খাগড়াছড়িতে গণধর্ষণ মামলার আসামিদের পক্ষে আইনি সহায়তা না দিতে নারী সমাজের অনুরোধ

fec-image

খাগড়াছড়িতে প্রতিবন্ধী নারীকে গণধর্ষণ ও ডাকাতির মামলার আসামিদের আইনি সহায়তা না দিতে খাগড়াছড়ি বার এসোসিয়েশনকে অনুরোধ জানিয়েছে নারী সমাজ।

বৃহস্পতিবার (১ অক্টোবর) সকালে পার্বত্য চট্টগ্রাম উইমেন্স রিসোর্স নেটওয়ার্কের নেতৃবৃন্দ খাগড়াছড়ি জেলা বার এসোসিয়েশনের সভাপতি এডভোকেট আশুতোষ চাকমা ও সাধারণ সম্পাদকের আক্তার উদ্দিন মামুনের কাছে লিখিতভাবে এ
অনুরোধ জানান।

খাগড়াছড়িতে নারীকে গণধর্ষণ মামলার আসামিদের পক্ষে আইনি সহায়তা না করতে বার এসোসিয়েশনের কাছে লিখিত আবেদন দিয়েছে উইমেন্স রিসোর্স নেটওয়ার্ক।

এ সময় নারী নেত্রী লালসা চাকমা, শাপলা ত্রিপুরা, মণিষা চাকমা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। লিখিত আবেদনে আসামিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করে বলা হয়, ধর্ষণ মামলার আসামিরা আইনের ফাঁক-ফোঁকর গলে যাতে বের হতে না পারে সে বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখার জন্য অনুরোধ জানানো হয়।

এছাড়া সিলেটের ঘটনায় আইনজীবিরা যেভাবে বিবাদী পক্ষের লোকদের আইনি সহয়তা না দিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন সেভাবে খাগড়াছড়ির ধর্ষণ মামলার আসামিরা যাতে উকিলদের সহায়তা না দিতে আহবান জানান।

বুধবার (২৩ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাত আড়াই টা থেকে সাড়ে ৪ টা পর্যন্ত খাগড়াছড়ি জেলার বলপাইয়া আদাম এলাকায় বিন্দু লাল চাকমার বাড়ীতে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটে।

৯ সদস্যের ডাকাত দলের সদস্যরা ঘরের নগদ অর্থ, স্বর্ণালংকার, মোবাইল লুট করার পাশাপাশি একটি কক্ষে নিয়ে তার বুদ্ধি প্রতিবন্ধী নারী (২৬) বেঁধে  রেখে উপর্যপরি ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় ধর্ষিতা মা ২৪ সেপ্টেম্বর বিকালে ৯ অজ্ঞাত ব্যক্তিকে আসামি করে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন এবং ডাকাতির ঘটনায় পৃথক দুটি মামলা করেন।

পুলিশ মাত্র ৪৮ ঘন্টার মধ্যে আসামিদের চিহিৃত করে চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ৭ আসামিকে গ্রেফতার ও ডাকাতির মালামালসহ ডাকাতির সময় ব্যবহৃত সিএনজি অটো রিক্সাটি উদ্বার করেছে পুলিশ।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: গণধর্ষণ, প্রতিবন্ধী
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

11 − 9 =

আরও পড়ুন