চকরিয়ায় অদ্বৈত-অচ্যুত মিশনের সম্মেলন সম্প্রীতির সমাবেশে এমপি জাফর আলম

প্রধানমন্ত্রী ধর্মবর্ণ  নির্বিশেষে সম্প্রীতির বাংলাদেশ বির্নিমাণের কারিগর

fec-image

চকরিয়া পৌরসভার ভরামুহুরীস্থ কেন্দ্রীয় কালীমন্দির প্রাঙ্গণে অদ্বৈত-অচ্যুত মিশন বাংলাদেশ চকরিয়া উপজেলা শাখার সম্মেলন পরবর্তী সম্প্রীতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) মন্দির প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত সম্প্রীতির সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন চকরিয়া-পেকুয়া (কক্সবাজার-১) আসনের সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ জাফর আলম।

সম্মেলনের উদ্বোধক ও পৌরহিত্য করেন চট্টগ্রাম তুলসীধামের অধিপতি ঋষিধাম মোহান্ত শ্রীমৎ দেব দীপানন্দ পুরী মহারাজ।

সম্মেলন ও সম্প্রীতি সমাবেশ উপলক্ষে এদিন আয়োজন করা হয় বিশেষ সঙ্গীতানুষ্ঠান। এতে সংগীত পরিবেশনা করেন কুষ্টিয়া থেকে আগত লালন শিল্পী ভজন ক্ষ্যাপা।

শুক্রবার সকাল ৯টায় সমবেত গীতাপাঠের মাধ্যমে সম্মেলনের সুচনা ঘটে। এরপর সাড়ে ৯টায় অনুষ্ঠিত হয়েছে মঙ্গল শোভাযাত্রা। বেলা ১১টায় মন্দির প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। এতে সভাপতিত্ব করেন অদ্বৈত-অচ্যুত মিশনের চকরিয়া উপজেলা শাখার সভাপতি শ্রীযুক্ত প্রিয়তোষ দাশ।

অদ্বৈত-অচ্যুত মিশন চকরিয়া উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক দীপক চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে মহান অতিথি ছিলেন অদ্বৈত-অচ্যুত মিশন বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও চট্টগ্রাম বিশ্ব বিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক শ্রী প্রণব মিত্র চৌধুরী।

প্রধান আলোচক ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগরীর নন্দনকানন তুলসীধামের গীতাপ্রজ্ঞাতীর্থ শ্রীযুক্ত যোগেশ্বর চৌধুরী, বিশেষ আলোচক বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম মহানগরীর নন্দনকানন তুলসীধামের বিশিষ্ট ভাগবতীয় বক্তা শ্রীযুক্ত সোনারাম ধর।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম নন্দকানন তুলসীধামের সাধারণ সম্পাদক স্থপতি শ্রী প্রণত মিত্র চৌধুরী, অদ্বৈত-অচ্যুত মিশন বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক শ্রী হিরন্ময় ধর, কক্সবাজার জেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি ও জেলা দায়রা জজ আদালতের এপিপি অ্যাডভোকেট রনজিত দাশসহ আরও অনেকে ছিলেন। অনুষ্ঠানে অদ্বৈত-অচ্যুত মিশনের বিভিন্ন ইউনিটের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

সম্প্রীতি সমাবেশে এমপি জাফর আলম বলেছেন, বাংলাদেশে বসবাসরত মুসলমানেরা ইসলাম ধর্ম পালন করবে, হিন্দুরা হিন্দুদের ধর্ম, খ্রীস্টানরা খ্রীস্টানদের ধর্ম আর বৌদ্ধ সম্প্রদায় বৌদ্ধদের ধর্ম পালন করবে এটাই সংবিধানে প্রচলিত নিয়ম। যারা এদেশের নাগরিক, এখানকার অধিবাসি সকলের বাংলাদেশের মানুষ হিসেবে সবার অধিকার সমান। অর্থাৎ ধর্ম যার যার রাষ্ট্র সবার।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা দিয়েছেন, বাংলাদেশকে সাম্প্রীদিয়তামুক্ত স্বনির্ভর রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলা হবে। সরকারের প্রধানের ঘোষণার আলোকে তাঁর বলিষ্ট নেতৃত্বে আজ দেশের সবধর্মের মানুষ মিলেমিশে বসবাস করছে। একইসঙ্গে শান্তিপুর্ণ পরিবেশে ধর্মীয় উৎসব পালন করছে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরে স্বাধীনতা পরবর্তী বাংলাদেশে শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বে পুরো বাংলাদেশ আজ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত বিশ্ববাসীর কাছে। বিশ্ব দরবারে প্রমাণ হয়েছে বাংলাদেশে সম্প্রীতির মেলবন্ধন বির্নিমাণের কারিগর শেখ হাসিনা

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন ক্ষমতায় থাকে তখন দেশের সকল সম্প্রদায়ের মানুষ তাদের নিজ নিজ ধর্ম শান্তিপূর্ণ এবং সুষ্ঠভাবে পালন করতে পারে। তাঁর বিচক্ষণ ও সুদক্ষ নেতৃত্বে যেমন বাংলাদেশ অগ্রগতি উন্নয়নে এগিয়ে যাচ্ছে, তেমনি তাঁর উদার রাজনীতির কল্যাণে সকলধর্মের মানুষের সবধরণের উৎসব বাঙ্গালীর প্রাণের উৎসবে পরিণত হয়েছে।

আমাদেরকে চকরিয়া-পেকুয়া উপজেলার প্রতিটি জনপদে ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে সবার মাঝে সম্প্রীতির মেলবন্ধন অটুট রাখতে হবে।

অদ্বৈত-অচ্যুত মিশন চকরিয়া উপজেলা শাখার সম্মেলন ও সঙ্গীতানুষ্ঠানকে ঘিরে চকরিয়া উপজেলা ও থানা প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিতায় অনুষ্ঠানস্থলে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়।

সেই জন্য অনুষ্ঠানস্থলকে সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে সার্বক্ষনিক নজরদারিতে রাখা হয়। এদিন সকাল থেকে ভরামুহুরীস্থ কেন্দ্রীয় কালীমন্দির প্রাঙ্গণে ৮জন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের তত্তাবধানে সর্বস্তরের রোগীদের জন্য বিনামুল্যে চিকিৎসাসেবার আয়োজন করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eighteen − 17 =

আরও পড়ুন