মিয়ানমারে সরকারি অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রতিনিধি যাওয়ার কারণ জানালেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

fec-image

সম্প্রতি মিয়ানমারের একটি সরকারি অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রতিনিধির অংশগ্রহণ নিয়মিত প্রক্রিয়ার অংশ ছিল বলে উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন বলেন, ‘মিয়ানমারকে আমরা পর্যবেক্ষণে রেখেছি। তাদের একটি নিয়মিত অনুষ্ঠান ছিল। যেসব দেশে আমাদের ডিফেন্স অ্যাটাশে থাকেন তারা এগুলোতে অংশগ্রহণ করেন। শুধু উনি না, আরও আটটি দেশ গেছে।’ বুধবার (৩১ মার্চ) এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

এই বিষয় নিয়ে যারা হইচই করছে তাদের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে মন্ত্রী বলেন, ‘যারা এটি নিয়ে হইচই করছেন, যখন রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন করা হলো এবং ২৫ হাজার রোহিঙ্গাকে মারা হলো, তখন তো তাদের এ ধরনের হট্টগোল বা বয়কট দেখি নাই, ব্যবসা বন্ধ করতে দেখি নাই।’

তিনি বলেন, এতদিন তারা ব্যবসা বন্ধ তো করেইনি। বরং যারা এখন বেশি সোচ্চার তাদের ব্যবসা এদের সঙ্গে ১৫ গুণ বেড়েছে।

মন্ত্রী বলেন, ‘তারা এখন চাইছে সু চিকে আবার সরকারে নিয়ে আসার জন্য। আমরা সু চি সরকারের অবস্থান দেখেছি। আমরা সু চির জন্য রাস্থায় মিছিলও করেছি। কিন্তু ওই সু চি সরকার যখন ক্ষমতায় আসলেন তখন সেখানে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হলো, তারপরেও তাদের টনক নড়ে নাই।’

আব্দুল মোমেন বলেন, ‘রোহিঙ্গারা যখন কষ্টে ছিল তখন একজন লোকও তাদের পাশে দাঁড়ায়নি। এটি লজ্জার বিষয়। এখন আপনারা বড় বড় কথা বলছেন, হইচই করছেন। তাদের বলেন, রোহিঙ্গাদের জন্য টেকসই সমাধান সেটির ব্যবস্থা করতে।’

রোহিঙ্গারা ৩০ বছর ধরে নির্যাতিত, তারা স্কুলে যেতে পারে না, স্বাস্থ্যসেবা পায় না। কিন্তু এগুলো তাদের চোখে পড়ে না। এখন সরকার পরিবর্তন হয়েছে বলে চিৎকার শুরু করেছে বলে তিনি জানান।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী, মিয়ানমারে
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

9 + 14 =

আরও পড়ুন