বলেন, রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে উত্তর রাখাইনে পরিবেশ সৃষ্টির জন্য যেখানে মিয়ানমার সরকারের বাংলাদেশের কাছে প্রতিজ্ঞা করার কথা, সেখানে তারা এখন পর্যন্ত কোনো কার্যকর পদক্ষেপই নেয়নি।

এ সংকট সমাধানে মিয়ানমারকে চাপ দিতে তিনি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানান। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আহ্বানের বিপরীতে মিয়ানমারের আন্তর্জাতিক সহযোগিতা বিষয়ক মন্ত্রী ইউ কিয়া তিন বলেন, ইস্যুটি আসলে কোনো সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে দেশ থেকে বিতাড়িত করে দেওয়া নিয়ে নয়। এই ইস্যুতে ভুল অভিযোগ আনা হচ্ছে। বরং এই সংকটটি আন্ত:সীমান্ত পারাপারকে ঘিরে তৈরি হওয়া একটি রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক ইস্যু, যার সূত্রপাত ঘটেছিলো ব্রিটিশ শাসনামলে।

দেশটি বলছে, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় বিপুল সংখ্যক মানুষ বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে মিয়ানমারে গিয়েছিল। মিয়ানমারের এ ধরনের দাবিকে ‘পুরোপুরি ভিত্তিহীন’ বলেছে বাংলাদেশ।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘এসব ভিত্তিহীন অভিযোগ, তথ্যবিকৃতি এবং ঘটনাকে ভুলভাবে উপস্থাপন করা হতাশাজনক। এই বক্তব্যকে বাংলাদেশ প্রত্যাখ্যান করছে।’

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর দমন-নিপীড়নের কারণে ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ১১ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী বাংলাদেশের কক্সবাজারের বিভিন্ন শিবিরে আশ্রয় নিয়েছে। জাতিসংঘ এবং অন্যান্য মানবাধিকার সংস্থাগুলো রাখাইনের সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়ের ওপরে চালিত এই দমন-পীড়নকে জাতিগত নিধন এবং গণহত্যা বলে অভিহিত করেছে।

মিয়ানমার সেনাবাহিনী রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর নির্মম গণহত্যা চালায়। সেই সঙ্গে যৌন-নিপীড়নসহ অগ্নিসংযোগের মাধ্যমে তাদের বাড়ি-ঘর জ্বালিয়ে দেয়ার মত ঘৃণ্য অমানবিক কাজে লিপ্ত হয়। তবে মিয়ানমারের সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা বারবার এ বিষয়টিতে মিথ্যাচার করছেন।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: মিয়ানমার, রাখাইন, রোহিঙ্গা
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

1 − 1 =

আরও পড়ুন