দীঘিনালায় ছাত্রীকে ধর্ষণের ভিডিওচিত্র ধারণ: ১ যুবক গ্রেপ্তার

56

নিজস্ব প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলার এক নম্বর মেরুং ইউনিয়নের এক মাদ্রাসা ছাত্রী (১৫)কে জোরপূর্বক রাস্তা থেকে তিন বখাটে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করে তার ভিডিও চিত্রধারণ করেছে।

 

এ ঘটনা জানাজানি হলে এলাকাবাসী ইমন হোসেন(২০)নামে এক যুবককে গণধোলাই দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে। ঘটনায় জড়িত অন্য দুই যুবক পলাতক রয়েছে। এ ঘটনায় থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন এবং পর্ণগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার(১৮ জুন)উপজেলার বড় মেরুং এলাকায়। আটককৃত যুবকের কাছ থেকে পুলিশ ভিডিওচিত্রসহ মুঠোফোন জব্দ করেছে।

পুলিশ জানায়,বুধবার(১৮ জুন)উপজেলার এক নম্বর মেরুং ইউনিয়নের বড় মেরুং এলাকার মাদ্রাসায় পড়–য়া এক ছাত্রী(১৫)আরবি দ্বিতীয়পত্রের পরীক্ষা শেষে বাড়ি ফেরার পথে নির্জনতার সুযোগ নিয়ে আগে থেকে ওঁতপেতে থাকা ইমন হোসেন(২০),ইসমাইল হোসেন(২২) ও ফারুক হোসেন(২২) ছাত্রীটিকে জোরপূর্বক ধরে জঙ্গলে নিয়ে হাত পা বেঁধে ধর্ষণ করে এবং মোবাইলে ধর্ষণের ভিডিওচিত্র ধারন করে। পরে ছাত্রীটি আহত অবস্থায় কাঁদতে কাঁদতে বাড়িতে এসে ঘটনাটি মাকে জানালে তাঁর মা মেরুং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেনকে ঘটনাটি জানালে তিনি পুলিশে খবর দেন।

এসময় এলাকাবাসী ইমন হোসেন(২০)আটক করে। এসময় অন্য দুই যুবক পালিয়ে যায়। পরে আটককৃত যুবক পুলিশের কাছে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে। পুলিশ তার কাছ থেকে ভিডিওচিত্র ধারণকৃত মুঠোফোনটি উদ্ধার করে। এ ঘটনায় ছাত্রীটির বড় বোন বাদী হয়ে ইমন হোসেন(২০) ইসমাইল হোসেন(২২) ও ফারুক হোসেন(২২)কে আসামী করে থানায় থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন এবং পর্নগ্রাফী নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করেছে।

দীঘিনালা থানার অফিসার ইনচার্জ সাহাদাত হোসেন টিটো জানান, আটকৃত যুবককে জেলা হাজতে পাঠানো হয়েছে। ছাত্রীটির ডাক্তারী পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়েছে। ঘটনায় জড়িত অন্য দুই যুবককে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: দিঘীনালা, ধর্ষণ, ধর্ষণের ভিডিওচিত্র
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 + thirteen =

আরও পড়ুন